শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

জেরিন ও লিমনের প্রেমের সর্ম্পক কোন দিকে?

jarin‘লিমন আমাকে বলেছিল, বাঁচতে হলে বাঁচবো দু’জন একসঙ্গে, মরতে হলে দুজন একসঙ্গে মরবো। তবুও তোমাকে আমি ছাড়বো না। আমার পরিবার যতই না বলুক তোমার হাত ধরেছি, হাত ধরেই রাখবো। আমি তোমাকে অনেক পছন্দ করি। তখন আমি বলেছিলাম, আমি কিন্তু অনেক সুন্দরী না বা আমার বাবার অনেক টাকাও নেই। সে আমাকে বলেছিল, তোমাকে বানিয়েছে আল্লাহ। এভাবেই আমাকে প্রতিনিয়ত দুর্বল করতে থাকে। আজ সে আমাকে প্রত্যাখ্যান করছে। আমাকে ফেরত দিলে আমি বাড়ি ফিরে যাবোনা, আমি আত্মহত্যা করবো।’
এভাবেই কথাগুলো বলছিল জেরিন। জেনির এবং লিমন উভয়েই স্বপ্ন দেখা শুরু করেছিল ঘর বাঁধার। কিন্ত বাস্তবতা জেরিনকে লিমনের কাছ থেকে দূরে ঠেলে দিতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলের জেরিন ঘর বাঁধার দাবিতে অবস্থান নেন আশুগঞ্জের  লিমনের বাড়িতে।
 
গত শুক্রবার সকালে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়ি আশুগঞ্জের যাত্রাপুর এলাকায় চলে আসেন জেরিন। অবশেষে থানা পুলিশের মধ্যস্থতায় উভয়পক্ষের সম্মতিতে শুরু হয় কালক্ষেপণ। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে আজ রাতে আবার সমঝোতা  বৈঠক হওয়ার কথা থাকলেও জেরিন সকাল থেকে নিখোঁজ রয়েছেন। 
জেরিন ও লিমনের পরিবার সূত্রে জানা যায়, আশুগঞ্জের যাত্রাপুর গ্রামের মো. হামদু মিয়ার ছেলে সৌদি প্রবাসী লিমনের সঙ্গে ফেসবুক, স্কাইপি ও মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে সরাইল উপজেলার নোয়াগাঁও ইউনিয়নের তেরকান্দা গ্রামের আলী আব্বাসের মেয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সমাজ বিজ্ঞান অনার্স পড়ুয়া আইরিন সুলতানা জেরিন সঙ্গে।
দীর্ঘদিন তারা প্রযুক্তির বদৌলতে একে অপরের কাছে আসে, ঘনিষ্ঠ হয়, ঘর বাঁধার স্বপ্ন দেখে। কিন্তু লিমন এক সপ্তাহ আগে দেশে আসলে সব গোল পেকে যায়। সর্ম্পকের ভাঙন শুরু হয়, নানা অযুহাতে লিমন দূরে সরে যেতে চায় জেরিনের জীবন থেকে।
 
লিমনের স্পষ্ট জবাব জেরিন তার সঙ্গে ছবি নিয়ে প্রতারণা করেছে। তবে জেরিন বলছে, লিমন তাকে দেশে এসেও বিয়ের আশ্বাস দিয়ে একাধিকবার দেখা করেছে।
আগামীতে উভয় পক্ষের লোকজনের সম্মতিতে যেকোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হবে-এ কথার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশের সহায়তায় জেরিনকে গত শুক্রবার রাতে তুলে দেয়া হয় তার পরিবারের হাতে। শনিবার সকালে জেরিন বাহিরে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হলেও এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তিনি বাড়ি ফিরে যাননি।
 
গতকাল রাতে জেরিন জানান, ইন্টারনেট (স্কাইপি) ও মোবাইলে সৌদি প্রবাসী লিমনের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। প্রায় তিন বছর ধরে তার সঙ্গে কথা বলেছি। লিমন আমার বিয়ে ভেঙে দিয়েছে এবং বিয়ে করার আশ্বাস দিয়েছে, তার জন্য আমি চাকরি ছেড়েছি। আমার পড়াশুনার ক্ষতি করেছি। দেশের আসার পর তার সঙ্গে আত্মীয়ের বাসায় ও আশুগঞ্জে কয়েকবার দেখা করেছি। লিমন কোনো সময় বিয়ে করবেনা বা অপছন্দের কথা আমাকে বলেনি। আমি বাড়িতে চলে আসবো বললে সে আমাকে আসতে বলেছে। তাই আমি আমার বাড়ি ছেড়ে চলে আসলাম। এখন আমার মান-সম্মান সব শেষ, লিমন বিয়ে না করলে আমার আত্মহত্যা করতে হবে।
জেরিনের চাচা বাবুল মিয়া বলেন, ‘ফেসবুক ও স্কাইপির মাধ্যমে জেরিনের সঙ্গে লিমনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। পরে লিমনের বড় ভাই ও মা তাদের বাড়িতে গিয়ে জেরিনকে দেখে আসে ও লিমন দেশে ফিরে আসলে তার সঙ্গে বিয়ের আশ্বাস দেন। লিমন দেশে এসেও জেরিনের সঙ্গে তিনবার দেখা করে। এখন লিমন প্রেমের সম্পর্ক অস্বীকার করতে চাচ্ছে।’
এ ব্যাপারে লিমন মোবাইল ফোনে জানান, জেরিন যা বলছে তা মিথ্যা। দেশে এসে একবার তার ফুফুর বাসার দেখা হয়েছে। ওই দিনই সে তাকে বিয়ে করা সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দিয়েছেন বলে জানান।
জেরিনের ফুফু সোনিয়া আক্তার জানান, আগামীকাল তাদের সঙ্গে পরবর্তীতে আবারো আলোচনা হবে- এমন আশ্বাসে আমরা জেরিনকে নিয়ে চলে আসি। সকালে সে কিছু না বলেই বের হয়ে যায়। রাত হয়ে গেল এখনো সে ফিরে আসেনি। যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে এজন্য আমরা লিমন ও তার পরিবারকে দায়ি করবো।
এ ব্যাপারে আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু জাফরের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, ঘটনাটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। উভয়পক্ষের মধ্যে আবার আলোচনা হওয়ার কথা রয়েছে। কোনো পক্ষ আইন লঙ্ঘন করলে বা কোনো পক্ষ আইনি সহায়তা চাইলে আমরা ব্যবস্থা নেবো। জেরিন নিখোঁজের বিষয়টি আমাদের কেউ জানায়নি।