শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সব কাজেই দেরি হচ্ছে! বদলে যাবে বদ-অভ্যাস

late-at-odfficeঅফিসে যেতে প্রতিদিনই দেরি হয় শুভ্র সাহেবের। ইদানিং সব কাজেই দেরি হচ্ছে তার। অবস্থাটা এমন দাঁড়িয়েছে কাজে দেরি হওয়াটা তার পিছে যেন শনি গ্রহের মতো লেগে আছে। এজন্য বসের ঝাড়ির সঙ্গে বাড়তি পাওনা হিসেবে জুটছে সহকর্মীদের নেতিবাচক মন্তব্য। শুভ্র সাহেবের মতো যেকোনো কাজে দেরি করাটা যদি আপনার অভ্যাস হয়ে থাকে তাহলে তা থেকে বেরিয়ে আসাটা অতি জরুরি। এ জন্য সময় ও মনোযোগ দুটিই যোগ করা প্রয়োজন। এ বদ অভ্যাস থেকে বের হওয়ার কিছু টিপস জানাচ্ছি

খেয়াল রাখুন প্রস্তুত হতে কতো সময় লাগে

সময়ক্ষেপণের সবচেয়ে বড় কারণ এটি। বাইরে বেরুনোর আগে প্রস্তুত হওয়া। ঘুম থেকে ওঠা থেকে শুরু করে পোশাক পরে ফিটফাট হতে কতো সময় লাগে তা দেখুন। অতিরিক্ত সময় কোথায় লাগছে তা খুঁজে বের করুন এবং সেগুলো কাটছাট করুন।সকালে ঘুম থেকে উঠে ব্রাশ করা, তৈরি হওয়া, সকালের নাশতা করা ও বের হওয়ার মতো প্রস্তুতির ক্ষেত্রে চেষ্টা করুন ৩০ মিনিট এগিয়ে থাকতে। তাহলে হঠাৎ কোনো সমস্যা হলে সময়টা পুষিয়ে যাবে।

পথে দেরির বিষয়টি মাথায় রাখুন

আমাদের অনেক সময় চলে যায় পথে বসে থেকে। প্রয়োজনীয় যানবাহনের অভাব এবং ব্যাপক যানজটের কারণে বড় একটা সময় ব্যয় করতে হয় অল্প পথ অতিক্রম করতে। তাই বের হওয়ার আগে গড় একটি হিসেব ধরে রাখুন পথে ব্যয় করার জন্য। নয়তো ওই সময়টুকু দেরি হয়ে যাবে।

অভ্যাস করুন রাতে দ্রুত ঘুমানোর

ঘুম থেকে দেরি করে ওঠা যেকোনো কাজের দেরির অন্যতম কারণ। নির্দিষ্ট সময় ঘুম থেকে ওঠা অভ্যাসের বিষয়। যদি ঘুম থেকে উঠতে দেরি হয়,হবে রাতে দ্রুত ঘুমাতে যান। ভালো ঘুম হলে সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠা। ঘুমের আগে চা,কফি পরিহার করুন। নতুবা ঘুমের ব্যাঘাত ঘটতে পারে।

যাঁদের ভোরে ঘুম থেকে ওঠার অভ্যাস নেই, তাঁরা হুট করে এক দিনেই অভ্যাস করার চেষ্টা করবেন না। বরং প্রতিদিন একটু একটু করে ভোরে ঘুম থেকে ওঠার চর্চা করুন। নতুবা হঠাৎ করে শুরু করলে তন্দ্রাচ্ছন্নতায় সারা দিনের কাজ মাটি হবে।

ঘড়ির সময় কিছুটা এগিয়ে রাখুন

আপনার ঘড়ির সময়টি সঠিক সময় অনুসরণ করছে কি না, পরখ করে নিতে ভুলে যাবেন না। সঠিক সময়ের চেয়ে ১০ মিনিট এগিয়ে রাখলে প্রতিযোগিতাময় পৃথিবীতে আপনি এগিয়ে গেলেন কিছুটা সময়।

অ্যালার্ম দিতে ভুলবেন না

রাতে ঘুমানোর আগে ঘড়ি, মুঠোফোন কিংবা ল্যাপটপ সঠিক সময়ে অ্যালার্ম দিতে ভুলবেন না। অ্যালার্ম দেওয়ার সময় সকাল (এএম) ও দুপুর (পিএম)-এ যেন গন্ডগোল না হয়। অবশ্যই একবার নয়, অ্যালার্ম যেন কমপক্ষে তিনবার বাজে, সে ব্যাপারে সুনিশ্চিত হোন।

আগাম প্রস্তুতিপর্ব সেরে রাখুন

যদি প্রস্তুত হতে আপনার বেশি সময় লেগেই যায়,তবে এ কাজটি আগে থেকে গুছিয়ে রাখুন। অফিসের প্রয়োজনীয় অনুষঙ্গ যেমন: নোটবুক, ল্যাপটপ, কলম, পরিচয়পত্র, ফাইলপত্র ইত্যাদি রাতেই ব্যাগে গুছিয়ে নিন। ঘড়ি, মানিব্যাগ, মুঠোফোন রাখুন হাতের কাছে। পরদিন কোন পোশাক, জুতা ও মোজা পরবেন তা আগেই গুছিয়ে রাখুন। বের হওয়ার আগ মুহূর্তে যদি কাপড় ইস্ত্রি করার প্রয়োজন হয়,তবেই বিপদ। কোনটি পরবেন তা নিয়ে যদি সিদ্ধান্তহীনতায় ভোগার অভ্যাস থাকে তবে আগে থেকেই যে পোশাক পরবেন তা গুছিয়ে রাখুন ।

নারীরা রাতের সময়টা কাজে লাগাতে পারেন

নারীদের সংসার-অফিস দুটোই সামলাতে হয়। তাঁরা রাতের সময়টা কাজে লাগাতে পারেন। সকালের নাশতা তৈরি করে রেখে দিতে পারেন রাতেই। পাশাপাশি বাচ্চাদের পোশাক, ব্যাগ, বই, খাতা রাতেই গুছিয়ে রাখুন।

উন্নতিতে নিজেকে পুরষ্কৃত করুন

চর্চা চালিয়ে যাওয়ার ফলে যদি নিজের কিছুটা উন্নতি হয়ে থাকে, তবে নিজেকে নিজেই ধন্যবাদ দিন এবং পুরষ্কৃত করুন। এতে মন ভালো হবে এবং আরো উন্নতির পেছনে সময় দিতে উৎসাহ পাবেন। সময় নিয়ে লক্ষ্যস্থির করুন। যেমন- আগামি এক সপ্তাহের মধ্যে কোনো একটি কাজের অভ্যাস গড়ে তুলবেন।

খেয়াল করুন দেরির ধারাবাহিকতা

অনেক সময়ই দেখা যায়, নির্দিষ্ট কোনো কাজে দেরি হচ্ছে না, কিন্তু সব মিলিয়ে বেশ দেরি হয়ে যায়। সেক্ষেত্রে বের হওয়ার আগে কাজের ধারাবাহিকতায় কোনো সমস্যা রয়েছে কিনা তা খেয়াল করে দেখুন। ধারাবাহিকতায় সমস্যা থাকলে দেরি হবেই।

দেরির প্রতিক্রিয়া জানুন

আপনি সব সময় দেরি করেন, এর প্রভাব কীভাবে আপনার ওপরে পড়ে তা বের করুন। এ অভ্যাস যে সকল ক্ষতি বয়ে আনছে তা বুঝতে পারলে সচেতনতা বাড়বে। নেতিবাচক প্রভাবকে ইতিবাচক করতে সচেষ্ট হলেই দেরি হওয়ার অভ্যাস থেকে বের হয়ে আসতে পারবেন।