বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রেমের ফসল কাঞ্চনমালা

kanchanmalaডেস্ক রির্পোট : সবেমাত্র পঞ্চম শ্রেণি পাশ করে হাইস্কুলে ভর্তি হয় গরিব ঘরের মেয়ে স্মৃতি। তখনই নজর পড়ে কলেজ পড়–য়া বখাটে মিলনের। তারা একে অপরের প্রতিবেশী। এক সময় তাদের সম্পর্ক তৈরি হয়। ঘনিষ্টতা বাড়ে। যথারীতি বিয়ের প্রলোভনে তাদের চলে অবৈধ মেলামেশা । এরই মাঝে স্মৃতির গর্ভে চলে আসে মিলনের প্রেমের ফসল। বিষয়টি তখন জানাজানি হয়ে যায়। ঘটনাটি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সদর উপজেলার মৈন্দ গ্রামের।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায় , মৈন্দ গ্রামের আব্দুল বাছিরের ছেলে মোঃ মিলন মিয়া (২২) প্রতিবেশী মোঃ আক্তার হোসেনের মেয়ে স্মৃতি আক্তারকে(১২) স্কুলে আসা যাওয়ার সময় উত্যক্ত করত। স্কুলে আসাযাওয়ার পথে প্রেম নিবেদন থেকে শুরু করে বিভিন্ন কায়দায় ভয়ভীতি দেখাত। মিলনের এরকম অশালিন আচরণের বিষয়টি স্মৃতি তার বাবা মোঃ আক্তার হোসেনকে জানালে তিনি মিলনের অভিভাবককে অবহিত করেন। নালিশ জানানোর পর মিলন আরো বেপরোয়া হয়ে বিয়ে করার প্রলোভন ও ভয় দেখিয়ে স্মৃতির সাথে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে। এক পর্যায়ে স্মৃতি অর্ন্তস্বত্তা হয়ে পড়লে বিয়ের জন্য চাপ দেয় মিলনকে। মিলন তখন তার সম্পর্ককে অস্বীকার করে স্মৃতিকে হুমকি দেয় এ ঘটনাটি আর কাউকে বললে মেরে ফেলা হবে। স্মৃতির মাথায় আকাশ ভেংগে পড়ে। অনাগত সন্তানের ভাবনায় যেন অন্ধ হয়ে যায় সে। সেই সাথে বন্ধ হয়ে যায় স্কুলের পড়ালেখা এবং রচনা হয় সম্ভাবনাময় একটি স্বপ্নের সমাধি। ধর্ষিতার পিতা এ বিষয়ে এলাকার সাহেব সরদারদের কাছে গিয়ে তাদের মধস্থতায় সামাজিক নিষ্পত্তির আবদার করে। এলাকার সমাজপতিরা কয়েকবার ঘটনার সমাধানের উদ্যোগ নিলে মানতে রাজি হয়নি মিলন ও তার পরিবার। এভাবে অনেক সময় অতিক্রান্ত হয়। শেষ পর্যন্ত মিলনের পরিবার থেকে কোন আশানুরুপ সারা না পেয়ে বাধ্য হয়ে স্মৃতির বাবা মিলনসহ ৪জনকে আসামী করে সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০এর সংশোধনী ০৩ এর ৯/১ ধারায় ধর্ষন মামলা নং ৬৬ তারিখ ১৬.৯.১৩ দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে গোপনীয় তদন্তে সাক্ষি প্রমাণে আসামী মিলন মিয়ার বিরুদ্ধে প্রাথমিক ভাবে অপরাধ প্রমাণিত হলে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশে মিলন ও তার বাবা আব্দুল বাছির ও মা জোসনা বেগম জেল খাটে। জেল থেকে জামিনে বের হয়ে উল্টো হয়রানি করার জন্য আসামী মিলনের ভাই হালিমকে বাদি করিয়ে স্মৃতি আক্তারের পরিবারের ১০জনকে আসামী করে অগ্নি কান্ডের একটি মামলা দায়ের করে। পাশাপাশি স্মৃতি পরিবারের করা মামলাটি তুলে নেয়ার হুমকি দিতে থাকে।

স্মৃতির পরিবার সূত্রে জানা যায়, শালিস থেকে শুরু করে মামলার প্রক্রিয়ার এ দীর্ঘ ও পরিণত সময়ের মধ্যে ধর্ষিতা স্মৃতির একটি মেয়ে সন্তান প্রসব করে। নব জাতকের নাম রাখা হয় কাঞ্চনমালা। বিষয়টি সমাজের সকলের নজরে আসলেও অবুঝ ও নিষ্পাপ এ শিশুটি কী অপরাধে সে পিতৃ পরিচয় পাবে না – এ প্রশ্ন ধর্ষিতা স্মৃতিসহ সহমর্মীদের সকলের। এদিকে পিতৃ পরিচয়ের বদলে মিলনের ক্ষমতাবান পিতার করা মামলায় এখন ঘর ছাড়া স্মৃতি ও তার পরিবার।

http://probashitime.com/

এ জাতীয় আরও খবর