বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শহরের সুপার মার্কেটে বিদেশী মুদ্রার রমরমা ব্যবসা।

immmage।।বার্তা কক্ষ।।সরকারি কোন অনুমোদন ছাড়াই প্রশাসনকে ম্যানেজ করে মার্কেটের কয়েকজন ব্যবসায়ী বিভিন্ন ব্যবসার অন্তরালে অবৈধভাবে বিদেশী মুদ্রার ব্যবসা করছেন। ইতিপূর্বে অবৈধ মুদ্রা ব্যবসার অভিযোগে কয়েকজন ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার হলেও জামিনে মুক্ত হয়ে এসে তারা পুনরায় বিদেশী মুদ্রার ব্যবসা করছেন। অভিযোগকারীরা জানান, সুপার মার্কেটের রানা ফার্মেসীর মালিক তপন রায় দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে বিদেশী মুদ্রার ব্যবসা করছেন। এই অভিযোগে তিনি ইতিপূর্বে কয়েকবার পুলিশের কাছে গ্রেপ্তার হয়ে হাজত বাসও করেছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুপার মার্কেটের কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, তপন রায়ের আছে অর্ধশতাধিক এজেন্ট। এরা জেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে ডলার, দিনার, দিহরাম, রিয়াল, ইউরো, পাউন্ড, কেডি, রিংগিত, ইয়েন, রূপী সহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মুদ্রা এনে তপন রায়ের কাছে বিক্রি করে। ওই সব এজেন্টরা বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে ঘুরে খবর রাখেন গ্রাম থেকে কারা বিদেশ যাচ্ছেন ও কারা বিদেশ থেকে আসছেন। কেউ বিদেশ থেকে আসলেই ওই বাড়িতে গিয়ে হাজির হন তারা। ওই লোকের কাছ থেকে বিদেশী মুদ্রা কিনে এনে সুপার মার্কেটের তপন রায়ের কাছে বিক্রি করেন। প্রতিদিন সুপার মার্কেটে প্রায় কোটি টাকার মুদ্রার লেনদেন হচ্ছে। জানা গেছে, বিদেশী মুদ্রা শুধু কেনাই নয়, এখানে বিদেশী মুদ্রা বিক্রিও করা হয়। এদেশ থেকে কেউ বিদেশ গেলে তাদের কাছ থেকে ওই দেশের মুদ্রা কিনে নিয়ে যান। বিশেষ করে হজ্বের মৌসুমে অবৈধ মুদ্রা ব্যবসায়ীদের পোয়া বারো। হজ্ব করতে যাওয়ার আগে অনেকেই এখান থেকে রিয়াল কিনে নিয়ে যান। অভিযোগকারীরা বলেন, ফার্মেসী ব্যবসার অন্তরালে বিদেশী মুদ্রার ব্যবসা হচ্ছে তপন রায়ের মূল ব্যবসা। জানা গেছে, শুধু তপন রায়ই নয়, সুপার মার্কেটে আরো ২/৩ জন ব্যবসায়ী এই অবৈধ ব্যবসা করছেন। অভিযোগকারীরা জানান, অনেক সময় সুপার মার্কেটে বিদেশী মুদ্রা বিক্রি করে অনেকে প্রতারিত হয়েছেন। বিদেশী মুদ্রা বিক্রি করে তড়িগড়ি করে টাকা নিয়ে পরে বান্ডেলে ২/৪টি জাল নোটও পেয়েছেন অনেকে। অভিযোগকারীরা জানান, থানা পুলিশকে ম্যানেজ করেই বছরের পর বছর ধরে ওই সব ব্যবসায়ীরা অবৈধ মুদ্রার ব্যবসা করছেন।