বুধবার, ২৮শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিজয়নগরে ১০ কোটি টাকার লিচু বিক্রির সম্ভাবনা

lichoবুধবার ভোরের আলো তখনো ফুটেনি। ঘড়ির কাঁটায় তখন সাড়ে চারটা বাজে। ওই সময়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার ভারত সীমান্ত ঘেঁষা আউলিয়া বাজারের চারদিক থেকে চাষিদেরকে দলবেঁধে মাথায় ও কাঁধে করে লিচুর ঝুড়ি নিয়ে বাজারে আসতে দেখা যায়। 

দূর-দূরান্ত থেকে আসা পাইকাররা আগে থেকেই ওই বাজারে অপেক্ষা করছেন। কিছুক্ষণ পরই ক্রেতা-বিক্রেতার সমন্বয়ে জমে ওঠে বাজারটি। সকাল সাড়ে ছয়টা-সাতটার মধ্যেই শেষ হয়ে যায় বেচাকেনা। প্রকৃতির সবুজ আর লিচুর লাল রঙ মিলে-মিশে ওই এলাকায় এক অন্যরকম সকাল তৈরি করে।

 

মাত্র দুই ঘণ্টার ব্যবধানে বাজারটিতে অর্ধকোটি টাকার লিচু পাইকারি বিক্রি হয়ে থাকে। সে হিসেবে সপ্তাহ তিনেক স্থায়ী এ বাজারটিতে প্রায় ১০ কোটি টাকার লিচু বিক্রির সম্ভাবনা রয়েছে।

বুধবার ভোরে আউলিয়া বাজারে গিয়ে কথা হয় স্থানীয় কয়েকজন লিচু চাষির সঙ্গে। তারা জানান, আউলিয়া বাজারের সঙ্গে রেল, সড়ক ও নৌপথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো। ফলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া, কুমিল্লা, নরসিংদী, ভৈরব, নোয়াখালী, চাঁদপুর, মৌলভীবাজার, সিলেট, হবিগঞ্জ ও রাজধানী ঢাকার ব্যবসায়ীরা লিচু কিনতে আসেন এ বাজারে।

আউলিয়া বাজার থেকে আধা কিলোমিটার দূরে সিলেট-চট্টগ্রাম ও ঢাকা রেলপথের মুকুন্দপুর রেলস্টেশন। তিন কিলোমিটার দূরে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের আখাউড়া-চান্দুরা সড়ক। তাছাড়া বাজারের পাশে রয়েছে তিতাস নদীর একটি খাল। ওইসব পথে ব্যবসায়ীরা সহজেই লিচু পরিবহন করতে পারেন। 



দূর-দূরান্ত থেকে আসা পাইকাররা বাংলানিউজকে জানান, সারাদিন শহরে লিচু বিক্রি করে আবার রাতের ট্রেনে মুকুন্দপুর রেলস্টেশনে এসে অপেক্ষা করেন তারা।

তাদের সঙ্গে আলাপকালে জানা যায়- উপজেলার আউলিয়া বাজার, ভিটিদাউদপুর, কচুয়ামোড়া, পাহাড়পুর, খাটিঙ্গা, মুকুন্দপুর, সেজামুড়া, কালাছড়া, বিষ্ণুপুর, কাঞ্চনপুর, কাশিমপুর, সিঙ্গারবিল, চম্পকনগর, মিরাসানী, কামালমোড়া, নূরপুর, হরষপুর, ধোরানাল ও নোয়াগাঁও এলাকায় রয়েছে প্রায় দুই শতাধিক লিচুর বাগান। 

এসব এলাকার পতিত জমি এবং বাড়ির আঙিনায়ও চাষ করা হয় লিচু। লিচুর ব্যবসা লাভজনক হওয়ায় ওইসব এলাকার লিচু চাষিরা ধানী জমিতেও লিচুর চাষ  করেছেন। লালমাটি অধ্যুষিত এলাকা বলে এখানে দেশীয় পাটনাই ও বোম্বাই উভয় জাতের লিচুর ফলন ভালো হয়।



স্থানীয় লিচু চাষিরা জানান, এ এলাকায় উৎপাদিত লিচু আকারে বড়, দেখতে লালচে আর স্বাদে সুমিষ্ট হওয়ায় সারাদেশে এর চাহিদা বাড়ছে। 

বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, মাত্র দুই ঘণ্টায় এ বাজারে প্রায় অর্ধ কোটি টাকার লিচু বিক্রি হয়। সে হিসেব অনুযায়ি এ মৌসুমে প্রায় ১০ কোটি টাকার লিচু বিক্রির সম্ভাবনার কথা জানালেন তারা। 

তারা আরো জানান, বর্তমানে বাজারে প্রতি হাজার লিচু আড়াই থেকে তিন হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে নিম্নমানের কিছু লিচু হাজার প্রতি দুই হাজার থেকে দুই হাজার দুইশত টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।



ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর থেকে আসা লিচু ব্যবসায়ী হুমায়ূন কবীর বলেন, একসঙ্গে সাত জন পাইকার এসেছি লিচু কিনতে। একেক জন ৩০ হাজার টাকার লিচু কিনে সিএনজি করে নিয়ে যাব শহরের বাজারে।

হবিগঞ্জের মাধবপুর এলাকা থেকে আসা পাইকার মোখলেছ মিয়া বলেন, সবদিক থেকে যোগাযোগ ভালো। ফলে এ বাজার থেকে লিচু কিনে নিয়ে লাভ হয় বেশি। এ এলাকার লিচু সুস্বাদু হওয়ায় বেচাকেনাও জমে ভালো।



আউলিয়া বাজারের পাশের গ্রাম কচুয়ামোড়ার সাইফুল ইসলাম বলেন, এ এলাকার অনেক যুবক আছেন যারা লিচুর বাগান কিনে থাকেন। এ মৌসুমে বাড়তি একটা আয়ের সুযোগ হয় তাদের।

বাজারের ইজারাদার ভিটিদাউদপুর গ্রামের রহিজ মিয়া বলেন, প্রতিদিন প্রায় ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকার লিচু এ বাজারের বেচাকেনা হয়ে থাকে।

স্থানীয় (পাহাড়পুর) ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মইনুদ্দিন চিশতী বলেন, এবার লিচুর ভালো ফলন হয়েছে তাই বাজারও জমে উঠেছে।



বিজয়নগর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান চৌধুরী বলেন, এ বছর উপজেলার প্রায় ২৫০ হেক্টর জমিতে লিচুর চাষ করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে প্রায় ১০ কোটি টাকার লিচু বিক্রি সম্ভাবনা রয়েছে।



 

এ জাতীয় আরও খবর

বিএনপি নেতা টুকুর বক্তব্য শিষ্টাচারবহির্ভূত ও কুরুচিপূর্ণ: জামায়াত

মাথা দিয়ে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিলেন অঞ্জন

ক্যাম্পাসে ফিরেছেন রিভা-রাজিয়া

পরীক্ষার সিরিজে প্রত্যাশিত জয় টাইগারদের

প্রেমিকাকে পেতে স্ত্রীকে বিষ খাইয়ে হত্যা

রাজনৈতিক সহিংসতা ও নির্বাচনী অস্থিতিশীলতা বিনিয়োগকারীদের ভীত করে: পিটার হাস

গৃহবধূকে ধর্ষণের পর হত্যায় ৯ জনের যাবজ্জীবন

নিহত রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহর ১৪ স্বজন কানাডায়

টুকু জনগণের ভাষায় কথা বলতে পারেন না: জামায়াত

‘সাবধানে যাবি, তাড়াতাড়ি আসবি’: মেয়ের সঙ্গে বাবার শেষ কথা

প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা বার্তা লিখবে দেড় কোটি শিক্ষার্থী

মানুষের জন্য চিকিৎসা নেই, বেকারদের জন্য কাজের নিশ্চয়তা নেই : জিএম কাদের