বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

প্রযুক্তিবিশ্ব মাতাবেন যাঁরা

tlentedডেস্ক রির্পোট :বয়সে তাঁরা নিতান্তই তরুণ। এরই মধ্যে নিজেদের কাজ, উদ্যোগ দিয়ে প্রযুক্তি-দুনিয়ায় শক্ত জায়গা করে নিয়েছেন৷ তাই স্থান পেয়েছেন বিজনেস ইনসাইডার ওয়েবসাইটের তৈরি করা তথ্যপ্রযুক্তি খাতে ৩০ বছরের কম বয়সী ৩০ প্রভাবশালীর তালিকায়। বিশ্লেষকদের ধারণা, ভবিষ্যতে সিলিকন ভ্যালি কাঁপাবেন আজকের এই তরুণেরা। এ তালিকার শীর্ষে আছেন ফেসবুকের মার্ক জাকারবার্গ। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ৩০ বছরের কম ৩০ প্রভাবশালীর তালিকার শীর্ষ দশে থাকা ১০ জনকে নিয়ে এ প্রতিবেদন।

মার্ক জাকারবার্গ
সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফেসবুক
বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মার্ক জাকারবার্গ (২৯)। ১২০ কোটির বেশি ব্যবহারকারী যুক্ত আছেন ফেসবুকে। সামাজিক যোগাযোগ সাইটকে আরও ব্যবহারের উপযোগী করতে মার্ক লোকেশন শেয়ারিং অ্যাপ গ্ল্যান্সি যেমন অধিগ্রহণ করেছেন, তেমনি হোয়াটসঅ্যাপও অধিগ্রহণ করেছেন। ১৯৮৪ সালে জন্মগ্রহণকারী মার্কের বর্তমান সম্পত্তির পরিমাণ দুই হাজার ৫৩০ কোটি ডলার। এ তালিকার শীর্ষে জায়গা করে নিয়েছেন মার্ক।

ট্রাইস্টেন ওয়াকার
প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, ওয়াকার অ্যান্ড কোম্পানি
সৌন্দর্যচর্চার নানা ধরনের পণ্য বিক্রির উদ্যোগ ওয়াকার অ্যান্ড কোম্পানি। এ প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ট্রাইস্টান ওয়াকার (২৯) বর্তমানে প্রায় ২৪ লাখ ডলারের মালিক। জনপ্রিয় জায়গা সম্পর্কে অন্যদের জানানোর অ্যাপ ফোরস্কয়ারে কাজ করেছেন ট্রাইস্টেন। সেই চাকরি ছেড়ে দিয়ে নিজের ব্যবসা চালু করেন তিনি। ট্রাইস্টান আছে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে৷

ডাস্টিন মোসকোভিজ
সহপ্রতিষ্ঠাতা, আসানা
ই-মেইল ছাড়া সহজে সামাজিক যোগাযোগের সাইট ব্যবহারের সুযোগ নিয়ে চালু হয় আসানা। আর মানুষের মস্তিষ্ক ঠিক কীভাবে কাজ করে, সে বিষয় নিয়ে রয়েছে ভিিকউরিয়াস সিস্টেম। রয়েছে গুড ভেঞ্চার নামের ফাউন্ডেশন। এমন উদ্যোগগুলোর প্রতিষ্ঠাতা ডাস্টিন মোসকোভিজ (২৯)। বর্তমানে ৮০ জন কর্মী কাজ করছেন আসানায়, যার ইতিমধ্যে আয় তিন কোটি ৮২ লাখ ডলার ছাড়িয়েছে। এ ছাড়া গুড ভেঞ্চারে অর্থের পরিমাণ পাঁচ কোটি পাঁচ লাখ ডলার এবং ছয়জন কর্মী নিয়ে পরিচালিত ভিকিউরিয়াস সিস্টেমের বর্তমান আয় ছয় কোটি ডলার। ১৯৮৪ সালে জন্ম ডাস্টিনের। তালিকায় আছেন তৃতীয় স্থানে।

জোয়ে গ্রিন
সহপ্রতিষ্ঠাতা, কজেস
অ্যাপ তৈরি করেই এগিয়ে গেছেন জোয়ে গ্রিন (২৯)। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের বন্ধু ছিলেন। ফেসবুকে যোগ দেওয়ার ব্যাপারে জোয়েকে আমন্ত্রণও জানিয়েছিলেন মার্ক। তবে সেটি না করে জোয়ে মানবপ্রীতির উদ্যোগ নেন এবং অলাভজনক একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য চার কোটি ডলারও জোগাড় করেন। পাশাপাশি এ-সম্পর্কিত একটি অ্যাপ তৈরি করেন, যা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সাড়া জাগায়। ফেসবুকের এ অ্যাপটির মাধ্যমে বর্তমানে আসানার আয় দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৬৪ লাখ ডলার এবং কাজ করছেন ৭৭ জন কর্মী। ১৯৮৪ সালে জন্মগ্রহণকারী জয়ি আছেন তালিকার চতুর্থ নম্বরে।

ক্রিস্টিয়ান টাইটোস
সাবেক নির্বাহী পরিচালক ও পরামর্শক, গালর্স হু কোড
প্রযুক্তি-দুনিয়ায় আধিপত্য যাতে শুধু পুরুষদেরই না হয়, সে জন্য তরুণীদের নিয়ে শুরু করেন গালর্স হু কোড নামের বিশেষ উদ্যোগ। তথ্যপ্রযুক্তিতে নারীদের আগ্রহী করে তুলতে শিক্ষা, আগ্রহ ইত্যাদি বিষয়ে কাজ করেন ক্রিস্টিয়ান টাইটোস (২৯)। বর্তমানে নিজেই ক্রিস্টিয়ান টাইটোস কনসাল্টিং নামের একটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। যেখানে পরিকল্পনা, ব্যবস্থাপনা, আর্থিক সুবিধার বিষয় এবং যোগাযোগ কার্যক্রমগুলোয় নারীদের সহায়তা করছেন। তালিকার পাঁচ নম্বরে আছেন তিনি।

অ্যাডাম ডি’অ্যাঙ্গলে
প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, কিউরা
প্রশ্নে উত্তর দেওয়ার প্রতিষ্ঠান কিউরার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যাডাম ডি’অ্যাঙ্গলো (২৯)। এ প্রতিষ্ঠানের বর্তমান আয়ের পরিমাণ ৯০ কোটি ডলার। কিউরায় কাজ করছেন ৭৫ জন কর্মী। অ্যাডাম নিজেও ফেসবুকের শুরুর দিকে যুক্ত থাকা অন্যতম ব্যক্তিদের একজন। তবে বর্তমানে কিউরা নিয়েই কাজ করছেন তিনি। অ্যাডাম আছেন তালিকার ৬ নম্বরে।

জন জিমার
সহপ্রতিষ্ঠাতা লেফট
অ্যাপভিত্তিক গাড়ির সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান লেফটের সহপ্রতিষ্ঠাতা জন জিমার (২৯)। শুধু গাড়ির জন্যই এ প্রযুক্তি তৈরি করেছেন তিনি।
বর্তমানে ২৫০ জন কর্মী কাজ করছেন লেফটে, যার বর্তমান আয়ের পরিমাণ ৩২ কোটি ৩৫ লাখ ডলার। সারা বিশ্বেই জনপ্রিয়তা বাড়ছে জিমারের এ প্রযুক্তি-সুবিধাটির। তালিকায় সপ্তম স্থানে আছেন তিনি।

অারন লেভি
সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, বক্স
ক্লাউডভিত্তিক ফাইল সংরক্ষণ সেবা বক্সের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরন লেভি (২৮)। আরন ক্লাউড সেবা ব্যবহারের মাধ্যমে চালু করেন বক্স। বর্তমানে বক্সের আয়ের পরিমাণ ২৫ কোটি ডলার, যা বার্ষিক হারে বাড়ে ১২ কোটি চার লাখ ডলার করে। বক্সে কাজ করছেন এক হাজার ১৮৩ জন কর্মী। সেরা দশের তালিকায় আরন আছেন অষ্টম স্থানে।

মাইক ক্রেইগার
সহপ্রতিষ্ঠাতা, ইনস্টাগ্রাম
বর্তমান সময়ে ছবি ভাগাভাগি করার জনপ্রিয় অ্যাপ ইনস্টাগ্রামের সহপ্রতিষ্ঠাতা মাইক ক্রেইগার (২৮)। ইনস্টাগ্রামের ধারণা থেকে শুরু করে পুরো উন্নয়নে বড় ভূমিকা রেখেছেন মাইক। ২০১০ সালে আরেক সহযোগী কেভিন সিস্ট্রোমের সঙ্গে যৌথভাবে চালু করেন ইনস্টাগ্রাম অ্যাপটি। এর আগেও তাঁরা স্থানভিত্তিক বারবন নামে একটি অ্যাপ তৈরি করেন। ফেসবুকের অধিগ্রহণ করা অ্যাপটি ২৫ ভাষায় রয়েছে। মাইক আছেন তালিকার নবম স্থানে।

লিসা ফ্যালজোন
সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, রিভেল সিস্টেম
অ্যাপলের আইপ্যাড ব্যবহার করে পয়েন্ট অব সেলস (পিওএস) পদ্ধতি তৈরি করে সাড়া জাগিয়েছেন লিসা ফ্যালজোন (২৮)। তালিকায় দশম স্থানে আছেন এ মেধাবী। পয়েন্ট অব সেল পদ্ধতিটি নিয়েই প্রতিষ্ঠা করেন রিভেল সিস্টেম নামের প্রতিষ্ঠান। বেশির ভাগ খুদে ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান, রেস্তোরাঁয় বেশ জনপ্রিয় আইপ্যাড পিওএস। মাত্র এক বছরেই এ পণ্যটি নিয়ে বাজার মাতায় রিভেল সিস্টেম এবং লিসা। লিসা রিভেল সিস্টেম প্রতিষ্ঠার আগে যুক্তরাজ্যে ভেঞ্চার ক্যাপপটালে কাজ করতেন।

আরও আছেন—
বিজনেস ইনসাইডারের এ তালিকায় আরও আছেন ইয়াহুর পরিচালক (পণ্য) রবি স্টেইন (২৮), ফাইল শেয়ারিং সেবা ড্রপবক্সের সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান কারিগরি কর্মকর্তা আরাশ ফেরদৌসি (২৮), অ্যান্ড্রয়েডের গোপন গবেষণা বিভাগের প্রকৌশলী সারা হায়দার (২৭), ব্লগিং সেবা টাম্বলারের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেভিড ক্র্যাপ (২৭), পিন্টারেস্টের সফটওয়্যার প্রকৌশলী ট্রেসি চো (২৬), স্ন্যাপচ্যাটের সহপ্রতিষ্ঠাতা ববি মারপি (২৫), ইভান স্পেইজেল (২৩), সম্প্রতি ফেসবুকের অধিগ্রহণ করা ভিডিও প্রযুক্তি অকুলাস ভিআরের প্রতিষ্ঠাতা পালমের লাকি (২১) এবং ইয়াহুর নিউজ ডাইজেস্টের নির্মাতা নিক ডেলোসি (১৮)।

এ জাতীয় আরও খবর