শনিবার, ২রা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

৯৮ ভাগ খাদ্যপণ্যই ভেজাল

khaddo-300x165ডেস্ক রিপোর্ট : দেশের বাজারে বাজারজাত হওয়া খাদ্যসামগ্রীর প্রায় সবই কোনো না কোনোভাবে ভেজাল। আর এ ভেজাল খাদ্য খেয়ে দূরারোগ্য মরণব্যধিতে আক্রান্ত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। মহাখালী পাবলিক হেলথ ইনস্টিটিউটের খাদ্য পরীক্ষাগারের তথ্যানুযায়ী, দেশের ৫৪ ভাগ খাদ্যপণ্য ভেজাল ও দেহের জন্য মারাক্তক ক্ষতিকর। সারাদেশ থেকে স্যানেটারি ইন্সপেক্টরদের পাঠানো খাদ্যদ্রব্যাদি পরীক্ষাকালে এ তথ্য পাওয়া যায়। ঢাকা সিটি করপোরেশনের (ডিসিসি) খাদ্য পরীক্ষাগারে পাওয়া তথ্য আরও ভয়ংকর। ডিসিসির স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যানুযায়ী রাজধানীতে বাজারজাত হওয়া খাদ্যপণ্যের অন্তত ৭৯ ভাগই ভেজাল!
আবার মোবাইল কোর্ট ও খাদ্য পরীক্ষাগারের তথ্যানুযায়ী বাজারজাত করা খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে ভেজাল নেই, এমন খাদ্যসামগ্রী পাওয়া কষ্টকর। বাজারজাত করা ৯৮ ভাগ খাদ্যসামগ্রী ভেজাল ও বিষাক্ত কেমিকেল সংমিশ্রণে তৈরি বলে কর্মকর্তারা তথ্য-প্রমাণ পেয়েছেন।
 জেল-জরিমানা করেও ভেজাল ও বিষাক্ত খাদ্যসামগ্রীর আগ্রাসন রোধ করা যাচ্ছে না বলে মোবাইল কোর্ট সূত্রে জানানো হয়। দুধ ও মাছে লাশ সংরক্ষণ করার ফরমালিন, ফল পাকানো হয় বিষাক্ত কেমিকেল দিয়ে। বেশিরভাগ সয়াবিন তেল তৈরি হচ্ছে সাবান তৈরির পামঅয়েল দিয়ে, বেকারি ও মিষ্টিতে ব্যবহার করা হচ্ছে বিষাক্ত রং।
 চানাচুর ও জিলাপি ভাজা হয় পোড়া মবিল দিয়ে, মুড়ি ভাজা হয় ইউরিয়া সার দিয়ে। মরা মুরগী দিয়ে তৈরি করা স্যুপ ও নানা ধরনের ফলে কেমিকেল স্প্রে করে দেওয়া হয়, যা মাসের পর মাস থাকলেও পচন ধরে না। মোবাইল কোর্ট অভিযানে এ ধরনের বিষাক্ত কেমিকেল ও রং সংমিশ্রণের প্রমাণ পায়।
 পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের এক গবেষণা সূত্রে জানা যায়, শুধু ভেজাল খাদ্য গ্রহণের ফলে দেশে প্রতি বছর প্রায় তিন লাখ লোক ক্যান্সারে আক্রান্ত হচ্ছেন। ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখ, কিডনি রোগে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ। এছাড়া গর্ভবতী মায়ের শারীরিক জটিলতাসহ গর্ভজাত বিকলাঙ্গ শিশুর সংখ্যা প্রায় ১৫ লাখ।
 এদিকে ক্রেতারা বাজার থেকে উচ্চমূল্যে খাবার কিনলেও তা খেয়ে আদৌ সুস্থ থাকবেন কি-না এ নিয়ে শঙ্কায় আছেন। বাজারে বিক্রি হওয়া মাছ, মাংস, দুধ, ফল, খাবার মসলা, সবজি, শিশুখাদ্য, প্যাকেট ও মিষ্টিজাত খাবার, কোমলপানীয়, আচারসহ প্রায় সব ধরনের খাবারেই এখন ভেজাল। ভেজালের ভিড়ে আসল পণ্যই হারিয়ে গেছে।
 লাভের আশায় কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী ও ভেজাল খাবার তৈরির সিন্ডিকেট দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিচ্ছে খাওয়ার অনুপযোগী ও অস্বাস্থ্যকর সব ভেজাল খাবার। এর মধ্যে ব্যবহৃত হচ্ছে বিষাক্ত ফরমালিন, কেমিকেল, রং, সোডা, স্যাকারিন, মোম, ট্যালকম পাউডার, যানবাহনে ব্যবহৃত মবিল ইত্যাদি।
 অনুসন্ধানে জানা যায়, বিষাক্ত ফরমালিন, যা মানবদেহে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী রাসায়নিক হিসেবে চিহ্নিত, তা বাজারের অধিকাংশ খাদ্যে ব্যবহৃত হচ্ছে। কয়েক বছর ধরেই সংরক্ষণের জন্য বিক্রেতারা কাঁচা মাছে ফরমালিন ব্যবহার করছেন।
 এছাড়া আম, কলা, খেজুর, পেঁপে, আনারস, মাল্টা, আপেল, আঙ্গুর এসব ফলেও ব্যবহৃত হচ্ছে ফরমালিন। শুধু মাছ ও ফলেই নয়, এখন ফরমালিন মেশানো হচ্ছে দুধেও। ফরমালিন খাদ্যে পরিপাক বাধাগ্রস্ত ও চোখের কর্নিয়ার ক্ষতি করে। এতে লিভারের এনজাইম নষ্ট ও কিডনির কোষ নেফ্রন ধ্বংস হয়।
 অসাধু ব্যবসায়ীরা লাভের আশায় সঠিক ও বিশুদ্ধ খাদ্য উপাদানের পরিবর্তে শিশুখাদ্যে ব্যবহার করছেন বিষাক্ত কেমিকেল ও পচা ফল। এ তালিকায় রয়েছে নিম্নমানে রং, সোডা, স্যাকারিন, মোম, আটা-ময়দা, সুগন্ধি, ট্যালকম পাউডার, পচা বরই, তেঁতুল, আম, আমড়া, ঘন চিনি ইত্যাদি।
 ভালো কোম্পানির মোড়ক দেখে প্রতারিত হচ্ছেন অভিভাবকরাও। সন্তানের আবদার মেটাতে তারা অজান্তে কিনে দিচ্ছেন ভেজাল আইসক্রিম, জুস, চকোলেট ও আচারসহ বিভিন্ন শিশুখাদ্য। অধিক মুনাফার জন্য একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী মসলায় কাপড়ের বিষাক্ত রং, দুর্গন্ধযুক্ত পটকা মরিচের গুঁড়া (নিম্নমানের মরিচ), ধানের তুষ, ইট ও কাঠের গুঁড়া, মোটর ডাল ও সুজি ইত্যাদি মেশাচ্ছেন।
 বিশেষজ্ঞদের মতে, ভেজাল মসলা কিনে ক্রেতারা শুধু প্রতারিতই হচ্ছেন না, এতে তৈরি হচ্ছে মারাক্তক স্বাস্থ্যঝুঁকি। কারণ ভেজাল মসলায় মেশানো ক্ষতিকর খাদ্যদ্রব্য ক্যান্সার, কিডনি ও লিভারের রোগ সৃষ্টির জন্য দায়ী।অনুসন্ধানে জানা যায়, ভেজাল মসলা উৎপাদনকারীরা গুঁড়া মরিচের সঙ্গে মেশাচ্ছেন ইটের গুঁড়া। হলুদে দেওয়া হচ্ছে মোটর ডাল, ধনিয়ায় স’মিলের কাঠের গুঁড়া আর পোস্তাদানায় সুজি। মসলার রং আকর্ষণীয় করতে মেশানো হচ্ছে বিশেষ ধরনের কেমিকেল রং।রাজধানীর শ্যামবাজার, কারওয়ানবাজার, মৌলভীবাজার, টঙ্গী ও মিরপুর এলাকার বিভিন্ন পাইকারি মসলার বাজার এবং ভাঙানোর কারখানায় এসব ভেজাল মেশানো হচ্ছে। তবে হোটেল-রেস্তোরাঁয় ভেজাল মসলা মেশানোর হার বেশি।
 জানা যায়, মসলায় ব্যবহৃত কাপড়ের রং শরীরের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এর কারণে ক্যান্সার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। এছাড়া এর মাধ্যমে মানবদেহে হেপাটাইটিস এবং কিডনি ও লিভারের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা থাকে।
 সূত্র জানায়, রাজধানীর কামরাঙ্গীরচর, লালবাগ, চকবাজার, কেরানীগঞ্জ ও শনির আখড়াসহ বিভিন্ন এলাকায় ভেজাল শিশুখাদ্যের শত শত কারখানা গড়ে উঠেছে। প্রতিদিন এসব কারখানায় কয়েক কোটি টাকার ভেজাল খাদ্য বিক্রি করা হচ্ছে।
অন্যদিকে রাজধানীর শনির আখড়া, কামরাঙ্গীরচর, কেরানীগঞ্জসহ পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় রয়েছে ভেজাল আইসক্রিম তৈরির অসংখ্য কারখানা।
 এছাড়া বড় বড় খাদ্যপণ্য তৈরির প্রতিষ্ঠানগুলোও নিয়মিত তৈরি করছে মানহীন পণ্যসামগ্রী। এসব পণ্য দেশের খোলা বাজার থেকে শুরু করে সব সুপারশপেই বিক্রি হচ্ছে। এনিয়ে প্রশাসনের কোনো তৎপরতা নেই। বানি

এ জাতীয় আরও খবর

ঈদের আগে ফ্রিজ পরিষ্কারের দারুণ কিছু টিপস

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ২২

পদ্মা সেতু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় দৌলতদিয়ার ১৪০০ হকার

বাসার নিচতলায় হাঁটুপানি, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু

‘সোনার চর’ দিয়ে কাজে ফিরলেন মৌসুমী

কিশোরীকে ‘আই লাভ ইউ’ বলায় যুবকের কারাদণ্ড

কোক স্টুডিও বাংলায় গান গাইবেন ওস্তাদ রশিদ খান

সেই জিতুকে স্কুল থেকে আজীবন বহিষ্কার

জাতির কাছে নূপুর শর্মার ক্ষমা চাওয়া উচিত : ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

যাত্রীর চাপে এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায় বাড়ল বুথ

‘আমরা শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারলে আ.লীগ সরকার থাকবে না’

ভাইয়ের জানাজায় অংশ নিতে প্যারোলে মুক্তি পেলেন হাজী সেলিম