সোমবার, ২৭শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৩ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

চীনা সরকারে নিষিদ্ধ উইন্ডোজ ৮

English_en-INTL_Win_8_Pro_3UR-00001_en-INTL_L_Win_8_Pro_3UR-00001_RM1_mncoসরকারি কাজে ব্যবহৃত কম্পিউটারে মার্কিন সফটওয়্যার জায়ান্ট মাইক্রোসফটের তৈরি উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেমের ব্যবহার নিষিদ্ধ করেছে চীনের সরকার। দেশটির সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদ সংস্থা সিনহুয়া জানিয়েছে, মাইক্রোসফট এক দশকের পুরনো উইন্ডোজ এক্সপি অপারেটিং সিস্টেম আপডেট করা বন্ধ করে দেওয়ার পর সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য নেওয়া হয়েছে এই পদক্ষেপ। বার্তাসংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, চীন সরকারের ওই সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করেছে মাইক্রোসফট। আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে মাইক্রোসফটের বক্তব্য– “উইন্ডোজ ৮-এর ব্যবহার নিষিদ্ধ করায় আমরা বিস্মিত হয়েছি। আমাদের সেবা ও পণ্যগুলো যেন চীন সরকারের সব চাহিদা পূর্ণ করতে পারে সেই জন্য সেন্ট্রাল গভর্নমেন্ট প্রোকিওরমেন্ট সেন্টারের সঙ্গে কাজ করছিলাম আমরা।” ওই বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে আরও বলা হয়েছে, “সরকারি ক্রেতাদের আমরা উইন্ডোজ ৮ অপারেটিং সিস্টেম সরবরাহ করে আসছি। পাশাপাশি উইন্ডোজ ৮ সরকারি কাজে ব্যবহারের উপযোগী কি-না সেই বিষয়টাও খতিয়ে দেখছি আমরা।” সরকারি কম্পিউটারে উইন্ডোজ ৮ নিষিদ্ধ করার ঘোষণাটি এসেছে চীনের সেন্ট্রাল গভর্নমেন্ট প্রোকিওরমেন্ট সেন্টারের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত শক্তি-সাশ্রয়ী পণ্য ব্যবহারের এক নোটিসের সঙ্গে। শক্তি-সাশ্রয়ী পণ্য ব্যবহারের সঙ্গে উইন্ডোজ ৮ নিষিদ্ধ করার সম্পর্ক কী, এ ঘটনায় সাইবার ঝুঁকিই-বা কমছে কোনদিক থেকে সে ব্যাপারে ব্যাখ্যা দেয়নি চীন সরকার বা সিনহুয়া নিউজ এজেন্সির কেউই। মাইক্রোসফটের জন্য চীন সব সময়ই ছিল কঠিন এক বাজার। প্রতিষ্ঠানটির সাবেক সিইও স্টিভ বলমার ২০১১ সালে কর্মীদের তো বলেই বসেছিলেন, “পাইরেসির কারণে চীনে বাজারে মাইক্রোসফটের আয় নেদারল্যান্ডের থেকেও কম, যদিও প্রতিবছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিক্রি হওয়া কম্পিউটারের সমান সংখ্যক উইন্ডোজ কম্পিউটার বিক্রি হয় চীনে।” উইন্ডোজ এক্সপির সেবা বন্ধ করে দিয়ে আদতে নতুন অপারেটিং সিস্টেমগুলোর বিক্রি বাড়াতে চাইছিল মাইক্রোসফট। চীন সরকারের উইন্ডোজ ৮ নিষিদ্ধ করার সিদ্ধান্তে সেই লক্ষ্য অর্জনে পিছিয়ে গেল প্রতিষ্ঠানটি।