রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রযুক্তির অপব্যবহারে তছনছ পরীক্ষা, বিভ্রান্ত শিক্ষার্থীরা

studentআগে প্রশ্ন ফাঁসের উদ্দেশ্যই ছিল বড় অঙ্কের অর্থ হাতিয়ে নেওয়া। কিন্তু গত বছরের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা থেকে শুরু করে জেএসসি এবং এ বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে ভিন্নতা লক্ষ করা গেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে প্রশ্ন এবং এর উত্তরও দিয়ে দেওয়া হচ্ছে একই মাধ্যমে। এভাবে প্রশ্নপত্র ফাঁসের পেছনে আর্থিক লেনদেনের সুযোগ নেই। প্রযুক্তির কল্যাণে ঘরে বসেই বিনা পয়সায় এক শ্রেণির শিক্ষার্থী-অভিভাবক ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহ করছে প্রশ্ন। এসবের কিছু মূল প্রশ্নপত্রের সঙ্গে মিলে যাচ্ছে আবার কিছু মিলছে না। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গুজব ছড়িয়েই বিভ্রান্ত করা হচ্ছে লাখ লাখ শিক্ষার্থীকে।
আর এ ধরনের প্রযুক্তির অপতৎপরতা রোধ করতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সাইবার ক্রাইম সেলের কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। বিটিআরসিকে অবহিত করা হলে তারা ফেসবুকের সংশ্লিষ্ট পেজ বন্ধ করেই দায়িত্ব শেষ করছে।

পাশের দেশ ভারতেও পাবলিক পরীক্ষায় সীমিত আকারে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটে। সেখানে সামাজিক মাধ্যমে প্রশ্নপত্রের নমুনা দেওয়া হলেও গণমাধ্যমে তা ঘটা করে প্রকাশ পায় না। ভারতে প্রশ্ন ফাঁসের কোনো গুজব সৃষ্টি হলেও তারা শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাউন্সেলিংয়ের ব্যবস্থা করে। যাতে শিক্ষার্থীরা কোনো রকম বিভ্রান্তিতে না পড়ে। ত্বরিত পদক্ষেপ নেয় সে দেশের বিচার বিভাগও। ২০১১ সালে উচ্চ মাধ্যমিক

পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় চার ব্যক্তির যাবজ্জীবন কারাদ- হয়েছিল। চলতি বছরের মার্চ মাসে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় ভারতের মনিপুর রাজ্যের ইম্ফলে প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনায় তৎপর হয় দিল্লির হাইকোর্ট।

এর বিপরীতে আমাদের দেশে তেমনটা দেখা যায় না। কর্তৃপক্ষও তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয় না। মামলা করার পর তৎপর হয় পুলিশ প্রশাসন।

বাংলাদেশেও আইন আছে, তবে প্রয়োগ হওয়ার নজির নেই। পাবলিক পরীক্ষাসমূহ (অপরাধ) আইন, ১৯৮০ এবং সংশোধনী ১৯৯২ আইনের আওতায় প্রশ্নপত্র ফাঁস, প্রকাশ বা বিতরণের সঙ্গে জড়িত থাকার শাস্তি ন্যূনতম তিন বছর থেকে সর্বোচ্চ ১০ বছরের কারাদ-সহ অর্থদ-ের বিধান রয়েছে। আইনটি প্রণয়নের পর থেকে বিসিএসসহ বিভিন্ন পরীক্ষায় অন্তত ৬২টি প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটেছে। এসব ফাঁসের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন হয়। কিন্তু এ কমিটিগুলো ফাঁসের উৎস খুঁজে বের করতে বারবারই ব্যর্থ হয়েছে। ফলে সুপারিশেই বন্দি থেকেছে তদন্ত। আর শাস্তি তো দূরের কথা, বারবার এই ব্যর্থতার পরও সরকারের অন্যান্য সংস্থার এ ব্যাপারে তেমন তৎপরতা দেখা যায় না।

অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষাঙ্গনের বিশিষ্টজনরা বলছেন, আগের ঘটনা বা রটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের চিহ্নিত করে শাস্তি নিশ্চিত না করার কারণেই এ ধরনের ঘটনা বারবার ঘটছে। একই সঙ্গে নৈতিক অবক্ষয়ের প্রসঙ্গও তুলে ধরেছেন কেউ কেউ। আর্থিক লাভের উদ্দেশ্য ছাড়াই গণমাধ্যম ও সামাজিক ওয়েবসাইটে প্রশ্নপত্র তুলে ধরার পেছনে অন্য কী উদ্দেশ্য থাকতে পারে, তাও খুঁজে দেখার পরামর্শ দিয়েছেন তাঁরা।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ফাহিমা খাতুন প্রশ্ন ফাঁস ঠেকাতে ব্যর্থতার কথা স্বীকার করে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রশ্নপত্র ফাঁসের পেছনে একটা চক্র কাজ করছে। আমরা চেষ্টা করছি; কিন্তু ব্যর্থ হচ্ছি। এটা আটকাতে পারছি না। ফেসবুকে প্রশ্ন ফাঁস করার পেছনে কোনো আর্থিক ব্যাপার নেই। তাহলে বুঝতে হবে, একটি বিশেষ গোষ্ঠী সরকারকে বিপদে ফেলতেই এ কাজ করছে। তবে সময় এসেছে নতুন করে ভাবার। প্রশ্ন ফাঁস নিয়ে তদন্ত কমিটির রিপোর্ট পাওয়ার পর আমরা পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কারের বিষয় নিয়ে বসব।’

সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ও গণসাক্ষরতা অভিযানের নির্বাহী পরিচালক রাশেদা কে চৌধুরী বলেন, ‘প্রশ্ন ফাঁসের মতো ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। এর পেছনের সিন্ডিকেট খুঁজে বের করতে হবে। দুঃখ হচ্ছে, তদন্ত হচ্ছে কিন্তু তদন্তের পর কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, তা জানা যাচ্ছে না। প্রযুক্তি দিয়েই আমাদের প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধ করতে হবে। অন্যান্য জনবহুল দেশে যেভাবে পরীক্ষা নেওয়া হয় সেটা জেনে পরীক্ষা পদ্ধতি সংস্কারের বিষয়টিও চিন্তা করার সময় এসেছে।’

গত ৩ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এইচএসসি পরীক্ষার প্রায় প্রতিটি বিষয়ের প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ থাকলেও শুধু ইংরেজি দ্বিতীয়পত্রের পরীক্ষা স্থগিত করে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তদন্ত চলাকালেও সক্রিয় রয়েছে প্রশ্ন ফাঁসকারী চক্র। তারা একের পর এক ফেসবুকের মাধ্যমেই ছড়িয়ে দিচ্ছে প্রশ্ন। এইচএসসির গত ২৩ এবং ২৭ এপ্রিলের যথাক্রমে পদার্থবিজ্ঞান প্রথম ও দ্বিতীয় পত্রের প্রশ্নপত্র ফেসবুকের একটি সাইটে পাওয়া যায়। পরীক্ষার পর যার অধিকাংশই মিলে গেছে বলে অভিযোগ রয়েছে। সর্বশেষ গত ২৫ মে অনুষ্ঠিত গণিত (তত্ত্বীয়) প্রথম পত্রের পরীক্ষার প্রশ্ন ও সমাধান আগের দিন থেকেই পাওয়া যায় ফেসবুকের তিনটি পেজে। এরও অধিকাংশ মিলে যায়।

গত বছরের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায় প্রশ্ন ফেসবুকে ছড়িয়ে দেওয়ার ঘটনায় ২০১৩ সালের ২৭ নভেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় একটি মামলা করে। এ ব্যাপারে এখনো তদন্ত চলছে।

ডিএমপির সাইবার ক্রাইম বিভাগের সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘ফেসবুকের যেসব পেজে ফাঁসকৃত প্রশ্ন দেওয়া হয় তাদের আইডি সঠিক থাকে না। আমাদের কাজের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় সমস্যা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সব প্রশাসনিক কাজই হয় দেশের বাইরে থেকে। আমরা কোনো তথ্য চাইলে তারা বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে চুক্তি না থাকায় কোনো তথ্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করে। শুধু পেজ বন্ধ করা ছাড়া আমরা আর কোনো পদক্ষেপ নিতে পারি না। প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়েও আমরা কাজ করছি। তবে উল্লেখযোগ্য কোনো অগ্রগতি অর্জন করতে পারিনি। ফেসবুকের কাছ থেকে তথ্য পাওয়া গেলে অনেক দূর অগ্রসর হওয়া যেত।’

গত ১০ এপ্রিল ঢাকা বোর্ডের ইংরেজি দ্বিতীয় পত্রের পরীক্ষা স্থগিত হওয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সোহরাব হোসাইনকে প্রধান করে আন্তমন্ত্রণালয় তদন্ত কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এই কমিটি প্রশ্ন ফাঁসের প্রমাণ পেলেও কোনো উৎস খুঁজে বের করতে পারেনি। তবে সরকারি গোয়েন্দা সংস্থার মাধ্যমেও প্রশ্নপত্র ফাঁসের উৎস বের করার চেষ্টা চলছে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা যায়। শিগগিরই এ কমিটি তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেবে।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে ঠিক করা সুপারিশের মধ্যে স্থানীয়ভাবে প্রশ্ন ছাপানোর বিষয়ে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এ প্রক্রিয়ায় একটি বিষয়ের জন্য ২০ সেট প্রশ্নপত্র করা এবং তা একটি সিডি বা অন্য কোনো প্রযুক্তির মাধ্যমে একজনের দায়িত্বে রাখা হবে। পরীক্ষার দিন সকালে কোন সেটে পরীক্ষা হবে তা ঠিক করে নির্ধারিত পাসওয়ার্ড জেলা ও উপজেলা প্রশাসন বা কেন্দ্রের দায়িত্বরত ব্যক্তিকে জানিয়ে দেওয়া হবে। সকালেই এ কাজের জন্য নির্ধারিত প্রিন্টারের মাধ্যমে সেটি প্রিন্ট করা হবে। বর্তমানে সৃজনশীলের প্রশ্নপত্র সারা দেশে একই হয় বলে এক জায়গায় প্রশ্ন ফাঁস হলে সারা দেশে তা ছড়িয়ে পড়ে। তাই কমিটি সব বোর্ডে ভিন্ন ভিন্ন প্রশ্ন করার সুপারিশ করবে। প্রশ্নপত্র তৈরির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সরকারি গোয়েন্দাদের মাধ্যমে নিরাপত্তা ছাড়পত্র নেওয়া, প্রশ্নপত্রের প্যাকেটে উন্নত নিরাপত্তা ট্যাগ ব্যবহার, যেখান থেকে প্রশ্ন বিতরণ করা হবে সেখানে ম্যাজিস্ট্রেট রাখাসহ বেশ কিছু সুপারিশ থাকছে।

শিক্ষাবিদ অধ্যাপক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবালের প্রশ্নপত্র ফাঁস নিয়ে সম্প্রতি এক মন্তব্য নিয়ে শিক্ষামন্ত্রীও তাঁর এক কলামে তাঁদের পদক্ষেপের কথা বলেছেন। ড. জাফর ইকবাল বলেছিলেন, ‘সরকার একটা পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের নিরাপত্তা দিতে পারে না! আমি বিশ্বাস করতে রাজি না যে, আন্তরিকভাবে চাইলে পরীক্ষার প্রশ্নপত্রের নিরাপত্তা নিয়ে কোনো সমস্যা হওয়া সম্ভব। একটি সমস্যা না দেখার ভান করলেই কি সমস্যাটা মিটে যায়? সমস্যা মেটাতে চাইলে সেটাকে সবার আগে স্বীকার করতে হয়; দেশের সর্বোচ্চ মহল এই সমস্যাটা স্বীকার করতেই রাজি না, তাহলে সমস্যাটা সমাধান হবে কেমন করে?’

এ প্রসঙ্গে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, ‘ড. জাফর ইকবাল প্রশ্নপত্র ফাঁস সম্পর্কে যে মতামত ব্যক্ত করেছেন, আমি এর চেয়ে কম উদ্বিগ্ন ও ক্ষুব্ধ নই। তিনি লিখে তাঁর ক্ষোভ, উদ্বেগ যেভাবে প্রকাশ করতে পারেন, আমাকে শুধু সেটুকু করলেই চলে না। আমাকে আরো বেশি কিছু করতে হয়। কঠোর সতর্ক থাকা সত্ত্বেও এবারই প্রথম এইচএসসি পরীক্ষায় এমন অচিন্তনীয় ঘটনা ঘটেছে।