মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোদী মন্ত্রিসভা নিয়ে জোর গুঞ্জন

নির্বাচনের ফল ঘোষণার তিনদিনেও বিজেপি সরকারের মন্ত্রিসভা চূড়ান্ত না হলেও বিষয়টিতে দল ও দলের বাইরে জোর গুঞ্জন চলছে পুরোদমে। 



তবে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ায় ভারতীয় জনতা পার্টি থেকে (বিজেপি) নরেন্দ্র দামোদর মোদীই যে হচ্ছেন ভারতের চতুর্দশ প্রধানমন্ত্রী তা নিশ্চিতই। 



তবে স্বরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র, অর্থ, প্রতিরক্ষা, যোগাযোগের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়গুলোর দায়িত্ব কাদের দেওয়া হচ্ছে তা এই আধুনিক গণমাধ্যমের যুগে সোমবার দুপুর পর্যন্ত নির্ভুলভাবে বের করা সম্ভব হয়নি। 



তবে জোর গুঞ্জন উঠছে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন বিজেপি সভাপতি রাজনাথ সিং। আর অর্থমন্ত্রী হতে পারেন এর আগে বাণিজ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা অরুন জেটলি।

এদিকে কোনো কারণে জেটলি অর্থমন্ত্রণালয় না পেলেও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় পাবেন বলে নিশ্চিত। সে ক্ষেত্রে অর্থমন্ত্রী পদে দেখা যেতে পারে যশবন্ত সিনহা অথবা অরুণ শৌরীকে। 



আর নিজেই ইচ্ছে প্রকাশ করায় লালকৃষ্ণ আদভানিকে সংসদ স্পিকারের পদ দেওয়া হতে পারে বলেও শোনা যাচ্ছে। তবে বিষয়টি এখনও নিশ্চিত নয়। জানা গেছে উপরে উপরে আদভানিকে সম্মান দেখালেও আদভানিকে বিশ্বাস করতে পারছেন না মোদী।



আর সবচেয়ে চমক করা ব্যাপার হলো ‘গঙ্গা মন্ত্রণালয়’ নামে মোদী সরকার একটি নতুন মন্ত্রণালয় খুলতে যাচ্ছে। আর এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পেতে পারেন বিজেপির ‘সন্ন্যাসিনী’ নেত্রী উমা ভারতী।



পশ্চিমবঙ্গ থেকে মাত্র দু'টি আসন পেলেও সার্বিক ভোটপ্রাপ্তির হারে অনেক এগিয়েছে বিজেপি। তাই ধারণা করা হচ্ছে এর পুরস্কার হিসেবে আসানসোল থেকে নির্বাচিত বাবুল সুপ্রিয়কে মন্ত্রী করা হচ্ছে। এছাড়া বাবুল নিজেই দাবি করেছেন, মোদী মন্ত্রিসভায় তাকে যুবকল্যাণ মন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে। 



এছাড়া মন্ত্রী তালিকায় নাম শোনা যাচ্ছে সুরিন্দর সিং আলুওয়ালিয়ারও। তবে যেহেতু তিনি দলে মোদীর প্রতিপক্ষ সুষমা স্বরাজের ঘনিষ্ঠ তাই তার কপালে শিঁকে নাও ছিড়তে পারে। 



মোদী ঘনিষ্ঠ অমিত শাহকে গুরুত্বপূর্ণ কোনো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়ার ব্যাপারে জোর গুঞ্জন শোনা গেলেও অমিত শাহকে নিয়ে অন্য পরিকল্পনা আটছেন মোদী। 



সামনে মহারাষ্ট্র সহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে বিধান সভা নির্বাচন। সেই নির্বাচনেও বিজেপির প্রচার কার্যক্রমের সেনাপতির দায়িত্ব দেয়া হতে পারে অমিত শাহকে। 



এজন্য  আগে থেকেই প্রধানমন্ত্রীর দফতর সংশ্লিষ্ট কোনো রাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব দেওয়া হতে পারে তাকে। তাতে মোদীর পাশাপাশিই থাকতে পারবেন তিনি। 



এছাড়া ছত্তিশগড় থেকে মন্ত্রী হতে পারেন রমেশ ব্যাস। পাশাপাশি মন্ত্রী হতে পারেন বেঙ্কাইয়া নাইডুও।



এদিকে মন্ত্রিসভা চূড়ান্ত করার আগে মোদী পরাশর্ম নিচ্ছেন বিজেপির সভাপতি রাজনাথ সিং, সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী, লালকৃষ্ণ আদভানি, গিরিরাজ সিং, তোগাড়িয়া, মুরলি মনোহর যোশির মতো দলের প্রবীণ নেতাদের।



তবে জানা গেছে প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার আগেই মন্ত্রিসভার রূপরেখা চূড়ান্ত করে ফেলতে চান মোদী। 



২০ মে বেলা ১২টায় নরেন্দ্র মোদীর সভাপতিত্বে পার্লামেন্টারি কমিটি ও বিজেপির প্রবীণ নেতাদের নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। আর মোদী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন ২২ অথবা ২৩ মে।