সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিএনপির সমাবেশে সরকারের ভয়: খালেদা জিয়া

অবিলম্বে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দেওয়ার দাবি জানিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেন, বেশি দেরি হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাবে। তিনি বলেন, এই সরকার এখন সবচেয়ে বেশি আতঙ্কিত। মানুষ যেমন র্যাবের নাম শুনলে ভয় পায়, তেমনি বিএনপির সমাবেশের নাম শুনলে সরকার ভয় পায়।



আজ শনিবার দুপুরে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের এক প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির ভাষণে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে এ সমাবেশ হচ্ছে।



ফেনীর ফুলগাজী উপজেলার চেয়ারম্যান হত্যার ঘটনায় জয়নাল হাজারী ও নিজাম হাজারীকে গ্রেপ্তার করে রিমান্ডে নেওয়ার দাবি জানান বিএনপির চেয়ারপারসন।



নিজের বিরুদ্ধে চলমান মামলা প্রসঙ্গে খালেদা জিয়া বলেন, ‘আমি বলেছি, আমি জনগণের সঙ্গে আছি। এ জন্য তারা আমার পিছে লেগেছে। আমি এসব পরোয়া করি না। আওয়ামী লীগ নানা ষড়যন্ত্র করছে, যাতে কোনোভাবে আমাকে আটকানো যায়।’ তিনি বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে যে সময়ে চারটি মামলা করা হয়েছিল, ঠিক একই সময় শেখ হাসিনার বিরুদ্ধেও ১৫টি মামলা করা হয়েছিল। ওই মামলাগুলো চালু করার দাবি জানান তিনি।



খালেদা জিয়া বলেন, ‘অনেকেই বলছেন বিএনপি কেন কর্মসূচি দেয় না। আমরা সময়মতো কর্মসূচি দেব। কারণ, এরা (সরকার) জনগণের কাছে পচে গেছে। এদের দুই পয়সার দাম নেই। এরা আরেকটু পচুক, আরেকটু গলুক। তারপর আমরা কর্মসূচি দেব। আমরা তাদের সুযোগ দিচ্ছি। এদের আরেকটু পচতে দিতে হবে।’

নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিজয় আমাদের সুনিশ্চিত। গণতন্ত্রের বিজয় হবেই।’



প্রেসক্লাবের প্রতিবাদ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন আইনজীবী ফোরামের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মিয়া, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আইনজীবী মওদুদ আহমদ, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকনসহ আইনজীবী নেতারা।



রফিকুল ইসলাম মিয়া প্রথম আলোকে বলেন, সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে প্রেসক্লাবে সমাবেশ করেছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।



নারায়ণগঞ্জে নিহত আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাত খুনের ঘটনা ও সারা দেশে গুম-খুন-অপহরণের প্রতিবাদে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে আজ সমাবেশ ডাকে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম।



সমাবেশে বাধা: আইনজীবী ফোরামের আজকের সমাবেশকে কেন্দ্র করে সকাল থেকে সুপ্রিম কোর্টের সব প্রবেশপথে অবস্থান নেয় পুলিশ। সুপ্রিম কোর্টের ভেতরে ও বাইরে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। প্রবেশপথগুলো কাঁটাতারের প্রতিবন্ধক দিয়ে আটকে রাখা হয়। ওই এলাকায় যাওয়ার সব সড়কে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হয়।



সমাবেশে অংশ নিতে সুপ্রিম কোর্টের ভেতরে প্রবেশ করতে চাইলে আজ সকাল সাড়ে ১০টা পর্যন্ত অন্তত ১৪ জন আইনজীবীকে আটক করে পুলিশ। আইনজীবীদের ভেতরে প্রবেশ করতে বাধা দেওয়া হয়।

এ পরিস্থিতিতে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয়তাবাদী আইনজীবীদের একটি দল হাইকোর্ট মাজারের দিকের ফটকের সামনে অবস্থান নেয়।



এরমধ্যে সকাল ১০টার দিকে ৩০-৪০ জন আইনজীবী সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে সমাবেশ শুরু করেন। সেখানে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উদ্দিন খোকনও ছিলেন। সমাবেশস্থলে কোনো মঞ্চ ছিল না। ছিল না মাইকও। হাত-মাইক ব্যবহার করে আইনজীবী ফোরামের নেতারা বক্তব্য দেন। দুপুর পৌনে ১২টার দিকে ওই সমাবেশ শেষ হয়। এরপর জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে প্রতিবাদ সমাবেশে যোগ দেন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের নেতা ও সদস্যরা।



আজ সকালে মাহবুব উদ্দিন খোকন প্রথম আলোকে বলেন, কোনো আইনজীবীকে ভেতরে ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। এ ধরনের ঘটনা নজিরবিহীন।



সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, পুলিশ জোর করে আইনজীবীদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে। সমাবেশে বাধা দিচ্ছে। তারপরও তাঁরা সমাবেশ চালিয়ে যাবেন।



খালেদা জিয়ার এই উপদেষ্টা দাবি করেন, এর আগে সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে বহু সমাবেশ হয়েছে। এখানে সমাবেশ করার জন্য সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার বা প্রধান বিচারপতির কাছে থেকে কোনো অনুমতি নেওয়ার প্রশ্ন আসে না। বারের সভাপতি হিসেবে সমাবেশের অনুমতি দেওয়ার কর্তৃত্ব তাঁরই।



সমাবেশে বাধার প্রতিবাদে কর্মসূচি ঘোষণা: সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে সমাবেশ করতে না দেওয়ার প্রতিবাদে কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন জাতীয়তাবদী আইনজীবী ফোরামের সভাপতি রফিকুল ইসলাম মিয়া। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে—কাল রোববার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা একটা পর্যন্ত দেশের সব আদালত বর্জন। সোমবার সব আদালতে বিক্ষোভ। মঙ্গলবার দেশের সব বারে মানববন্ধন এবং বুধ ও বৃহস্পতিবার দেশের সব বারে কালো পতাকা মিছিল।



প্রস্তুতিতে বাধা: গতকাল ার সমাবেশের প্রস্তুতিতে বাধা দেয় পুলিশ। রাতে পুলিশ আদালত প্রাঙ্গণে সমাবেশস্থল থেকে চেয়ার সরিয়ে নেয়। ওই সময় সমাবেশ ঘিরে অন্যান্য প্রস্তুতিমূলক কাজও বন্ধ করে দেয় পুলিশ। প্রত্যক্ষদর্শী আইনজীবীরা জানান, রাত ১০টার পর পুলিশ এসে সমাবেশস্থল থেকে চেয়ার সরিয়ে দেয়। এ সময় আইনজীবীদের সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের বাগবিতণ্ডা হয়।



অনুমতি না থাকার দাবি: সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার এ কে এম শামসুল ইসলাম গতকাল সাংবাদিকদের বলেন, আজকের সমাবেশের জন্য কোনো অনুমতি নেওয়া হয়নি।

সমাবেশের প্রস্তুতিকালে বাধা প্রসঙ্গে পুলিশের রমনা অঞ্চলের সহকারী কমিশনার শিবলী নোমান প্রথম আলোকে বলেন, সমাবেশের অনুমতি না থাকায় পুলিশ এ ব্যবস্থা নিয়েছে।