শুক্রবার, ৩০শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সীমান্তে লাশ হস্তান্তর নিয়ে বৈঠক চলছে

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্য মিজানুর রহমানের লাশ হস্তান্তরের বিষয়ে বৈঠক চলছে। লাশটি শনাক্ত হলে বিজিবি তা গ্রহণ করবে। নাইক্ষ্যংছড়ি বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল শফিকুর রহমান বিকেলেপ্রথম আলোকে এ কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘লাশটি নিখোঁজ বিজিবি সদস্য মিজানুর রহমানের বলে শনাক্ত হলে আমরা গ্রহণ করব।’


আজ শনিবার বিকেলে নাইক্ষ্যংছড়ির দোছড়ি ইউনিয়নের পাইনছড়ির ৫২ নম্বর পিলারে লাশ হস্তান্তর বিষয়ে বিজিবি ও মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) মধ্যে  বৈঠকটি শুরু হয়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত বৈঠকটি চলছিল।


আজ সকাল থেকেই মিজানুরের লাশ হস্তান্তরপ্রক্রিয়া নিয়ে এক ধরনের ধোঁয়াশা চলে। বিভিন্ন সময়ে লাশ হস্তান্তর করা হচ্ছে বলে বিজিবি সূত্রে জানা যায়। বেলা আড়াইটার দিকে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু সাফায়াত মো. সায়্যিদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিজিবি সূত্রে জেনেছি, আজ মিজানুরের লাশ হস্তান্তরের কথা ছিল। কিন্তু লাশ হস্তান্তর করা হয়নি।’

এ ব্যাপারে বেলা তিনটার পরে ঢাকায় বিজিবি সদর দপ্তর ও নাইক্ষ্যংছড়িতে বিজিবির কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা এ ব্যাপারে কিছু জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন।

বিজিবির চট্টগ্রাম অঞ্চল ও কক্সবাজার সেক্টর সদর দপ্তরের কর্মকর্তারা জানান, গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি নাইক্ষ্যংছড়ির দোছড়ি ইউনিয়নের পাইনছড়ির ৫২ থেকে ৫৪ নম্বর পিলারের মাঝামাঝি স্থানে বিজিবির কাছে একটি মরদেহ নিয়ে আসার কথা ছিল। ওই মরদেহ বিজিবির নিখোঁজ নায়েক মিজানুর রহমানের বলে শনাক্ত হলে বিজিবি কর্তৃপক্ষের গ্রহণ করার কথা ছিল। এ জন্য বিজিবির সদস্যরা কফিন নিয়ে ওই এলাকায় অবস্থান করছিলেন। কিন্তু বিজিপি কোনো মরদেহ না এনে যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়৷ এরপর হঠাত্ বেলা আড়াইটার দিকে বিজিবি সদস্যদের ওপর গুলি ছুড়তে শুরু করে তারা।

এ জাতীয় আরও খবর