সোমবার, ৩রা অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৮ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মির্জা ফখরুলের অভিযোগ খালেদাকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে মামলা স্থানান্তর

পূর্বনির্ধারিত পরিকল্পনা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে করা জিয়া অরফানেজ ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা দুটি বিশেষ জজ আদালতে স্থানান্তর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে মির্জা ফখরুল এ অভিযোগ করেন।

বিএনপির এই নেতা বলেন, খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখার পরিকল্পনার অংশ এটি। তিনি মামলাটি আগের আদালতে ফিরিয়ে নেওয়ার দাবি জানান।

গতকাল বুধবার আইন মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এখন এ দুটি মামলার বিচারকাজ চলবে ঢাকার বকশীবাজারে সরকারি আলিয়া মাদ্রাসাসংলগ্ন মাঠে স্থাপিত বিশেষ জজ আদালত-৩-এর অস্থায়ী এজলাসে। এত দিন এ দুটি মামলা পরিচালিত হয়েছে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালত ভবনে স্থাপিত এজলাসে।

একের পর এক অপহরণ, গুম ও খুনের ঘটনায় বিএনপিকে নারায়ণগঞ্জে সমাবেশ করতে না দেওয়ার তীব্র নিন্দা জানান ফখরুল। তিনি বলেন, এটি গণতন্ত্রের প্রতি একটি বড় আঘাত। নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত্ আইভী পুনরায় বিষয়টি ভেবে দেখবেন বলে আশা করেন ফখরুল।

১৪ মে ওই সমাবেশ করার অনুমতি চেয়ে গতকাল বুধবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন ও পুলিশ সুপারের কাছে চিঠি দেয় জেলা বিএনপি।

সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের পাশে সমাবেশের স্থানটি হওয়ায় বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি দেওয়া যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত্ আইভী।

আজকের সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা দাবি করেন, তাঁকে বিদেশ যেতে দেওয়ার ক্ষেত্রে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা থাকার পরও গতকাল তাঁকে বিমানবন্দর থেকে ফিরিয়ে দেওয়া হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা তাঁকে জানিয়েছেন ওপরের নির্দেশে এটি করা হয়েছে।

এদিকে নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় শুধু র্যাবের তিন কর্মকর্তার নয়, বরং স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও র্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের এই মামলায় আসামি করার দাবি জানান খোকা।

গতকাল রাত নয়টার দিকে সাদেক হোসেনকে হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বিদেশযাত্রা আটকে দেয় অভিবাসন পুলিশ। তিনি এমিরেটস এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে যাচ্ছিলেন। তাঁকে যথারীতি বিমান সংস্থা থেকে বোর্ডিং পাসও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে যাত্রায় বাধা দেয় পুলিশ।