সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিজয়নগরের ভোটে অধিকাংশ কেন্দ্রই ছিলো ভোটার শূন্য

BIjonআমিরজাদা চৌধুরী : গোল কার অনুকূলে হবে তা যেন আগেই জানতেন বিজয়নগর উপজেলার ভোটাররা। তাই আর কষ্ট করে  আজ কেন্দ্রে আসেননি তারা। কেন্দ্রে কেন্দ্রে  ভোটার শূন্যতা এমন মনোভাবের বহি:প্রকাশ কিনা  তা নিশ্চিত না হওয়া গেলেও বাস্তবতা  ছিলো কেন্দ্র ফাকা। অবশ্য প্রশাসন বলেছে প্রখর রোদের কারনে ভোটার উপস্থিতি কম। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক কেন্দ্র পরিদর্শনকালে বেলা সাড়ে ১১ টা নাগাদ সাংবাদিকদের বলেন আবহাওয়া ভালো আছে। ভোটার আসবে। কিন্তু ভোট শেষ হওয়ার আগ পর্যন্ত এ চিত্রের কোন পরিবর্তন হয়নি। তবে এরই মধ্যে জাল ভোট প্রদান,কেন্দ্র দখলের অভিযোগ উঠে। এই অভিযোগে নির্বাচন বর্জন করেন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী শরীফুল ইসলাম লিটন,জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইমদাদুল হক। জেলা বিএনপি মনোনয়ন দিয়েছিল লিটনকে। আর উপজেলা বিএনপি প্রার্থী করে ইঞ্জিনিয়ার রফিকুল ইসলামকে। লিটন বসে গেলেও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিক আর বিএনপি’র পুরুষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রতিদ্বন্ধিতায় ছিলেন। নিজের অবস্থা সুবিধের নয় বলে লিটন ভোটের দিন সকাল সকাল মাঠ ছেড়ে দেবেন এই প্রচারণা ছড়িয়ে পড়ে আগের রাত থেকেই। তবে লিটন অধিকাংশ  কেন্দ্র  দখলের অভিযোগে গতকাল দুপুর ১২ টার দিকে ভোট বর্জনের ঘোষনা দেন সাংবাদিকদের কাছে। এর কিছু সময় পর আউলিয়া বাজারে বিএনপি সমর্থিত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী মোখলেছুর রহমান লিটনের সঙ্গে কথা হয়। তিনি বলেন যে যার মতো ভোট ছাপতাছে। তবে আমি নির্বাচন বর্জন করিনি। চান্দুরা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সাতগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,আড়িয়ল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বাদেহাড়িয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,ভিটি দাউদপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,সাটিরপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও চম্পকনগর স্কুল এন্ড কলেজ কেন্দ্র সরেজমিন ঘুরে দেখি সকাল ৯ টা থেকে ৩ টা পর্যন্ত। এই সময়ে এসব কেন্দ্রের সামনে ভোটারের কোন সারি চোখে পড়েনি।  
সাতগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রের একটি বুথে দুই ঘন্টায় পড়ে মাত্র একটি ভোট। সকাল ১০টায় কেন্দ্রের ৮ নম্বর মহিলা বুথে প্রথম ভোট দিতে আসেন রেহানা আক্তার । তার ভোটার নম্বর ২৫২।  তিনি বলেন, বাড়িতে ধানের কাম (কাজ)। তাই সকাল সকাল ভোটটা দিয়া গেলাম। 
এই বুথের মোট ভোটার সংখ্যা ৩২১। আর কেন্দ্রের মোট ১০টি বুথে এই সময় পর্যন্ত ভোট পড়েছে ৩২৮টি। কেন্দ্রটিতে গিয়ে দেখা গেছে ভোটার শুন্য। জানা গেছে ভোট শুরুর কিছু সময় পরই একটি বুথে দু’প্রার্থীর এজেন্টদের মধ্যে বাদানুবাদের ঘটনায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে ভোট কেন্দ্রের ভেতরে ও বাইরে।  এ অবস্থায় বেলা ১১টা পর্যন্ত কেন্দ্রটি ছিল প্রায় ফাঁকা। বিচ্ছন্নভাবে দু-একজন করে ভোটার এসে ভোট দিয়ে যাচ্ছিলেন। ছিলনা কোন ভোটের সারি। সাড়ে ১১ টার দিকে কেন্দ্রটি পরিদর্শন করতে আসেন জেলা প্রশাসক ড: মো: মোশাররফ হোসেন ও পুলিশ সুপার মো: মনিরুজ্জামান পিপিএম। জেলা প্রশাসক সেখানে সাংবাদিকদের বলেন ভোট সুন্দর ভাবে চলছে। ভোটার শূন্যতার বিষয়ে তিনি বলেন আবহাওয়া ভালো আছে। ভোটাররা আসবে। 

আর ভোট দিতে যাবেননা জুবেদা: নাতি মামুনকে নিয়ে গিলামুড়া গ্রাম থেকে এক কিলোমিটার দূরের কচুয়ামোড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়  কেন্দ্রে ভোট দিতে আসেন জুবেদা বেগম আর তার স্বামী হাজী নান্নু মিয়া মুন্সি। ভোটার স্লীপ আনতে গিয়ে নাতি মামুন শুনলেন তার নানা-নানির ভোট দেয়া হয়ে গেছে। এরপর ভোট দিতে না পারার কষ্ট নিয়ে বাড়ি ফিরে যান বৃদ্ধ নান্নু মিয়া আর তার স্ত্রী। মামুন বলেন নানীর পিত্তে পাথরের অপারেশনসহ এপর্যন্ত ৬ টি অপারেশন হয়েছে। তারপরও তিনি এসেছিলেন ভোট দিতে কেন্দ্রে। এর আগের নির্বাচনে এসেও তিনি ভোট দিতে পারেননি। তাই বলেছেন আর কখনো ভোট দিতে আসবেননা কেন্দ্র। মামুন জানান তার নানীর স্লীপ আনতে গেলে তাকে বলা হয় ভোটতো দেয়া হয়ে গেছে কাউসারের(আউলিয়া বাজারের একজন ব্যবসায়ী) ভোটটা তোমার নানিকে দিয়ে দিতে বলো। কিন্তু আমার নানী অন্যের ভোট দেবেনা বলে কেন্দ্র থেকে চলে আসি। জাল ভোট দেয়ার অভিযোগ আছে আরো অনেক। আউলিয়া বাজারের ইত্যাদি কসমেটিকস’র কর্মচারী হারুন উর রশিদ জানান,ভোট দিতে তিনি তার কেন্দ্র মুকুন্দপুর গিয়েছিলেন। কেন্দ্রের কাছাকাছি যাওয়ার পর রহমতউল্লাহ নামে এক ভোটার তাকে জানান, সকলের ভোটই দেয়া হয়ে গেছে। কেন্দ্রে গিয়ে আর লাভ নেই। এরপর আমি ফিরে আসি। ইত্যাদি কসমেটিকস’র মালিক মাওলানা ইকবাল ও হাফেজ মো: মোস্তফা কামালও ভোট দিতে পারেননি বলে জানান হারুন। তাদের ভোট ছিলো ভিটি দাউদপুর কেন্দ্রে। এসব অভিযোগ থাকলেও ভোট গ্রহন ছিলো শান্তিপূর্ণ। তবে জালালপুর কেন্দ্রে দুপুরে আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়। ২ টি বাড়ি ভাঙ্গচুরের ঘটনা ঘটে। কেন্দ্র দখল করে ভোট দেয়ার চেষ্টায় এ ঘটনা ঘটে।