শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে ব্যায়াম

dayabetis2_35493ডেস্ক রির্পোট : ডায়াবেটিস রোগ নিয়ে ভুগছে না এমন পরিবারের সংখ্যা দিনে দিনে কমে আসছে। আপনি যদি এমন পরিবারের সদস্য না হয়ে থাকেন তবে আপনি ভাগ্যবানদের একজন বলা যায়, কেননা এই ডায়াবেটিস ধীরে ধীরে শরীরের প্রধান প্রধান অঙ্গকে আক্রমণ করে।


আমাদের টার্গেট হবে যদি ডায়াবেটিস হয়েও যায়, তবুও রক্তে গ্লুকোজ-এর লেভেল মেইন্টেইন করে একে স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা। কেননা রক্তে গ্লুকোজ স্বাভাবিক থাকলেই আমরা ডায়াবেটিস দমিয়ে রাখতে পারবো।


শারীরিক ব্যায়াম এই ব্যাপারে খুব ভালো ভূমিকা পালন করে। যদি রেগুলার ব্যায়াম করা যায় তবে ডায়াবেটিসকে বেশ ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।


এখন প্রশ্ন হচ্ছে কিভাবে ব্যায়াম করা যেতে পারে, আর এটা কিভাবেই বা কাজ করে!


কিভাবে করা যেতে পারে:


প্রতিদিন সকাল বা বিকালে ৪৫ থেকে ৬০ মিনিট করে হাঁটা বা দৌড়ানো যেতে পারে। এই সহজ ব্যায়ামই সকল ডায়াবেটিক কপ্লিকেশনকে থামিয়ে রাখতে প্রধান ভূমিকা পালন করে।


কিভাবে কাজ করে:


ইনসুলিনের অভাবে রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে ঢুকতে পারে না। তাই রক্তে গ্লুকোজ-এর পরিমাণ বেড়ে যায়। রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে যেতে গ্লুট (GLUT) নামের সারফেস প্রোর্টিন কাজ করে, যার অনেকগুলো টাইপ রয়েছে এবং এর সবগুলো টাইপ কাজ করতে সরাসরি ইনসুলিনের এর উপর নির্ভরশীল। শুধু মাত্র গ্লুট ৪ (GLUT ৪) কাজ করে ব্যায়ামের মাধ্যমে। মানুষ যখন শারীরিক শ্রম করে তখন এই  গ্লুট ৪ এর মাধ্যমে রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে ঢুকে। এভাবেই ব্যায়ামের মাধ্যমে রক্তে গ্লুকোজ এর পরিমাণ কমে গিয়ে ডায়াবেটিস-এর কমপ্লিকেশান হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।


ডায়াবেটিস রোগ নিয়ে ভুগছে না এমন পরিবারের সংখ্যা দিনে দিনে কমে আসছে। আপনি যদি এমন পরিবারের সদস্য না হয়ে থাকেন তবে আপনি ভাগ্যবানদের একজন বলা যায়, কেননা এই ডায়াবেটিস ধীরে ধীরে শরীরের প্রধান প্রধান অঙ্গকে আক্রমণ করে।


আমাদের টার্গেট হবে যদি ডায়াবেটিস হয়েও যায়, তবুও রক্তে গ্লুকোজ-এর লেভেল মেইন্টেইন করে একে স্বাভাবিক রাখার চেষ্টা করা। কেননা রক্তে গ্লুকোজ স্বাভাবিক থাকলেই আমরা ডায়াবেটিস দমিয়ে রাখতে পারবো।


শারীরিক ব্যায়াম এই ব্যাপারে খুব ভালো ভূমিকা পালন করে। যদি রেগুলার ব্যায়াম করা যায় তবে ডায়াবেটিসকে বেশ ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণে রাখা সম্ভব।


এখন প্রশ্ন হচ্ছে কিভাবে ব্যায়াম করা যেতে পারে, আর এটা কিভাবেই বা কাজ করে!


কিভাবে করা যেতে পারে:

প্রতিদিন সকাল বা বিকালে ৪৫ থেকে ৬০ মিনিট করে হাঁটা বা দৌড়ানো যেতে পারে। এই সহজ ব্যায়ামই সকল ডায়াবেটিক কপ্লিকেশনকে থামিয়ে রাখতে প্রধান ভূমিকা পালন করে।

কিভাবে কাজ করে:


ইনসুলিনের অভাবে রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে ঢুকতে পারে না। তাই রক্তে গ্লুকোজ-এর পরিমাণ বেড়ে যায়। রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে যেতে গ্লুট (GLUT) নামের সারফেস প্রোর্টিন কাজ করে, যার অনেকগুলো টাইপ রয়েছে এবং এর সবগুলো টাইপ কাজ করতে সরাসরি ইনসুলিনের এর উপর নির্ভরশীল। শুধু মাত্র গ্লুট ৪ (GLUT ৪) কাজ করে ব্যায়ামের মাধ্যমে। মানুষ যখন শারীরিক শ্রম করে তখন এই  গ্লুট ৪ এর মাধ্যমে রক্তের গ্লুকোজ কোষের ভিতরে ঢুকে। এভাবেই ব্যায়ামের মাধ্যমে রক্তে গ্লুকোজ এর পরিমাণ কমে গিয়ে ডায়াবেটিস-এর কমপ্লিকেশান হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।


কিভাবে করতে হবে:


হাঁটা বা দৌড়ানোর ক্ষেত্রে ৫ মিনিট একটু জোরে যেতে হবে, পরবর্তী ৫ মিনিট একটু ধীরে অনেকটা স্বাভাবিক হাঁটার মতো। আবার পরবর্তী ৫ মিনিট জোরে, এভাবে ৪৫ থেকে ৬০ মিনিট নিয়মিত ব্য‍ায়াম করতে হবে।


হাঁটা বা দৌড়ানোর ক্ষেত্রে ৫ মিনিট একটু জোরে যেতে হবে, পরবর্তী ৫ মিনিট একটু ধীরে অনেকটা স্বাভাবিক হাঁটার মতো। আবার পরবর্তী ৫ মিনিট জোরে, এভাবে ৪৫ থেকে ৬০ মিনিট নিয়মিত ব্য‍ায়াম করতে হবে।