মঙ্গলবার, ২৮শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় বিচারক প্রত্যাহার

law_sm_864225457ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারকে প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোশতাক আহম্মেদ সাহদানী এক আদেশের মাধ্যমে তাকে প্রত্যাহার করে নেন। র‌্যাবের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা নেওয়ার নির্দেশ দেওয়ার একদিন পরই তাকে প্রত্যাহার করা হলো। 


সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত আমলি আদালত থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট স্বাক্ষরিত পত্রে উল্লেখ করা হয়। এতে আরো উল্লেখ করা হয় যে ৮ জুন থেকে এ আদেশ কার্যকর হবে।জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি মো. সারোয়ার আলম বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহারকে প্রত্যাহার করার একটি আদেশ দিয়েছেন চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।  শাহনূর হত্যা মামলার বাদীপক্ষের প্রধান আইনজীবী মো. খায়রুল আলম বাংলানিউজকে বলেন, আমি মনে করি র‌্যাবের বিরুদ্ধে আদেশ দেওয়ার কারণেই ওই বিচারকের আমলি ক্ষমতা কেড়ে নেওয়া হয়েছে। এ আদেশের একটি কপি আমার কাছে আছে।

 এদিকে, মামলা নেওয়া ও তদন্তের নির্দেশের বিরুদ্ধে র‌্যাব সদস্যরা আপিল করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলেও একটি সূত্রে জানা গেছে। 


বৃহস্পতিবার র‌্যাবের একটি দল এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালত এলাকায় আসে। তবে আপিল করা হয়েছে কি-না সে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি।





বুধবার (২ এপ্রিল) ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বগডর গ্রামের শাহনূর আলম হত্যার ঘটনায় র‌্যাবের ১১ সদস্যের বিরুদ্ধে  আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নাজমুন নাহার।


বুধবার দুপুর ১২টার দিকে শুনানি শেষে নিহত ব্যক্তির ভাইয়ের দায়ের করা মামলার পরিপ্রেক্ষিতে নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ নির্দেশ দেন তিনি।


মামলার বাদী নিহত শাহনূরের ভাই মেহেদী হাসান জানান, ১ জুন নবীনগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তিনি মামলাটি দায়ের করেন। আদালত ৪ জুন মামলার অধিকতর শুনানি ও আদেশের তারিখ দেন।


 আদালত সূত্রে জানা যায়, মামলায় র‌্যাব-১৪, ভৈরব ক্যাম্পের অধিনায়ক মেজর এ জেড এম সাকিব সিদ্দিক ও ওই ক্যাম্পের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. এনামুল হকসহ র‌্যাবের ৯ সদস্যকে আসামি করা হয়েছে। র‌্যাবের বাকি সদস্যদের নাম উল্লেখ করা হয়নি। ৯ র‌্যাব সদস্য ছাড়াও এ মামলায় স্থানীয় কৃষ্ণনগর গ্রামের নজরুল ইসলাম (৫৮) ও আবু তাহের মিয়াকে (৪৫) আসামি করা হয়েছে। 


২৯ এপ্রিল মঙ্গলবার বগডর গ্রামের রহিজ উদ্দিনের ছেলে শাহনূর আলমকে আটক করে র‌্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা। এরপর ৬ মে পুলিশ হেফাজতে তার মৃত্যু হয়। র‌্যাবের নির্যাতনে শাহনূরের মৃত্যু হয়েছে বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের ভাই মেহেদী হাসান বাদী হয়ে র‌্যাবের বিরুদ্ধে মামলাটি দায়ের করেন।



 

এ জাতীয় আরও খবর

সেপটিক ট্যাঙ্কে মিলল আনারের দেহের ‍অংশ

এমপি আনার খুন: দেহাংশ খুঁজতে ভাঙা হবে সঞ্জীবা গার্ডেনসের স্যুয়ারেজ লাইন

প্রাথমিকে ৪৬ হাজার শিক্ষক নিয়োগের প্রক্রিয়া হাইকোর্টে স্থগিত

বেনজীর ও তার স্ত্রী-সন্তা‌নদের সব বিও হিসাব ফ্রিজ

ফিলিস্তিনকে স্বাধীন রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিলো স্পেন-নরওয়ে

কাল ঢাকায় আসছেন আইএমও মহাসচিব

আরও তিন উপজেলার ভোট স্থগিত

ঈদুল আজহায় ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রির তারিখ ঘোষণা

উপকূলে এখনো থামেনি ঘূর্ণিঝড় রিমালের দাপট

বিয়ের ১২ দিন পর স্ত্রী হয়ে গেলেন পুরুষ

অপরাধী হলে শাস্তি পেতেই হবে, সাবেক সেনাপ্রধান-আইজিপির বিষয়ে কাদের

সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ৭০ হাজার পদ ফাঁকা : জনপ্রশাসনমন্ত্রী