রবিবার, ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সীমান্তবর্তী বনগাঁয় জিতবেন কে?

বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার একটি শহর বনগাঁ। এখানে পশ্চিমবঙ্গের একটি লোকসভা আসন রয়েছে। বনগাঁর পাশেই বাংলাদেশের যশোর ও বেনাপোল সীমান্ত।



এতে এই আসনে লোকসভা নির্বাচনের লড়াই নিয়ে দুই দেশের সীমান্তবর্তী অঞ্চলে বসবাসকারী মানুষের আগ্রহ কম নয়। এই আসনের ভোটার এখন ১৫ লাখ ২৩ হাজার ৭৪৫ জন। এই আসনের নির্বাচনী লড়াই শুরু হয়ে গেছে আজ সোমবার সকালেই।



পশ্চিমবঙ্গের লোকসভার এ আসনটি আবার আদিবাসী তফসিলি সম্প্রদায়ের জন্য সংরক্ষিত। এই আসনের ভোটারের অন্তত ৫২ থেকে ৫৩ শতাংশ তফসিলি সম্প্রদায়ের, মতুয়া গোষ্ঠীভুক্ত। এই আসনের ভোটের ফলাফল অনেকটা তাদের ওপরই নির্ভর করে। বনগাঁ মহকুমার ঠাকুরনগরে রয়েছে আদিবাসী মতুয়া সম্প্রদায়ের প্রধান গুরু হরিচাঁদ ঠাকুরের স্মৃতিবিজড়িত মতুয়া মহাসংঘ আশ্রম। হরিচাঁদ ঠাকুরের আদিভূমি ছিল বাংলাদেশের ফরিদপুর জেলার সফলাডাঙ্গায়। পরে তিনি তাঁর ধর্মমত প্রচার করতে গিয়ে তখনকার জমিদারদের বিরাগভাজন হয়ে আশ্রয় নিয়েছিলেন ফরিদপুরের ওড়াকান্দিতে। মতুয়াদের মধ্যে ঐক্য আনতে হরিচাঁদ ঠাকুরই শিষ্যদের হাতে লাল নিশান, শিঙা, জয়ডংকা এবং কাঁসি তুলে দিয়েছিলেন। ওই মহাসংঘের বর্তমান প্রধান উপদেষ্টা গুরুমা বীণাপাণি দেবী। তাঁর ছোট ছেলে মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুর ২০১১ সালে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিটে জয়ী হয়ে পশ্চিমবঙ্গের একজন মন্ত্রী হয়েছেন। আর তাঁর বড় ছেলে কপিলকৃষ্ণ ঠাকুর মমতার তৃণমূলের টিকিট নিয়ে এবার লোকসভা নির্বাচনে লড়ছেন।



বনগাঁ আসনে আরও লড়ছেন মতুয়া মহাসংঘের সাধারণ সম্পাদক কে ডি বিশ্বাস। তিনি লড়ছেন ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) টিকিটে। অনেকটা বিদ্রোহী হয়ে। বামফ্রন্টের টিকিটে লড়ছেন পশ্চিমবঙ্গের সাবেক মন্ত্রী দেবেশ দাস এবং কংগ্রেসের ইলা মণ্ডল। তাই সীমান্ত এলাকা বনগাঁ আসনে এবার লড়াই হচ্ছে চতুর্মুখী।



সীমান্তের এ আসনটি নিয়ে রাজনৈতিক নেতা, ব্যবসায়ী থেকে সর্বস্তরের মানুষের অনেক আগ্রহ। কিন্তু এই আসনে কে জিতবেন, তা নিয়ে এখন রাজনৈতিক দলের মধ্যে দরকষাকষি চলছে। তৃণমূল, বিজেপি ও বামফ্রন্ট প্রার্থীরা জয়ী হওয়ার দাবিও করেছেন।



এ ব্যাপারে গত শুক্রবার কথা হয় বনগাঁর বিশিষ্ট সাংবাদিক নিরুপম সাহার সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘কে জিতবেন বলা মুশকিল। এবার আর মানুষ মুখ খুলতে চাইছেন না। যেন নীরবে ভোটটা সেরে নিতে চাইছেন।’ তবে মূল লড়াই তৃণমূল, বিজেপি ও বামফ্রন্টের মধ্যে হবে বলে তিনি জানান। মতুয়া সম্প্রদায়ই ভোটে সবচেয়ে বেশি প্রভাব ফেলবে বলে তিনি জানান। আর তিন প্রার্থীই মতুয়াদের কমবেশি ভোট পাবেন।



তবে বামপ্রার্থী দেবেশ দাস প্রথম আলোকে জোরের সঙ্গেই বললেন, কোনও সন্দেহের কারণ নেই, এবার এই আসনে জিততে চলেছেন তিনি। বললেন, ‘কেন আমি মতুয়া সম্প্রদায়ের ভোট পাব না? দেখুন না ফলাফল?’



ভোটার কুশল দাস বললেন, নরেন্দ্র মোদি মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষজনকে নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে গেছেন। মতুয়া সম্প্রদায়ের যাঁরা এখনো ভারতীয় নাগরিকত্ব পাননি, তাঁদের মধ্যে তাঁর প্রভাব কিছুটা পড়তে পারে।



তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা মনে করছেন, এই আসনে এবার তীব্র লড়াই হবে। তাঁদের যুক্তি, এই আসনে তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব তীব্র। তৃণমূলের অনেক নেতা-কর্মী চাননি মতুয়া সম্প্রদায়ের আরেকজনকে এবার মনোনয়ন দেওয়া হোক। প্রথমত, তাঁরা চাইছিলেন, একজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই আসনে প্রার্থী করবেন। কিন্তু তাঁদের কথায় কান না দিয়ে মতুয়া সম্প্রদায়ের বড়মার বড় ছেলেকে প্রার্থী করা হয়। এতে মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষজন প্রকাশ্যে বিক্ষোভ করেছেন।



দ্বিতীয়ত, এই আসনেই লড়ছেন আরেক মতুয়া নেতা কে ডি বিশ্বাস। তিনি আবার এই মতুয়া মহাসংঘের সাধারণ সম্পাদক। ফলে মতুয়া সম্প্রদায়ের ভোট এবার বিভাজিত হবে বলেই ধরে নিয়েছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা।



তৃতীয়ত, এই আসনে এবার বামফ্রন্টের এক শক্তিশালী প্রার্থী হয়েছেন দেবেশ দাসও। তিনি বামফ্রন্ট আমলে পশ্চিমবঙ্গের তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী ছিলেন। আর কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছেন ইলা মণ্ডল। তিনি অবশ্য কংগ্রেস পরিবারের সদস্য। ফলে এই আসনে এবার লড়াই চতুর্মুখীই হচ্ছে।



রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকেরা মনে করছেন, তৃণমূলের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব, মতুয়া সম্প্রদায়ের ভোট ভাগাভাগিতে এবার বাড়তি সুবিধা পেতে পারেন বামফ্রন্ট প্রার্থী। কারণ, এই আসনে বামফ্রন্টও কম শক্তিশালী নয়। ২০০৯ সালের সর্বশেষ লোকসভা নির্বাচনে বামফ্রন্ট প্রার্থী অসীম বালা হেরেছিলেন ৯২ হাজার ৮২৬ ভোটে কংগ্রেস-তৃণমূল জোট প্রার্থী গোবিন্দ নস্করের কাছে। বামফ্রন্ট প্রার্থী পেয়েছিলেন চার লাখ ৫৩ হাজার ৭৭০ ভোট। আর বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণপদ মজুমদার পেয়েছিলেন ৪২ হাজার ৬১০ ভোট। তাই মনে করা হচ্ছে এই আসনে এবার তীব্র লড়াই অনিবার্য। কারণ, এবার আর কংগ্রেস তৃণমূলের নির্বাচনী জোট নেই। বিজেপিও লড়ছে আলাদাভাবে। মোদি হাওয়াও এখানে বইছে।

এ জাতীয় আরও খবর