শনিবার, ৩রা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আবারও প্রতিবাদের নামে ঢাকা মেডিক্যালে চিকিৎসা বন্ধ

pic-20_83165ডেস্ক রির্পোট :মন্ত্রীর কঠোর নির্দেশ, চিকিৎসক নেতাদের অনুরোধ, বিশিষ্টজনদের পরামর্শ কিংবা সাধারণ মানুষের ক্ষোভ-অসন্তোষ-সমালোচনা বা জটিল রোগীর করুণ আর্তনাদ- কোনো কিছুতেই দমছেন না নবীন চিকিৎসকরা। প্রতিবাদের নামে ধর্মঘট-কর্মবিরতি ডেকে রোগীদের চিকিৎসাবঞ্চিত রাখার ঘটনা ঘটেই চলছে। সর্বশেষ শনিবার রাত থেকে গতকাল এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দেশের ঐতিহ্যবাহী চিকিৎসাকেন্দ্র ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রায় এক হাজার অনারারি চিকিৎসকের কর্মবিরতি চলছে। যদিও গতকাল দুপুর ১২টা থেকে ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতির আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন অনারারি চিকিৎসকরা। শনিবার রাত থেকে হঠাৎ করেই এমন কর্মবিরতিতে অনেকটাই অচলাবস্থা দেখা দিয়েছে হাসপাতালজুড়ে। পরিস্থিতি সামাল দিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জোড়াতালি দিয়ে জরুরি বিভাগ সচল রাখার চেষ্টা করছে। শনিবার রাতে তিনজন অনারারি চিকিৎসকের ওপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল ছাত্রের হামলার ঘটনার প্রতিবাদে হাসপাতালের সব অনারারি চিকিৎসক কাজ বন্ধ করে দেন। যা নিয়ে গতকাল দিনভর সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সব মহলেই ব্যাপক বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। আবারও সামনে চলে এসেছে চিকিৎসকদের আচার-আচরণ ও নীতি-নৈতিকতার প্রশ্ন। প্রশ্ন উঠেছে একের পর এক এ ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার মাধ্যমে হাসপাতাল ও মানুষকে জিম্মি করার নেপথ্যে অন্য কোনো বিষয় আছে কি না তা নিয়ে। দেশের চিকিৎসকদের সনদ প্রদানকারী ও নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল-বিএমডিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. আবু সফি আহম্মেদ আমিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘যে পরিস্থিতিই হোক না কেন চিকিৎসকদের ধর্মঘট বা কর্মবিরতির কোনো সুযোগ নেই। এ ধরনের কর্মসূচি একেবারেই চিকিৎসা পেশার পরিপন্থী।’

ডা. আবু সফি উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘চিকিৎসার জন্য রোগী আসবে আর চিকিৎসক কর্মবিরতির নামে তাকে সেবা দেবেন না- এটা তো ভাবাও যায় না। এমন পরিস্থিতিতে যদি কোনো চিকিৎসকের কোনো স্বজন হাসপাতালে আসে, তখন ওই চিকিৎসক কী করবেন? তিনি কি তাঁর স্বজনকে চিকিৎসা দেবেন না কিংবা তাঁর সহকর্মীদেরও চিকিৎসা থেকে বিরত থাকতে বলবেন? এ ছাড়া যুদ্ধের মধ্যেও কি চিকিৎসকরা পক্ষ-প্রতিপক্ষের মানুষকে সেবা দেন না?’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মাত্র তিন-চার দিন আগে হাসপাতালের সব শিক্ষানবিশ চিকিৎসকের শিক্ষানবিশকাল শেষ হয়েছে। ফলে তাঁরা এখন অনারারি ভিত্তিতে হাসপাতালে যুক্ত আছেন। নতুন শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা না আসা পর্যন্ত তাঁদের এভাবেই দায়িত্ব পালনের প্রথা রয়েছে। কিন্তু শনিবার রাত থেকে প্রায় এক হাজার অনারারি চিকিৎসক কাজ থেকে বিরত থাকেন। ফলে সব ক্ষেত্রেই সাময়িক সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। তবে আমরা অন্য ডাক্তারদের দিয়ে বিশেষ স্কোয়াড করে জরুরি বিভাগ চালু রেখেছি। একইভাবে ওয়ার্ডের রোগীদের চিকিৎসাও চালানো হচ্ছে। তবে রোগীর তুলনায় চিকিৎসকের সংখ্যা কম থাকায় স্বাভাবিকভাবেই সবকিছু চলছে তা বলা যাবে না।’

ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘আমাদের চেষ্টার কমতি নেই। যতটা সম্ভব চিকিৎসাসেবা সচল রাখার চেষ্টা করছি। এ ক্ষেত্রে সবার সহযোগিতা দরকার।’ তিনি যোগ করেন, ‘নীতি-নৈতিকতার প্রশ্ন থাকলেও একটি পেশার একজন আক্রান্ত হলে তাদের সহকর্মীরা ক্ষুব্ধ হয়ে প্রতিবাদ জানাতেই পারে। তবু আমরা তাঁদের শান্ত করার চেষ্টা করছি।’

ওই হাসপাতাল সূত্র জানায়, গত মঙ্গলবার হাসপাতালের একটি লিফটে ওঠা নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রের সঙ্গে প্রথমে বচসা হয় শিক্ষানবিশ এক চিকিৎসকের। এ সময় ওই চিকিৎসক তাঁর আরো কয়েক সহকর্মীকে নিয়ে ওই ছাত্রকে মারধর করেন। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওই দিনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল শিক্ষার্থী ওই হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভাঙচুর করে। এর প্রতিবাদে ডাক্তাররা প্রায় তিন ঘণ্টা চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধ রাখেন। পরে চিকিৎসক নেতা ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে তাঁরা আবার কাজে যোগ দেন। তবে ওই দিনের ঘটনার জের ধরে শনিবার রাতে চানখাঁরপুল এলাকায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের তিন অনারারি চিকিৎসকের ওপর হামলা চালায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন ছাত্র। এ ঘটনার প্রতিবাদে শনিবার রাতে হাসপাতালের জরুরি বিভাগ বন্ধ করে হাসপাতালের পরিচালকের পদত্যাগের দাবিতে  বিক্ষোভ করেন অনারারি চিকিৎসকরা। ঘণ্টাখানেক পরে জরুরি বিভাগ খুলে দেওয়া হয়। সকাল সাড়ে ১১টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হকের উপস্থিতিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান ডাবলু, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন-বিএমএর মহাসচিব অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ ইসমাইল খান, একই হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমানের সঙ্গে আন্দোলনকারী অনারারি চিকিৎসকদের বৈঠক হয়। বৈঠক থেকে বেরিয়েই আন্দোলনকারীরা ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতির ডাক দেন। যদিও সকাল থেকে হাসপাতালের প্রায় এক হাজার অনারারি চিকিৎসক কাজ বন্ধ রাখেন। এমনকি তাঁরা জরুরি চিকিৎসা থেকেও বিরত রয়েছেন। ফলে হাসপাতালে জরুরি বিভাগ, আউটডোর এবং ওয়ার্ডগুলোতেও রোগীদের পড়তে হয়েছে চরম ভোগান্তির মুখে। কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের পর পরিচালকের পদত্যাগের দাবি থেকে সরে এলেও ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। না হলে সর্বাত্মক ধর্মঘট ডাকা হবে বলে কর্মবিরতিতে থাকা অনারারি চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

বিএমএর মহাসচিব অধ্যাপক ডা. ইকবাল আর্সলান কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিক্ষুব্ধ অনারারি চিকিৎসকরা লাগাতার ধর্মঘটে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন, আমরা তাঁদের সঙ্গে বৈঠক করে তাঁদেরকে বুঝিয়ে সরিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছি। তবু ৪৮ ঘণ্টার কর্মবিরতির ফলে রোগীদের যে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে তা দুঃখজনক।’

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থেকে স্ত্রী রাজিয়া বেগমকে নিয়ে চিকিৎসার জন্য গতকাল রবিবার সকাল ৮টা থেকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগের মেডিসিন বিভাগের সামনে অপেক্ষা করছিলেন নুরুর রহমান। সকাল ১১টায়ও দেখা মেলেনি ডাক্তারের। ডাক্তারের খোঁজ জানতে চাইলে এক কর্মচারী তাঁদের ধমক দিয়ে বাইরে পাঠিয়ে দেন। সঙ্গে বেরিয়ে আসেন আরো বেশ কয়েকজন। চেহারাজুড়ে পরিষ্কার অসহায়ত্ব ফুটে ওঠা নুরুর রহমান বলেন, ‘তিন ঘণ্টা বইয়া থাইক্কাও কোনো ডাক্তার পাইলাম না। আমগোরে জোর কইরা বাইর করে দিছে। স্টাফরা কইল ডাক্তাররা ধর্মঘট ডাকছে। হেরায় রোগী দেখব না। কিন্তু এহনে আমগো কী অইবো।’

নুরুর রহমানের পাশে এ সময় ভিড় করে আরো বেশ কয়েকজন রোগী। সোলায়মান নামে একজন হঠাৎই ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, ‘ডাক্তাররা মারছে ছাত্রদেরকে আবার ছাত্ররা মারছে ডাক্তারদেরকে, রোগীদের চিকিৎসা বন্ধ থাকবে কেন? রোগীদের দোষ কী? চিকিৎসা বন্ধ করে দেওয়া তো জুলুম ছাড়া কিছু না। কথায় কথায় ডাক্তাররা চিকিৎসা বন্ধ করে দেয়- এর কি কোনো সুরাহা নাই?’

হাসপাতালের সার্জারি ইউনিটে চিকিৎসাধীন এক রোগীর স্বজন মোতালেব মিয়া কালের কণ্ঠকে জানান, ‘সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত কোনো চিকিৎসকের দেখাই তাঁরা পাননি। নার্সরাই প্রয়োজন মতো সেবা দিয়েছেন।’

এই ঘটনার আগে গত মাসে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও ঢাকা স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে সাংবাদিকদের ওপর চিকিৎসকদের হামলার ঘটনার পর থেকে সরকারসহ বিভিন্ন মহলে শিক্ষানবিশ চিকিৎসদের প্রতি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়ে পুরো চিকিৎসকসমাজ।  পরিস্থিতির মুখে গত ২২ এপ্রিল চিকিৎসক নেতাদের সঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এক বৈঠকে বসে কোনো অবস্থাতেই চিকিৎসকদের ধর্মঘট বা কর্মবিরতির মতো কর্মসূচি গ্রহণ না করার নির্দেশ দেন।

ডাক্তারদের উদ্দেশে মন্ত্রী ওই দিন বলেন, ‘কথায় কথায় ধর্মঘট ডাকবেন না। ধর্মঘট ডাকলে একজন রোগী মারা গেলে দায়িত্ব নেবে কে? কর্মবিরতির পথ পরিহার করুন। সত্যিকার অর্থে যদি আপনি একজন চিকিৎসক হন, তাহলে ধর্মঘট করবেন না। চিকিৎসা বন্ধ করবেন না। সমস্যা সমাধানের সুযোগ না দিয়ে কর্মবিরতি করবেন না।’

একই দিন মন্ত্রী আরেক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘ডাক্তারদের হাতে লাঠি থাকবে কেন? ইন্টার্ন চিকিৎসকরা কিভাবে সাংবাদিকদের মারেন? কিভাবে এটা সম্ভব? যার হাতে লাঠি থাকবে সে ডাক্তার নয়, সে হবে সন্ত্রাসী, মাস্তান।’

সরকারের পক্ষ থেকে এমন কঠোর অবস্থানের পরও কেন চিকিৎসকরা কর্মবিরতির নামে চিকিৎসাসেবা বন্ধ করে দেন- এ বিষয়ে মতামত জানতে চাইলে বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন-বিএমএর সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ডা. রশিদ ই মাহবুব কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘হঠাৎ করেই কেন এমন ঘটনার মাত্রা বেড়ে গেছে, তা ভালো করে অনুসন্ধান করা দরকার। এর নেপথ্যে জটিল কোনো রহস্য আছে কি না কিংবা কোনো রাজনীতি বা সাংগঠনিক প্রভাব আছে কি না, তা খুঁজে দেখা দরকার।’

এই প্রবীণ চিকিৎসক নেতা বলেন, কেবল তরুণ ডাক্তারদের দায়ী করলেই হবে না। তাঁদের নিরাপত্তার বিষয়ে সরকার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দায় আছে। ডাক্তাররা যদি নিরাপত্তা না পান তবে কাজ করবেন কিভাবে! আর কর্মবিরতি বন্ধেও সরকার ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের আরো কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। তা না হলে ব্যর্থতার দায় তারা এড়াতে পারে না।

বিএমএর বর্তমান মহাসচিব ও সরকার সমির্থত চিকিৎসকদের সংগঠন স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের মহাসচিব অধ্যাপক ইকবাল আর্সনাল বলেন, ‘ঘটনাগুলোর নেপথ্যে হয়তো কোনো রহস্য আছে। আমরা চেষ্টা করছি এই রহস্য খুঁজে বের করতে, যার মাধ্যমে এ ধরনের পরিস্থিতির দীর্ঘমেয়াদি সমাধান পাওয়া যেতে পারে।’

এদিকে শনিবার রাতে চিকিৎসকদের ওপর হামলার ঘটনায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার জিল্লুর রহমান বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় একটি মামলা করেছেন। এতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিরাজ এবং  ছাত্রলীগকর্মী আশিক, জসিমসহ ১২ থেকে ১৫ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, মামলার এজাহার অনুসারে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

এ জাতীয় আরও খবর

হরিপুর সীমান্তে হয়নি দু’বাংলার মিলন মেলা, অশ্রুজলে ফিরলেন স্বজনরা

১০ ডিসেম্বরের সমাবেশে ভীতি সঞ্চার করতেই পুলিশের বিশেষ অভিযান

প্রবাসী রেমিট্যান্সে ভারতের বিশ্বরেকর্ড

রাজশাহীতে দ্বিতীয় দিনের মতো চলছে পরিবহন ধর্মঘট, দুর্ভোগে যাত্রীরা

র‍্যাব পরিচয়ে অপহরণ করে মুক্তিপণ আদায়, গ্রেপ্তার ৩

বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের সম্ভাবনা

জঙ্গি ছিনতাই: ঈদী আমিন-মেহেদী ফের রিমান্ডে

১০ ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার জনসভায় যাওয়ার চিন্তা অবাস্তব: তথ্যমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রীর চট্টগ্রাম সফর: উদ্বোধন হচ্ছে ৩০ প্রকল্পের

তুলে রাখা শীতের পোশাক ব্যবহারের আগে কিছু টিপস

সংসার টিকিয়ে রাখতে চাইলে খুশি রাখুন স্ত্রীকে, বলছে গবেষণা

কঙ্গোতে বিদ্রোহীদের হামলায় নিহত ৫০