বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

১৪ বছরের রেকর্ড ভেঙে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা

 

Hot_567774850

আগুন ঝরা আবহাওয়ায় তেঁতে উঠেছে রাজশাহী। সূর্যের দহনে নগরবাসীর প্রাণ এখন যায় অবস্থা। একটু শীতল পরশের জন্য ব্যকুল হয়ে উঠেছে সাধারণ মানুষ। যত দিন গড়াচ্ছে তাপমাত্রা ততই বাড়ছে। দিনভর সূর্যের তীর্যক রশ্মী আর লু হাওয়া, রাতে গোমট গরমে নাভিশ্বাস উঠেছে সবার। এক পশলা বৃষ্টির জন্য চাতক পাখির মত আকাশের দিকে চেয়ে রয়েছে এই অঞ্চলের মানুষগুলো।
অব্যাহত তাপমাত্রাই প্রায় দিনই আগের দিনের রেকর্ড ভাঙছে। এর আগে রাজশাহীতে চলতি মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা গত ২৭ এপ্রিল ৪১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর পর ৯ মে আবারও ৪১ দশমিক ২ডিগ্রি সেলসিয়াস। বুধবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪২ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা আবারও চলতি মৌসুমের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা বলে বিবেচিত হচ্ছে আবহাওয়া বিভাগে।
এর আগে ২০০০ সালে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। ফলে আজকের তাপমাত্রা ১৪ বছরের রেকর্ড ভাঙলো। ১৯৪৯ সাল থেকে বাংলাদেশে তাপমাত্রা রেকর্ড শুরু হয়। এর মধ্যে ১৯৭২ সালের ১৮ মে রাজশাহীতে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল ৪৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা।
যা এখন পর্যন্ত বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা। গত কয়েকদিন থেকে অব্যাহত তাপপ্রবাহে এতবছর পর আবারও সে রেকর্ড ভাঙার আশঙ্কায় উদ্বিগ্ন সবাই।
তবে ঢাকা আবহাওয়া অধিদফতরের বরাত দিয়ে রাজশাহী পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের সহকারী আবহাওয়া কর্মকর্তা আশরাফুল আলম জানান, এবার রেকর্ড ভাঙার আশঙ্কা কম। আগামী ২৭ মে’র পর দেশে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। তখন তাপমাত্রা কমবে। এ ক’দিনে তাপমাত্রা ৪৩ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠতে পারে। টানা কয়েক দিন ভারী বৃষ্টিপাত না হলে রাজশাহী অঞ্চলের এ দাবদাহ কমার সম্ভাবনা নেই।
রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের জ্যেষ্ঠ পর্যবেক্ষক আনোয়ারা বেগম বাংলানিউজকে জানান, বুুধবার বিকেল ৩টায় ৪২ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। কিন্তু বিকেল ৫টা পর্যন্ত সর্বোচ্চ তামাত্রা রেকর্ডের সময়। ফলে এ তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে। বুধবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ২৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসের আদ্রতা ছিল সকাল ৬টায় ৯২ শতাংশ এবং বিকেল ৩টায় ২২ শতাংশ। পূর্বাভাস অনুযায়ী বৃষ্টির কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানান তিনি।
এদিকে, সূর্যের তাপে শরীরের চামড়া পুড়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। দুই মাস থেকে এক টানা খরপাতে পুড়ছে রাজশাহী। দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৯ থেকে ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ওঠা-নামা করছে। এর আগে মঙ্গলবার ৪০, সোমবার ৩৮ দশমিক ৭ এবং রোববার ৪০ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় রাজশাহীতে। ফলে তীব্র দহনে তামাটে বর্ণ ধারণ করেছে বরন্দ্রের মাটি।
অব্যাহত তাপপ্রবাহে রাজশাহীর খেটে খাওয়া মানুষের কষ্টের সীমা চরমে পৌঁছেছে। অসহনীয় গরমে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা স্থবির হয়ে পড়েছে। প্রকোপ বেড়েছে বিভিন্ন রোগের। শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়া, জ্বর, সর্দি-কাশিসহ বিভিন্ন উপসর্গে আক্রান্ত শিশুর সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। গাছে আমগুটি ও লিচু শুকিয়ে ঝড়ে যাচ্ছে। বরেন্দ্র অঞ্চলের বিস্তীর্ণ সবুজ ফসলের মাঠ বিবর্ণ আকার ধারণ করেছে।

এ জাতীয় আরও খবর