বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১৯শে জানুয়ারির সড়ক দুর্ঘটনা আমাকে এখনো তাড়া করে।

sorok-durghotona_37763আরাফাত আহমেদ : ইংরেজি বছরের শুরুতেই ২০১৪ সালের ১৯শে জানুয়ারি একটি সড়ক দুর্ঘটনায় আমি গুরুত্বর আহত হয়ে দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন ছিলাম।কুমিল্লা সিলেট মহাসড়কের মধ্যপাড়া বাসস্ট্যান্ডে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় এক কলেজ ছাত্রীর। সংবাদ সংগ্রহের জন্য ঘটনাস্থলে যাবার সময় বিপরীত দিক থেকে আসা ট্রাকের পিছন থেকে হঠাৎ একটি ইঞ্জিনচালিত রিক্সা ট্রাকটিকে ওভারটেক করতে গেলে আমার মটরসাইকেলের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। আমার ডান পায়ের তিনটি আংগুলসহ পায়ের পাতা পা হতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। কেউ ভাবেনি আমি আবার নিজের পায়ে দাড়াতে পারব,হাটাচলা করতে পারব। দীর্ঘদিন চিকিৎসাধীন থাকার পর আল্লাহর অশেষ কৃপায় মা-বাবা,স্ত্রী সন্তানের সেবা শস্রুষা ও আপনজনদের ভালবাসায় আমি আবার হাটাচলা করতে পারছি।কিন্তু সেই দুঃসহ সৃতি আমাকে এখনো তাড়া করে।


  প্রতিটি দুর্ঘটনাই দুঃখজনক। কিছু কিছু দুর্ঘটনা একাধিক বা অনেক লোকের একসঙ্গে মৃত্যুর কারন হয়। টেলিভিশনের পর্দায় প্রায় নিত্য সড়ক দুর্ঘটনার ভয়াবহ চিত্র দেখি; এর সঙ্গে পত্রিকা খুললেই প্রতিদিন পাই দুর্ঘটনা বা  দুর্ঘটনাজনিত মৃত্যু সংবাদ।সড়ক দুর্ঘটনা ও তার কারণ নিয়ে আমরা যোগাযোগমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বচসাও দেখেছি। একজন আরেকজনকে দায়ী করেছেন। কেউ বলছেন ট্রাফিক ব্যবস্থা দায়ী, কেউ বলেছেন  রাস্তা দায়ী। ট্রাফিক ব্যবস্থা দায়ী না যোগাযোগ ব্যবস্থা দায়ী? পুলিশ দায়ী না ইঞ্জিনিয়ার দায়ী? জণগণের কাছে এসব মুখ্য নয়। তারা নিরাপদ সড়ক চায়, চায় নিরাপদ বাহন। তারা চান স্বাভাবিক মৃত্যু, দুর্ঘটনার অপমৃত্যু নয়। মোটকথা সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধ করা দরকার। এ দায়িত্ব সরকারের। সরকারকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিরোধে জনসাধারণকে আরো সচেতন হতে হবে।
আমরা জেনেছি, কেবল সড়ক দুর্ঘটনায়ই দেশে গড়ে প্রতিদিন ৩০ জনের প্রাণহানি ঘটছে। এ হিসাবে মাসে ৯শ’ জন এবং বছরে ১০ হাজার ৮ শ জন মারা যাচ্ছে। তবে বিআরটিএ-এর পরিসংখ্যানমতে এ সংখ্যা দিনে ১৬ এবং বছরে ৫ হাজার ৭ শ’ ৬০ জন। আইন না মানাই হচ্ছে সড়ক দুর্ঘটনার মূল কারন। এ ড়্গেেত্র সকলকে আইন মানতে বাধ্য করতে হবে। ট্রাফিক পুলিশসহ চলমান প্রশাসন এ আইন প্রযোগে ব্যর্থ হলে প্রযোজনে তাদেরও ঢেলে সাজাতে হবে অন্যথা দুর্ঘটনা রোধে নতুন করে দুর্ঘটনা রোধে বিশেষ বাহিনী গঠন করতে হবে। দুর্ঘটনার অন্যতম কারন গুলোর মধ্যে (১) ত্রূটিপূর্ন ও চলাচল নিষিদ্ধ যানবাহন চলাচল (২) মোবাইল ফোন ব্যবহার (৩) অতিরিক্ত যাত্রী এবং পণ্য পরিবহন (৪) ট্রাফিক আইন না মান (৫) নিয়োজিতদের দায়িত্বে অবহেলা (৬) চালকদের বেপরোয়া মনোভাব, অদক্ষতা ও অসতর্কতা (৭) অরক্ষিত রেল লাইন। আর এসব কারনে প্রতিদিনই ঘটছে হতাহতের ঘটনা।(৮) মহাসড়কের পাশে গবাদি পশু চড়ানো।(৯)নিয়ম ভেঙে সামনের গাড়িকে ওভারটেক করতে যাওয়া, অদক্ষ ড্রাইভারের হাতে গাড়ি চালানোর দায়িত্ব ছেড়ে দেয়া, ড্রাইভারের অনুপসি'তিতে হেলপারের গাড়ি চালানোর উদ্যোগ গ্রহণ, গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষা না করেই রাসত্মায় গাড়ি নামানো, দুর্ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে শাসিত্মর আওতায় না আনা এবং  সর্বোপরি ট্রাফিক আইন না মানার কারণেই একের পর এক মর্মানিত্মক সড়ক দুর্ঘটনা  ঘটেই চলেছে।যে কোনো মৃত্যুই দুঃখজনক। সে মৃত্যু যদি অকাল ও আকস্মিক হয়, তবে তা মেনে নেয়া আরো কঠিন।  সড়ক দুর্ঘটনা রোধে পরিবহন মালিক ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছ থেকে সমন্বিত আন্তরিক, সচেতন, দৃঢ় ও দায়িত্বশীল ভূমিকা আমরা আশা করি।