বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সারদাকাণ্ডের তদন্ত নিয়ে অস্বস্তিতে মমতা

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট পশ্চিমবঙ্গের সারদাকাণ্ডের তদন্ত সিবিআইকে করার নির্দেশ দেওয়ায় বেশ অস্বস্তিতে পড়েছেন পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস এবং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সারদাকাণ্ডের তদন্ত সিবিআইকে দেওয়ার ব্যাপারে বিরোধিতা করে আসছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি সিবিআই তদন্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বারবার আপত্তি তোলা হয়েছে।

রাজ্য সরকারের দাবি ছিল, এই তদন্ত পশ্চিমবঙ্গ পুলিশের বিশেষ টিম দিয়ে করা হোক। এ জন্য রাজ্য সরকার স্পেশাল ইনভেস্টিগেশন টিম বা সিট গড়েও দিয়েছে। তারা সারদা-সংক্রান্ত মামলার তদন্ত করছেন। 

সুপ্রিম কোর্ট ১০ হাজার রুপির সারদা কেলেঙ্কারির তদন্ত  সিবিআইকে  দিয়েই করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এতে অস্বস্তিতে পড়েছে রাজ্য সরকার। শেষ দফার লোকসভা নির্বাচনের দুই দিন আগে সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ মমতাকে ভাবিয়ে তুলেছে। আগামী সোমবার শেষ দফায় পশ্চিমবঙ্গে লোকসভার ১৭টি আসনে ভোট নেওয়া হবে।

মমতার পদত্যাগ দাবি কংগ্রেস নেতা আবদুল মান্নানের

এদিকে সারদাকাণ্ড সিবিআইকে দিয়ে তদন্ত করানোর দাবিতে সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা মামলার আবেদনকারী ছিলেন কংগ্রেস নেতা আবদুল মান্নান। আদালতের সিদ্ধান্তে খুশি তিনি। 

গতকাল বিকেলে কলকাতা প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে আবদুল মান্নান বলেন, সারদা নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যবাসীকে প্রতারিত করেছেন, ‘তথ্য লোপাটের চেষ্টা করেছেন। এখন নৈতিকতার কারণে মুখ্যমন্ত্রীর আর ওই পদে থাকা উচিত নয়। তাই তাঁর এখনই পদত্যাগ করা উচিত।’ তিনি এ কথাও বলেন, ‘সারদাকাণ্ডের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী, তাঁর পরিবার ও দলের অনেকেই অভিযুক্ত। এবার আমাদের লক্ষ্য হবে সারদায় প্রতারিত ব্যক্তিদের টাকা কীভাবে ফিরিয়ে দেওয়া যায়, সে লক্ষ্যে কাজ করা।’

দুটি সেল খালি রাখতে বলেছেন বন্দী কুনাল ঘোষ

সারদাকাণ্ডে গ্রেপ্তার হওয়া তৃণমূলের রাজ্যসভার বহিষ্কৃত সদস্য (সাংসদ) কুনাল ঘোষ আদালতের নির্দেশে দারুণ খুশি। তিনি এখন কলকাতার দমদম কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দী। তিনিও বহুদিন ধরে সারদাকাণ্ড সিবিআইকে দিয়ে তদন্ত করার দাবি জানাচ্ছেন।

বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের খবরে জানানো হয়, কুনাল ঘোষ সুপ্রিম আদালতের নির্দেশ শোনার পর এক শীর্ষ কারা কর্মকর্তাকে তাঁর সেলের পাশে অন্তত আরও দুটি সেল খালি রাখতে বলেন। একই সঙ্গে  সেল দুটিতে সিসিটিভি বসাতে অনুরোধ করেন। কারণ, সেল দুটিতে শিগগিরই তৃণমূলের এক শীর্ষ নেতা এবং একজন মন্ত্রী আসবেন বলে দাবি করেন তিনি।

এ জাতীয় আরও খবর