শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কানে ব্রিটিশ আধিপত্যের দিন

কী প্রশ্ন করা যায় মাইক লেইকে? মানুষটা সামনাসামনি দেখতে কেমন? যে পাম দ’র পুরস্কার নিয়ে বিশ্বজুড়ে মাতামাতি, মাইক লেই সেটা জিতে ফেলেছেন প্রায় ১৮ বছর আগে৷
অস্কার থেকে গোল্ডেন গ্লোব—সারা বিশ্বের প্রথম সারির সমস্ত চলচ্চিত্র আসরে রাজত্ব করেছিল তার আগের ছবি ভেরা ড্রেক৷ এবারও খ্যাতিমান ব্রিটিশ চিত্রশিল্পী জে এম ডব্লিউ টার্নারের জীবনকাহিনি নিয়ে তৈরি তাঁর ছবি মিস্টার টার্নার স্বর্ণ পামের লড়াইয়ে আছে সামনের সারিতে৷ সংবাদ সম্মেলনকক্ষের লাইনে দাঁড়িয়ে এসব সাতপাঁচ ভাবছি৷ বিশ্বনন্দিত এই ব্রিটিশ পরিচালককে দেখার আশায় বাস ধর্মঘটের তোয়াক্কা না করে সাতসকালে বেরিয়েছি৷
প্রশ্ন কী করব, তার চেয়েও বড় সমস্য আদৌ ভেতরে ঢোকার সুযোগ হবে তো? ভেতরে আসনসংখ্যা খুবই সীমিত৷ বাংলাদেশ থেকে শুধু প্রথম আলোর প্রতিবেদকই পেয়েছেন গোলাপি প্রেস কার্ড৷ কান উৎসবে এই কার্ডের কদর আলাদা৷ কিন্তু সারা বিশ্ব মিলিয়ে গোলাপি কার্ডধারীর সংখ্যাটাও খুব কম নয়৷ তবে এ যাত্রা ভাগ্য ছিল সুপ্রসন্ন৷
অবশেষে তিনি এলেন৷ ধবধবে সাদা চুল-দাড়ি৷ চোখে ভর করে আছে ক্লান্তি৷ বার্ধক্য ৭১ বছর বয়সী এই সিনেমা গুরুকে ছঁুয়ে গেছে, কিন্তু কাবু করতে পারেনি৷ সেটা পরিষ্কার বোঝা গেল প্রশ্নোত্তর পর্বে তাঁর একের পর এক সরস জবাব শুনে৷ পাশের চীনা সাংবাদিক সবার আগে হাত তুলেছেন৷ মওকা বুঝে চট করে হাত তুলেছি৷ কিন্তু লাভ হলো না৷ হাফিংটন পোস্ট-এর নারী সাংবাদিক আগেই হাত তুলে বসে আছেন৷ তারপর? বিবিসি রেডিও৷ শেষতক আরও পাঁচ সাংবাদিককে পেরিয়ে প্রশ্ন করার সুযোগ মিলল৷
‘চিত্রশিল্পী মিস্টার টার্নার একজন ব্রিটিশ আইকন৷ নির্মাতা হিসেবে আপনিও তাই৷ আপনি কি মনে করেন, চিত্রশিল্পী মিস্টার টার্নারের সঙ্গে মানুষ হিসেব আপনার কোনো মিল আছে?’
প্রশ্নটা খুব জুতসই হলো না হয়তো৷ শুধু বাংলাদেশের প্রথম আলো থেকে এই কথাটা বলব বলে প্রশ্নটা করা৷ মাইক লেই প্রশ্নটা নিলেন৷
জবাবও দিলেন ত্বরিত৷
‘ না, আমি মনে করি না৷’
তাঁর ত্বরিত জবাব দেওয়ার ভঙ্গিতেই এমন একটা কিছু ছিল, গোটা সংবাদ সম্মেলনকক্ষে ছোটখাটো একটা হাসির ফোয়ারা বয়ে গেল৷ সেই হাসিতে যোগ দিলেন পাশে বসে থাকা খ্যাতিমান ব্রিটিশ চরিত্রাভিনেতা টিমোথি স্পালও৷ ছবিতে মিস্টার টার্নারের চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি৷ টিমোথিকে কি চেনা গেল না? এই অভিনেতাকে চেনার সহজ উপায় হ্যারি পটার সিরিজের ছবি৷ তাঁর আরেকটি বিখ্যাত ছবি কিংস স্পিস৷ এই ছবিতে উইস্টন চার্চিলের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল টিমোথিকে৷ মাইক লেইয়ের স্বর্ণ পাম বিজয়ী ছবি সিক্রেটস অ্যান্ড লাইস-এর কেন্দ্রীয় চরিত্রেও অভিনয় করেছিলেন তিনি৷ তাঁর পাশেই ভেরা ড্রেক ছবির খ্যাতিমান অভিনেত্রী ম্যারিয়ন বেইলি৷ এবারের ছবিতে টার্নারের মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন তিনি৷
সংবাদ সম্মেলন শেষ৷ শেষ মুহূর্তে হাত বাড়িয়ে দিয়েছি মাইক লেইয়ের দিকে৷ সৌভাগ্যক্রমে মাইক হাতটা ধরলেন৷ হাসিমুখে কিছু একটা বললেন বিড়বিড় করে৷ নিশ্চয়ই মজার কিছু হবে৷ অটোগ্রাফ শিকারি বনে যাওয়া সাংবাদিক আর ক্যামেরাম্যানদের ভিড়ে সেটা পরিষ্কার শোনা হলো না৷
১৮ বছর আগে যাঁদের সঙ্গে নিয়ে স্বর্ণ পাম জয় করে নিয়ে গিয়েছিলেন ব্রিটেনে, এবারও মাইক লেইয়ের ছবিতে সঙ্গী হয়েছেন তাঁদের অনেকেই৷ মাইক লেই আর তাঁর ছবির কলাকুশলীদের উপস্থিতির সুবাদেই উৎসবের দ্বিতীয় দিনে ফরাসি মুলুকে আধিপত্য বজায় রাখল ইংরেজরা৷ শুরুর দিনটা যদি হয় হলিউডের, তবে কালকের দিনটা নিশ্চিতভাবেই ছিল ব্রিটেনের৷

এ জাতীয় আরও খবর