রবিবার, ২৩শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সেই শিক্ষকের বিরুদ্ধে আবারও শিক্ষার্থী পেটানোর অভিযোগ

aniomডেস্ক রিপোর্ট : প্রাইভেট না পড়ায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ের ইংরেজি বিষয়ের সহকারী শিক্ষক হুমায়ুন কবির আবারও ছাত্রদের পিটিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে৷ অভিযোগের ভিত্তিতে উপজেলা প্রশাসন ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে৷ 

কসবা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে থাকাকালীন ২০০৭ সালে ওই শিক্ষক ডাস্টার দিয়ে এক ছাত্রীর মাথা ফাটিয়ে দেন৷ এ ছাড়া আরও অনেক শিক্ষার্থীকে তিনি মারধর করেন৷ এ নিয়ে প্রথম আলোতে প্রতিবেদনও প্রকাশিত হয়৷ পরে উপজেলা প্রশাসন তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় তাঁকে চাঁদপুরের হাইমচর সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে বদলি করে দেয়৷ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর তৎকালীন সাংসদ মোহাম্মদ শাহআলম ডিও লেটার দিয়ে তাঁকে কসবা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে বদিল করিয়ে আনেন৷

ওই বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, বিদ্যালয়ে যোগদান করার পর থেকে হুমায়ুন কবির সরকার তাঁর কাছে প্রাইভেট না পড়া ছাত্রদের মারধর করে আসছেন৷ সম্প্রতি দশম শ্রেণির ছাত্র এনামুল হককে তিনি লাথি মারেন৷ এতে এনামুল জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন৷ এ ছাড়া হুমায়ুন কবির অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ইসমাইলের নাকে ঘুষি মেরে তাকে রক্তাক্ত করে ফেলেন৷ একই শ্রেণির ছাত্র সফিউল্লাহকেও তিনি ঘুিষ মেরে আহত করেন৷ এভাবে তিনি আরও কয়েকজন ছাত্রকে কিল-ঘুষি ও লাথি মেরে আহত করেন৷ 

এসব ঘটনার পর শিক্ষার্থীরা ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ডাকযোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও), জেলা প্রশাসক এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে লিখিত অভিযোগ পাঠায়৷ ইউএনও বিষয়টি তদন্ত করার জন্য উপজেলা সহকারী কমিশনারকে (ভূমি) নির্দেশ দেন৷ তবে অভিযোগ অস্বীকার করে হুমায়ুন কবির সরকার বলেন, ষড়যন্ত্র করে তাঁর বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আনা হয়েছে৷

গতকাল উপজেলা সহকারী কমিশনার মো. সোহেল আহমেদ বলেন, অভিযুক্ত এবং অভিযোগকারীর বক্তব্য সংগ্রহ করা হয়েছে৷ প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য নেওয়ার জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে৷