সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ফরমালিনের বিষাক্ত ছোবলে দিশেহারা জনগণ

formalinজহির রায়হান: ব্রাহ্মণবাড়িয়া শহর বা গ্রামের বাজারগুলোতে চলছে পণ্য ব্যাবসার নামে মরণ ব্যাবসা। গ্রীষ্মকালীন ফলের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায়  এবং ফলগুলোকে সতেজ রেখে ক্রেতাদেরকে আরো আকর্ষিত করার জন্য বিক্রেতারা প্রতিটি ফলে  (কার্বাইড) এক ধরনের রাসায়নিক উপাদান ব্যাবহার করে সাধারণ মানুষদের প্রতারিত করছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব ফল খেয়ে কোমলমতি শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধরা পর্যন্ত  বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ছে বলে জানা যায়।
ফরমালিন কি  ?
ফরমালডিহাইড বা মিথ্যানাল (গবঃযধহধষ) গ্যাসের ৪০% জলীয় দ্রবনকে ফরমালিন বলা হয়। ফরমালিন একটি কার্যকরী জীবানুনাশক ৩০ শতাংশ ফরমালিন (ঈযবসরপধষ রহঃবৎসবফরধষব) যেমন: ফেন্টারাইলথ্রিটল, হেক্সমিথাইল ইনটিট্রিমইন, বিউটানিডিয়ল ইত্যাদি তৈরিতে ব্যাবহৃত হয়। যা দ্বারা অন্যান্য বানিজ্যিক রাসায়নিক পদার্থ তৈরি হয়।

দেশের এই অসৎ ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন অনৈতীক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে শুধু জরিমানা আদায় করে ও এই অসৎ ব্যবসায়ী আমল পরিবর্তন হবার নয়। তাদের বিরুদ্ধে কারাদ-সহ দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া প্রয়োজন।
বস্তুত মাছ, ফলমূল , সবজিসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার করা হচ্ছে দেদারছে।
এতে ক্যান্সার ও কিডনি বিকলসহ জটিল সব রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন সাধারণ ক্রেতারা। কাজেই এ ব্যাপারে জেলার সংশ্লিষ্ট প্রশাসানকে ও সরকারের নির্বিকার থাকার সুযোগ নেই। জেলা ও উপজেলার বাজারগুলো মাঝে মাঝে অভিযান চালিয়ে বা প্রতিটি উপজেলায় কোনো বাজারকে ‘ফরমালিনমুক্ত’ ঘোষণা দিয়ে ফরমালিনের অপব্যবহার থেকে ব্যবসায়ীদের নিবৃত্ত করা যাবে না। জেলা সাধারণ ক্রেতাদের দাবী ভ্রাম্যমান  আদালতের অভিযান চালাতে হবে নিয়মিতিভাবে এবং দোষীদের দিতে হবে কঠোর শাস্তি। জেলার জনস্বাস্থ্যের সঙ্গে সম্পর্কিত এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অপরাধীদের শাস্তি শুধু জরিমানা হতে পারে না। অনেক দেশে এ ধরণের অপরাধে অত্যন্ত কঠোর শাস্তির আইন ও বিধান রয়েছে। আমাদের দেশেও কিন্তু সেসবের প্রয়োগ নেই বললেই চলে। সরকারকে এসব আইনের প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। কঠোর শাস্তির কিছু দৃষ্টান্ত তৈরি হলে ব্যবসায়ীরা এ ব্যাপারে সতর্ক হয়ে যাবে।
বর্তমানে মধুমাস জ্যৈষ্ঠে বাজারে উঠেছে নানা ধরণের ফল। আম , লিচু , জাম , কাঠালসহ দেশী ফলের সমাহার ঘটেছে বাজারে। কিন্তু বিভিন্ন সময়  ভ্রাম্যমান আদালতের  পরীক্ষায় দেখা যায়, এসব ফলের সিংহভাগেই কার্বাইড , ফরমালিনসহ বিভিন্ন ক্ষতিকর রাসায়নিক দ্রব্য মেশানো হয়।  ফল দ্রুত পাকাতে এবং দ্রুত পঁচন রোধে এসব মিশিয়ে বিক্রি করে ব্যবসায়ীরা। এ দিকে সরকার ও সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কঠোর দৃষ্টি প্রয়োজন বলে মনে করছেন ক্রেতা সাধারণ।
এ ব্যাপারে জেলা মৎস কর্মকর্তা মো: নুরুল ইসলাম বলেন, শহর এবং গ্রামের বাজারগুলোকে ফরমালিনমুক্ত বাজার গঠনে প্রত্যেক উপজেলায় প্রশিক্ষন এবং উদ্ভুদ্ধ করণ সভা চলছে। তিনি আরো বলেন, বিভিন্ন পরিক্ষা শেষে নিশ্চিত যে, মাছে কোন ফরমালিন নেই। তাছাড়া কিছুদিন আগে আনন্দ বাজারের খালপাড়ে ফলের আড়তে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে এক ফল ব্যাবসায়ীকে ১০.০০০ টাকা জরিমানা করা হয়। এছাড়া প্রতি সপ্তাহে ২/৩ দিন মোবাইল কোর্ট অব্যাহত রয়েছে।
এ ব্যাপারে জেলা সিভিল সার্জন ডা: নারায়র চন্দ্র দাস বলেন, রাসায়নিক পদার্থ সনাক্ত করণের জন্য একটি কিড ব্যাবহৃত হয়। মোট ৩১ টি কিড আছে। এ ব্যাপারে এখনও সকল তদন্ত কর্মকতাদের নিরাপদ খাদ্যের উপর প্রশিক্ষন চলছে।
এ ব্যাপারে (এন.ডি.সি) মোহাম্মদ নাজমুল আহসান বলেন, ফরমালিন বিরোধী আন্দোলনে আমাদের ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান চলমান আছে এবং চলবে।
ফলের এই মৌসুমে ভ্রাম্যমান আদালত   সারা দেশের ফলের আড়ৎ, বাজার ও দোকানগুলোতে নিয়মিত অভিযান চালাবে, এটাই সাধারণ মানুষের কাম্য।