শুক্রবার, ২১শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৭ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট আসছে আজ

budgetআজ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত প্রস্তাব করতে যাচ্ছেন দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট। আজকের এ প্রস্তাবের মাধ্যমে সাবেক অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের সাথে বর্তমান অর্থমন্ত্রী যৌথভাবে দেশের সর্বোচ্চ সংখ্যকবার বাজেট প্রস্তাবকারী অর্থমন্ত্রী হতে চলেছেন।

(২০১৪-১৫) অর্থবছরের জন্য আড়াই লাখ কোটি টাকার বড় বাজেট চূড়ান্ত করেছে এবার অর্থ মন্ত্রণালয়। এ বাজেটে সব মিলে আয় ধরা হয়েছে ১ লাখ ৮২ হাজার ৫৩০ কোটি টাকা। ব্যয়ের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৫০ হাজার ৩০৩ কোটি টাকা। ঘাটতি রাখা হয়েছে ৬৭ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) নিয়ন্ত্রিত কর থেকে প্রাপ্তি ধরা হয়েছে ১ লাখ ৪৯ হাজার ৭২০ কোটি টাকা। এনবিআর-বহির্ভূত খাত থেকে আসবে ৫ হাজার ১৪০ কোটি টাকা। এছাড়া করবহির্ভূত খাত থেকে রাজস্ব আয় ধরা হয়েছে ২৭ হাজার ৬৬০ কোটি টাকা। আর বিদেশী ঋণ ও অনুদান নির্ধারণ করা হয়েছে ২৭ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।

বিশেষজ্ঞদের মতে, বাজেটের আকার বড় হওয়ায় তা বাস্তবায়ন সরকারের জন্য কঠিন হবে। সরকার রাজস্ব প্রাপ্তির যেসব লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছে, তা অবাস্তব। এনবিআর নিয়ন্ত্রিত কর, এনবিআর-বহির্ভূত কর, বিদেশী ঋণ ও অনুদানের যে লক্ষ্য ধরা হয়েছে, তা পূরণ করা কঠিন হবে। এনবিআর নিয়ন্ত্রিত কর ১ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকার বেশি আহরণ হবে না। অন্যান্য খাত থেকে প্রাপ্তিও গত বছরের চেয়ে খুব একটা বেশি হবে না।

এ পরিস্থিতিতে সরকারকে বাজেট বাস্তবায়ন করতে হলে অভ্যন্তরীণ উত্স থেকে অতিরিক্ত ঋণ নিতে হবে। এর চাপ পড়বে মূল্যস্ফীতিতে। তাছাড়া অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগেও এটি নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। সরকার এ ঝুঁকি না নিলে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপির) আকার কাটছাঁট করে বাজেট সংশোধনের প্রয়োজন হবে।

এদিকে কয়েক মাস ধরেই উন্নয়ন সহযোগী সংস্থাগুলোর কাছে বাজেটসহায়তা পেতে চেষ্টা চালানো হচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে গত ১১-১৩ এপ্রিল ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত স্প্রিং মিটিংয়ে বিশ্বব্যাংকের কাছে ৪ হাজার কোটি টাকা বাজেটসহায়তা চায় সরকার। সংস্থাটিও এতে ইতিবাচক সাড়া দেয়। তবে বাজেটসহায়তার খাত নিয়ে জটিলতার কারণে সে অর্থ পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। বিশ্বব্যাংক চায় বিদ্যুৎ খাতে সংস্কার ও স্বচ্ছতার শর্তে বাজেটসহায়তা। অন্যদিকে অর্থ মন্ত্রণালয় তথ্যপ্রযুক্তি বা সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচিতে সহযোগিতা করার প্রস্তাব দিয়েছে। বিষয়টি সমাধান না হওয়ায় অর্থ পাওয়া নিয়ে অনিশ্চয়তা কাটেনি। এ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের ভাইস প্রেসিডেন্ট ফিলিপ লি হায়েরোর সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি) একাধিক বৈঠক করে।

বিদ্যুৎ খাত সংস্কারের শর্তে বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে বাজেটসহায়তা নেয়া হলে সমালোচনার মুখে পড়তে হতে পারে সরকারকে। কারণ শর্ত মানতে গেলে জ্বালানি তেল ও বিদ্যুতের দাম বাড়াতে হবে। সংস্থাটির সর্বশেষ ডেভেলপমেন্ট আপডেটেও বিদ্যুৎ খাতে সংস্কারের দাবি তোলা হয়। এ ধরনের উদ্যোগের ফলে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ করাও কঠিন হয়ে পড়বে। বিশ্বব্যাংকের পরামর্শ অনুযায়ী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করলে সামষ্টিক অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে। এজন্য সরকার সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বা অন্য খাতের আওতায় বাজেটসহায়তা চায়। তবে এখনো এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। ফলে বাজেটসহায়তা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

চলতি অর্থবছর বাজেট ঘাটতি ৫৫ হাজার ৩২ কোটি টাকা। আর আগামী অর্থবছর ঘাটতি ধরা হয়েছে ৬৭ হাজার ৭৭৩ কোটি টাকা। জিডিপির হিসাবে এ ঘাটতি দাঁড়াবে ৫ দশমিক শূন্য ৫ শতাংশ। যদিও চলতি অর্থবছর লক্ষ্য অনুযায়ী রাজস্ব আহরণ না হওয়ায় ১১ হাজার কোটি টাকা কাটছাঁট করে তা নির্ধারণ করা হয় ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা। এটার অর্জন নিয়েও সংশয়ে রয়েছে এনবিআর। চলতি অর্থবছরের প্রথম নয় মাস (জুলাই-মার্চ) পর্যন্ত রাজস্ব আহরণের লক্ষ্য ছিল ৮৬ হাজার ৭০১ কোটি টাকা। এর বিপরীতে প্রাথমিক হিসাবে আহরণ হয়েছে ৭৮ হাজার ৭৩৩ কোটি টাকা। এ হিসাবে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭ হাজার ৯৬৮ কোটি টাকা কম রাজস্ব আহরণ হয়েছে। আয়করে ঘাটতি রয়েছে ৫ হাজার ৫৭৯ কোটি, মূল্য সংযোজন কর বা ভ্যাটে ২ হাজার ১৫১ কোটি ও শুল্কে ২৩৮ কোটি টাকা। ৭ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরে চলতি অর্থবছরের জন্য ২ লাখ ২১ হাজার ৪৭২ কোটি টাকার বাজেট প্রস্তাব করা হয়। এর মধ্যে ১ হাজার ২০০ প্রকল্পের বিপরীতে উন্নয়ন বাজেট ঘোষণা করা হয় ৬৫ হাজার ৮৭২ কোটি টাকার। কিন্তু রাজনৈতিক অস্থিরতার কারণে রাজস্ব আদায়ে বড় ধরনের ঘাটতি লক্ষ্য করা যায়। ফলে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নেও বড় ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে সরকার উন্নয়ন বাজেটে বড় ধরনের সংশোধন আনে। সংশোধিত উন্নয়ন বাজেটের আকার ধরা হয় ৬০ হাজার কোটি টাকা।

তবে প্রস্তাবিত এ বাজেটে থাকছে বিশাল ঘাটতি। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) থাকছে ৮০ হাজার ৩১৫ কোটি টাকা। আগের যেকোনো সময়ের তুলনায় বড় অঙ্কের রাজস্ব আদায়েরও লক্ষ্যমাত্রা থাকছে নতুন বাজেটে। বাজেট প্রণয়নপ্রক্রিয়ার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে জানা যায়, রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা কমানোর জোরালো আবেদন ছিল এনবিআরের। কিন্তু অর্থমন্ত্রী নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থেকেছেন। চলতিবারের সংশোধিত লক্ষ্যমাত্রা এক লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকার ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি ধরে এনবিআরের জন্য এক লাখ ৪৯ হাজার কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন তিনি। সূত্র মতে, চলতি অর্থবছরের গত ১১ মাসের সাময়িক হিসাবে প্রায় আট হাজার কোটি টাকার রেকর্ড রাজস্ব ঘাটতিতে রয়েছে এনবিআর। আবার মন্ত্রী-এমপিদের দাবি মেটাতে আগামী অর্থবছরের বাজেটে বড় আকারের এডিপি বাস্তবায়নের অর্থ জোগান দেওয়ার ভারও আছে রাজস্ব আদায়কারী এ সংস্থার ওপর। এমন প্রেক্ষাপটে অর্থমন্ত্রীর চাপিয়ে দেওয়া সিদ্ধান্তে বড় অঙ্কের বোঝা কাঁধে নিয়েই ২০১৪-১৫ অর্থবছরের রাজস্ব আদায়ের কৌশল নির্ধারণ করেছে এনবিআর।

জানা যায়, বিগত বছরগুলোতে পরোক্ষ করনির্ভর রাজস্ব আদায়ের হিসাব কষা হলেও আগামী অর্থবছরে আয়কর আদায়ের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। লক্ষ্যমাত্রার দিক দিয়ে আয়করের পরেই থাকছে মূল্য সংযোজন কর (মূসক)। শুল্ক আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা সবচেয়ে কম ধরা হচ্ছে।

সূত্র মতে, প্রস্তাবিত বাজেটে তৃণমূল পর্যায়েও রাজস্ব জাল বিস্তারের ওপর জোর দেওয়া হচ্ছে। উল্লেখযোগ্যসংখ্যক উপজেলায় নতুন রাজস্ব দপ্তর স্থাপনের ঘোষণা দিয়ে অর্থমন্ত্রী জানাবেন, নতুন করদাতা সংগ্রহে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও পৌঁছাতে হবে এনবিআর কর্মকর্তাদের। উচ্চ রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে রাজস্ব জালের আওতায় আনা হচ্ছে নতুন অনেক খাত। ক্ষেত্রবিশেষে বিদ্যমান কর ও ভ্যাটের হার বাড়ানো হচ্ছে। চলতিবারের ধারাবাহিকতায় আগামী অর্থবছরেও সমন্বয় হচ্ছে শুল্কহার। আবার সম্পূরক শুল্ক কমানো হচ্ছে অনেক বিলাস সামগ্রী ও ভোগ্যপণ্যে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যে পড়ছে না রাজস্বের থাবা। তাই চাল, ডাল, লবণসহ অনেক অত্যাবশ্যকীয় নিত্যপণ্যের দাম বাড়বে না।

জানা যায়, বিত্তবানদের ওপর আসছে বাজেটে নজরদারি বাড়ানো হচ্ছে। তৃণমূলের রাজস্ব না দেওয়া সম্পদশালীরাও এনবিআরের নজরদারিতে আসবেন। অধিক সম্পদের মালিকদের ওপর অর্থদণ্ড বাড়ছে। চলতি অর্থবছরে দুই স্তরে থাকলেও আসছেবার তা তিন স্তরে নির্ধারণ করা হচ্ছে। ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেটে দুই কোটি টাকা বা তার বেশি কিন্তু ১০ কোটি টাকার নিচে সম্পদের মালিকদের নিয়মিত আয়করের আরো ১০ শতাংশ অতিরিক্ত কর দিতে হবে। ১০ কোটি টাকা বা তার বেশি কিন্তু ১৫ কোটি টাকার কম সম্পদের মালিকদের নিয়মিত আয়করের সঙ্গে ১৫ শতাংশ কর এবং ১৫ কোটি টাকা বা এর বেশি সম্পদের মালিকদের নিয়মিত আয়করের সঙ্গে আরো ২৫ শতাংশ কর পরিশোধের আইন করা হচ্ছে।

গত অর্থবছরে আয়কর আইনে ১৯ ই ধারায় স্থায়ীভাবে অপ্রদর্শিত অর্থ সাদা করার সুযোগ দেওয়া হয়। এ সুযোগ চলতিবারেও আছে। আগামী অর্থবছরেও তা বহাল থাকছে বলে জানা গেছে। সূত্র মতে, সাধারণ করমুক্ত আয়সীমা অপরিবর্তিত থাকলেও নারী, প্রতিবন্ধী ও ৬৫ বছরের বেশি বয়সের ব্যক্তির করমুক্ত আয়সীমা বাড়ছে। আজ বাজেট প্রস্তাবে অর্থমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নতুনভাবে করমুক্ত আয়সীমা ঘোষণা করবেন। আবার করপোরেট করে আসছে সামান্য পরিবর্তন। এ বিষয়ে ব্যবসায়ীদের জোরালো দাবি সত্ত্বেও অর্থমন্ত্রীর অনড় অবস্থানের কারণে এতে বড় মাপের পরিবর্তন আনা হচ্ছে না।

জানা যায়, সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে সঞ্চয়পত্রে মুনাফার ওপর উৎসে কর ছাড় দেওয়া হচ্ছে। ক্ষুদ্রঋণ ব্যবসায় অর্জিত আয়ের ওপর ১ শতাংশ কর আরোপের ঘোষণা দেওয়ার কথা রয়েছে আজ বাজেট বক্তৃতায়।

জানা যায়, সীমিত পরিসরে হলেও বাড়ির মালিকদের বাড়িভাড়া ব্যাংকের মাধ্যমে আদায় বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। আবার নতুন কর আসছে সিম রিপ্লেসমেন্টের ওপর। বিগত দিনের ধারাবাহিকতায় তামাক ও তামাকজাত পণ্যের ওপর বাড়ছে কর। সামাজিক কার্যক্রম উৎসাহিত করতে কর ছাড়ের সুবিধা দেওয়া হবে আগামী অর্থবছরেও। সূত্র মতে, মানবসম্পদ উন্নয়নে গুরুত্ব দিয়ে বাজেটে শ্রমিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ঘোষণা করা হবে নতুন উদ্যোগ। বাজেট প্রস্তাবে উল্লেখ থাকবে, রাজস্বসংক্রান্ত মাসুলের একাংশ যোগ করে সারচার্জ ধার্য করে তা শ্রমিক উন্নয়ন তহবিলে যোগ করা হবে।

জানা যায়, বিনিয়োগে বেসরকারি খাতের অংশগ্রহণ বাড়ানোর চেষ্টা থাকছে বাজেটে। বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী কর অবকাশ সুবিধা বাড়ানো এবং রাজধানীর বাইরে শিল্প স্থাপনে রাজস্ব ছাড় বাড়ানোর কথা উল্লেখ করবেন। অনেক শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে থাকছে শুল্ক ছাড়ের ঘোষণা। কারখানার পরিবেশ উন্নয়নে আন্তর্জাতিক চাপ কমাতে সবুজ শিল্পায়নে উৎসাহিত করার জন্য থাকছে বিভিন্ন পদক্ষেপ। সম্পূর্ণ নতুন ধারণায় আসছে গ্রিন ট্যাক্সের ঘোষণা। তৈরি পোশাক শিল্পের অগ্নিনির্বাপক যন্ত্রপাতি আমদানিতে শুল্ক ছাড়ের কথা উল্লেখ থাকবে। রপ্তানি উৎসাহিত করতে নগদ সহায়তার ওপর কর ৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৩ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব অন্তর্ভুক্তির সম্ভাবনা রয়েছে।

সূত্র মতে, আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থার (আইএমএফ) সুপারিশ মানতে সম্পূরক শুল্ক সমন্বয় এবং ভ্যাট আদায় বাড়ানোর ঘোষণা থাকবে। বাড়ছে ভ্যাটের আওতা। উপজেলা পর্যায়ের ছোট দোকানদারও থাকবেন রাজস্ব জালের আওতায়। বর্তমানে আমদানি, উৎপাদন, ব্যবসায়ী পর্যায়ে এবং সেবার ৩২টি খাতে ভ্যাট আরোপ আছে। পুরনো এসব খাতের সঙ্গে ৫৩৬টি খাতে নতুনভাবে ভ্যাট আসছে। স্থাবর সম্পত্তি, ইজারা, অধিকার, সুবিধা অর্জন, লাইসেন্স পারমিট- এসবের সরবরাহ ও সেবার ওপরও ভ্যাট বাড়ছে। আবার বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত ইংরেজি মাধ্যম স্কুলের ওপরও ভ্যাট বাড়ছে। যেসব পণ্যের ওপর বর্তমানে ৪ থেকে ৬ শতাংশের নিচে ভ্যাট ধার্য রয়েছে, তা পরিবর্তন হয়ে প্রকৃত মূল্যের ওপর ১৫ শতাংশ নির্ধারণের প্রস্তাব থাকছে। তবে বাড়ছে না কুটির শিল্পের টার্নওভার সীমা।

জানা যায়, বিমানে আসা যাত্রীর ব্যাগেজ রুল পরিবর্তনের ঘোষণা থাকছে বাজেটে। এক ভরির বেশি সোনা যাত্রীর মালপত্রের সঙ্গে বিদেশ থেকে আনা হলে তাতে বর্তমানে ১৫০ টাকা শুল্ক ধার্য আছে।

আগামী বাজেট প্রস্তাবে এ শুল্কহার বাড়িয়ে তিন হাজার ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হচ্ছে; যদিও এনবিআরের এ বিষয়ে প্রস্তাব ছিল ৯ হাজার টাকা।

বিদেশি বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের প্রচারে এত দিন কোনো শর্ত না থাকলেও আসছে বাজেট প্রস্তাবে এককালীন সম্প্রচার ফি ২০ কোটি টাকা ধার্য করা হবে।

রাজস্বসংক্রান্ত বাজেট প্রস্তাবে অটোমেশনে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে সবচেয়ে বেশি। অনলাইনে টিআইএন, ভ্যাট পরিশোধ এবং আয়কর রিটার্ন দাখিলের সুযোগ রাখা হচ্ছে। ভ্যাট পরিশোধে ক্রেডিট কার্ডের ব্যবহার এবং শুল্কসংক্রান্ত কাজেও থাকছে আধুনিক সফটওয়্যার ব্যবহারের ঘোষণা।

এদিকে বাজেট উপস্থাপনের পরদিন শুক্রবার বিকেল ৪টায় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বাজেটোত্তর সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে বলেও জানায় সূত্রটি।

তবে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্যে দেশের প্রায় সকল আইসিটি প্রতিষ্ঠান তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ভ্যাট প্রত্যাহারের আবেদন করলেও শেষ পর্যন্ত তা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তবে এই খাতে প্রদেয় কর অবকাশ সুবিধা অব্যাহত থাকবে।

গত ২৮ মে দুপুরে সচিবালয়ে ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৪’-এর উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, সাধারণ গ্রাহকদের জন্য পিক-আওয়ারে ২০ শতাংশ বিদ্যুৎ সরবরাহের নিশ্চয়তা দিতে হবে। তিনি বলেন, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে কর অবকাশ সুবিধা দেয়া হলেও মূসক (ভ্যাট) থেকে অব্যাহতি দেয়া হবে না। এটা সবার জন্যই প্রযোজ্য।’ ‘ভ্যাট একটি ভালো আইন’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘২০১৫ সাল নাগাদ এটা পুরোপুরি কার্যকর হবে এবং ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট দিতে হবে। তিনি বলেন, ২০২১ সালকে সামনে রেখে যে ভিশন তৈরি করা হয়েছিল এতে ২০২১ সালে তথ্যপ্রযুক্তি ও যোগাযোগ খাতকে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। আর এক নম্বরে রাখা হয়েছে বস্ত্র খাতকে (টেক্সটাইল)। এটা কর্মসংস্থানের জন্য সহায়ক।

অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তৃতায় বাজেটের সংক্ষিপ্তসার- বার্ষিক আর্থিক বিবৃতি, সম্পূরক আর্থিক বিবৃতি, মধ্যমেয়াদি সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতি বিবৃতি, ডিজিটাল বাংলাদেশের পথে অগ্রযাত্রা: হালচিত্র ২০১৪, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত উন্নয়ন: সাফল্যের অগ্রযাত্রা, রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা: উন্নয়নের পথে অভিযাত্রা, বাংলাদেশে দারিদ্র্য ও অসমতা: উত্তরণের পথে যাত্রা, পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন ও বিকাশ, জেলাভিত্তিক বাজেট বরাদ্দ ২০১৪-১৫ (সিলেট, খুলনা, চট্টগ্রাম, টাঙ্গাইল, বরিশাল, রাজশাহী ও রংপুর জেলা), জেন্ডার বাজেট প্রতিবেদন, সংযুক্ত তহবিল প্রাপ্তি, অর্থনৈতিক সমীক্ষা, মঞ্জুরি ও বরাদ্দের দাবিসমূহ (অনুন্নয়ন ও উন্নয়ন), মঞ্জুরি ও বরাদ্দের দাবিসমূহ (উন্নয়ন) এবং মধ্যমেয়াদি বাজেট কাঠামো উত্থাপন করা হবে।

একই সঙ্গে পরিকল্পনা কমিশন প্রণীত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি: ২০১৪-১৫ এর একটি দলিল এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ প্রণীত ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহের কার্যাবলী: ২০১৩-১৪ জাতীয় সংসদে পেশ করা হবে।

ওয়েবসাইটে প্রকাশসহ জাতীয় সংসদ থেকে বাজেটের উল্লিখিত সকল তথ্যাদি ও গুরুত্বপূর্ণ দলিল সরবরাহ করা হবে।

অর্থবিভাগ সূত্র জানিয়েছে, বাজেটকে আরও অংশগ্রহণমূলক করার লক্ষ্যে অর্থবিভাগের ওয়েবসাইট www.mof.gov.bd থেকে বাজেটের সকল তথ্যাদি ও গুরুত্বপূর্ণ দলিল যে কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান পাঠ ও ডাউনলোড করতে পারবেন। পাশাপাশি দেশ বা বিদেশ থেকে উক্ত ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফিডব্যাক ফরম পূরণ করে বাজেট সম্পর্কে মতামত ও সুপারিশ প্রেরণ করা যাবে। প্রাপ্ত সকল মতামত ও সুপারিশ বিবেচনা করা হবে। জাতীয় সংসদ কর্তৃক বাজেট অনুমোদনের সময়ে ও পরে তা কার্যকর করা হবে।

ব্যাপকভিত্তিক অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সরকারি ওয়েবসাইট লিংক www.bangladesh.gov.bd, www.nbr-bd.org, www.plancomm.gov.bd, www.imed.gov.bd, www.bdpressinform.org, www.pmo.gov.bd ইত্যাদি ঠিকানায়ও বাজেট সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া যাবে।