বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নবীনগরের ব্যবসায়ী শাহানুর হত্যা ঘটনায় র‌্যাব ১৪ এর ক্যাম্প অধিনায়ক এবং ক্যাম্পের ৯ সদস্য সহ ১১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের,আদেশ ৪জুন

RABআমিরজাদা চৌধুরী: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার  নবীনগরের শাহনূর আলম হত্যা ঘটনায় র‌্যাব-১৪ এর ভৈরব ক্যাম্প কমান্ডার মেজর এ জেড এম সাকিব সিদ্দিক এবং ঐ ক্যাম্পের ৯ জন সদস্যসহ মোট ১১ জনের বিরুদ্ধে জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে অভিযোগ দেয়া হয়েছে। আজ দুপুরে নবীনগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট নাজমুন নাহারের আদালতে অভিযোগ করেন নিহত শাহনুরের ভাই মেহেদী হাসান।নবীনগর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারী রবিউল ইসলাম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।তিনি জানান এ বিষয়ে অধিকতর শুনানী এবং আদেশের জন্যে বিজ্ঞ আদালত আগামী ৪ ঠা জুন শুনানীর দিন  ধার্য্য করেছেন। 

মামলাটির এজাহারে র‌্যাব-১৪ এর ভৈরব ক্যাম্পের সাব ইন্সপেক্টর মো: এনামুল হক এছাড়াও নাম উল্লেখ না করে র‌্যাবের ৭ জন সদস্য এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা বলা হয়েছে। র‌্যাবের ৯ জন ছাড়া নবীনগরের কৃষ্ণনগরের মৃত মন্তাজ মিয়ার ছেলে নজরুল ইসলাম (৫৮) ও নবীনগরের মৃত শরাফত আলীর ছেলে আবু তাহের মিয়া (৪৫) কে এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।
মামলার বাদী মেহেদী হাসান তার আর্জিতে বলেছেন, বাদীর ভাই আসানুর আলমকে ইটালি নেয়ার জন্যে গৃহিত ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা লেনদেনের ঘটনার জের ধরে মামলার ২ নম্বর আসামী নজরুল ইসলাম ৩ নম্বর আসামী আবু তাহের যোগসাজসে র‌্যাবের ভৈরব ক্যাম্পের কর্মকর্তাদের প্রভাবিত করে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছেন।  গত ২৯ শে এপ্রিল শাহনূরকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। ঐ দিন ভৈরব ক্যাম্পে নিয়ে তাকে নির্যাতন করে গুরুতর জখম করে পরদিন সকালে তাকে নবীনগর থানা হাজতে এনে রাখা হয়। ঐদিন আবু তাহেরকে(মামলার ৩ নম্বর আসামী) ডেকে এনে শাহনুর আলমসহ কয়েকজনকে আসামী করে থানায় একটি এজাহার দেয়া হয়। এই মামলায় শাহনুরকে গ্রেফতার দেখিয়ে ১ লা মে আদালতে প্রেরন করা হয়। সেখান থেকে তাকে জেল হাজতে প্রেরনের পর শারিরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে ৪ ঠা মে তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।অবস্থার আরো অবনতি হলে ঐদিনই তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। সেখানে ৬ মে সন্ধ্যায় শাহনুর মারা যান। র‌্যাব সদস্যদের নির্যাতনের বিষয়টি শাহনুর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার পরিবারের সদস্যদের কাছে বর্ননা করে গেছেন বলে আর্জিতে বলা হয়। মামলার এজাহারে আরো বলা হয়, বাদীর পাশের গ্রামের নজরুল ইসলাম(২ নম্বর আসামী) বাদীর ভাই আসানুর আলমকে ইটালি নেয়ার জন্যে ৭ লাখ ২০ হাজার টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে গ্রহন করে। এই টাকা ফেরত না দেয়ায় বাদীর বোন রিতা বেগম নজরুলের বিরুদ্ধে মামলা করেন। এর আগে নজরুলের কাছে পাওনা টাকা দাবী করায় সে বাদী ও তার ভাই আসানুরের বিরুদ্ধে নবীনগর ও ঢাকায় ৩ টি মামলা করেন। নজরুল ইসলামই আবু তাহেরের সাথে যোগসাজসে ভৈরব ক্যাম্পের কর্মকর্তাদের প্রভাবিত করে এই হত্যাকান্ড ঘটায় বলে এজাহারে অভিযোগ করা হয়। 


 

  

এ জাতীয় আরও খবর