বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা: শতবর্ষী এক দ্বৈরথ

১৯৮২’র বিশ্বকাপের এই ম্যাচেই লালকার্ড দেখেছিলেন ডিয়েগো ম্যারাডোনা১৯৮২’র বিশ্বকাপের এই ম্যাচেই লালকার্ড দেখেছিলেন ডিয়েগো ম্যারাডোনা২০১৪ সালের বিশেষত্ব কি কেবল বিশ্বকাপ ফুটবল? অনেকেই বলবেন, তা নয়তো কি? কিন্তু তাঁরা কি জানেন এ বছরেই পূর্ণ হয়েছে আন্তর্জাতিক ফুটবলের ইতিহাসে সবচেয়ে আলোচিত দ্বৈরথের শতবর্ষ? ১৯১৪ সালে বুয়েনস এইরেসে প্রথমবার মুখোমুখি হয়েছিল ফুটবলের দুই ‘দৈত্য’ ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। প্রথম সাক্ষাতে আর্জেন্টাইনরাই উড়িয়েছিল বিজয় নিশান। সেই থেকে আজ অবধি চলে আসা দুই দলের প্রতিদ্বন্দ্বিতার ধার এমনই তীক্ষ যে, এই দুই দলের মধ্যে অনুষ্ঠিত প্রীতিম্যাচগুলোও পেয়ে আসছে ক্লাসিকের মর্যাদা!

গত ১০০ বছরে বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব, মূলপর্ব, কোপা আমেরিকা ও সব ধরনের আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতা মিলিয়ে এই দুই দল মুখোমুখি হয়েছে মোটে ৯৫ বার। অর্থাত্ ফি বছরে একবারেরও অনেক কম। ৩৬ বার জয় নিয়ে মাঠ ছেড়ে এগিয়ে রয়েছে আর্জেন্টিনাই। একটি মাত্র কম জয় নিয়ে আর্জেন্টিনার ঠিক ঘাড়ের ওপর নিঃশ্বাস ফেলছে ব্রাজিল। অবশিষ্ট ২৪ ম্যাচে ৯০ মিনিটে মীমাংসা হয়নি। বিশ্বকাপে দুই দলের সাক্ষাতের ইতিহাস কিন্তু দেখায় পুরোপুরি উল্টো এক চিত্র। বিশ্বকাপে মোট চারবার মুখোমুখি হয়ে ব্রাজিল জিতেছে দুটিতে। আর্জেন্টিনার জয় একটি, অপর ম্যাচটি ছিল গোলশূন্য ড্র।

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী দুই দলই লাতিন আমেরিকার হওয়ায় বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে সাক্ষাত্ হয়নি কখনো। প্রথম সাক্ষাত্ হতে লেগেছিল বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার পর আরও ৪৪ বছর। ১৯৭৪ বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে বিশ্বকাপে প্রথমবার মাঠের যুদ্ধে মুখোমুখি হয় লাতিন ফুটবলের দুই দিকপাল-রাষ্ট্র। ৩২ মিনিটে রিভেলিনোর গোলে এগিয়ে যাওয়া ব্রাজিলকে তিন মিনিটের মাথায় গোল শোধ দিয়ে সমতা ফেরায় আর্জেন্টিনা। পরে দ্বিতীয়ার্ধের চার মিনিটের মাথায় ব্রাজিলের জারজিনহোর গোলেই নির্ধারিত হয় ম্যাচের ভাগ্য।

১৯৯০ সালের বিশ্বকাপে ক্লদিও ক্যানিজিয়া ছিলেন ব্রাজিলের বিপক্ষে আর্জেন্টিনার জয়ের নায়ক১৯৭৮ বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সাক্ষাতে দুই দলের কেউই দেখেনি গোলের মুখ। তবুও উত্তেজনার পারদ সীমা ছাড়িয়ে যাওয়া এই ম্যাচকে বলা হয়ে থাকে ‘ব্যাটল অব রোজারিও’। আক্ষরিক অর্থেই তা ছিল যুদ্ধ। সহিংসতা আর হাতাহাতিতে পূর্ণ এই ম্যাচে লাতিন আমেরিকানদের সুন্দর ফুটবল ছিল একেবারেই অনুপস্থিত।

চার বছর পরেই বিরাশির বিশ্বকাপে দুই দলের সাক্ষাত্ আবারও দ্বিতীয় রাউন্ডে। ব্রাজিলের একচেটিয়া আধিপত্যে থাকা ওই ম্যাচে ৮৯ মিনিট শেষে ৩-০ গোলে এগিয়েই ছিল ব্রাজিল। ব্রাজিলিয়ান স্ট্রাইকার সারজিনহো বেশ কিছু গোলের সুযোগ নষ্ট না করলে ব্যবধান বাড়তে পারত আরও। একদম শেষ মিনিটে আর্জেন্টিনার গোলে ব্যবধান কমে হয়েছিল ৩-১। জয়-পরাজয় যারই হোক, উত্তেজনার কমতি ছিল না মাঠের ফুটবলে। বাজে রেফারিংয়ে অভিযুক্ত ওই ম্যাচে বাতিস্তাকে লাথি মেরে সরাসরি লাল কার্ড দেখেছিলেন ফুটবল জাদুকর ডিয়েগো ম্যারাডোনা। ফুটবল বিশ্ব মনে রাখলেও ম্যারাডোনা নিশ্চয়ই সেই ম্যাচের কথা ভুলে যেতে চেয়েছেন বারবার।

বিশ্বকাপে দুই দলের এ পর্যন্ত শেষ সাক্ষাতেরও হয়ে গেছে ২৪টি বছর। নব্বইয়ের বিশ্বকাপের শেষ ষোলোতে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার সেই ম্যাচ ঘিরেও উঠেছিল বিতর্কের ধোয়া। ফুটবল ডিকশনারিতে এই বিতর্কের নাম ‘হলি ওয়াটার স্ক্যান্ডাল’। অনেক বছর পর এক টেলিভিশন শোতে সেই দায় স্বীকার করে ধোয়া বাড়িয়েছিলেন স্বয়ং ম্যারাডোনাই। নব্বইয়ের নিষপ্রভ আর্জেন্টিনা দলে ব্যতিক্রম ছিলেন ম্যারাডোনা, ফুটবল বুদ্ধিমত্তা আর কৌশলে তাঁকে হারানো বেশ কষ্টসাধ্য ছিল বটে। তাঁকে রুখতে তাই ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ব্রাংকো উঠেপড়েই লেগেছিলেন। ম্যারাডোনা তাই আঁটলেন অন্যরকম কৌশল। খেলার বিরতিতে আর্জেন্টাইন এক স্টাফের কাছে পানির বোতল চাইলেন ব্রাংকো।Untitled-1 ব্যস, তাতেই বাধিয়ে দেওয়া হলো বিপত্তি। ম্যারাডোনা স্টাফকে বুঝিয়ে-শুনিয়ে বোতলের পানিতে কিছু ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে তা ব্রাংকোর হাতে তুলে দিয়েছিলেন। ব্রাংকোও বিরতির পর মাঠে নামলেন টলমলে পায়ে। ম্যারাডোনা সুযোগ বুঝে তখন মাঠে উড়ে চলেছেন বাজপাখির মতো। ম্যাচের একমাত্র গোলটিও এসেছিল তার মিনিট দশেক পরেই। ম্যারাডোনার পাস থেকে বল জালে জড়ানোর কাজটি করেন ক্যানিজিয়া। ম্যারাডোনা অনেক বছর পর অভিযোগ স্বীকার করলেও তত্কালীন আর্জেন্টাইন কোচ কার্লোস বিলার্দো কিংবা আর্জেন্টাইন ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন কেউই এমন কিছু ঘটেছিল বলে স্বীকার করেননি কোনোদিন।

সব বিতর্ক পেরিয়ে বিশ্বকাপে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ যে নিখাদ ফুটবলীয় বিনোদনের সেরা মাধ্যম, তা নিয়ে নিশ্চয়ই কোনো বিতর্ক নেই। সব ধরনের ম্যাচ মিলিয়ে আর্জেন্টিনা এগিয়ে থাকলেও বিশ্বকাপের জয়-পরাজয়ের পরিসংখ্যানে এগিয়ে থাকবে ব্রাজিলই। যদিও ফুটবল মাঠে পরিসংখ্যানের স্থান নেই। কে জানে, এবারই হয়তো ঘুচতে পারে আরও একবার বিশ্বকাপের মঞ্চে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দীর দ্বৈরথ দেখার অপেক্ষা। ম্যাচের ফলাফল যা-ই হোক, বিশ্বব্যাপী ফুটবল ভক্তদের জন্য তা নিশ্চয়ই হবে দারুণ এক উপহার।

বিশ্বকাপ ফাইনালটা এই দুই দলের হলে তো সোনায় সোহাগা!