শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অল-মাদ্রিদ ফাইনাল

চলতি মৌসুমে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ ছুটছে যেন রুপকথার জন্ম দিতেই। চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে স্টামফোর্ড ব্রিজে চেলসিকে যেভাবে ১-৩ গোলে উড়িয়ে ৪০ বছর পর ফাইনালে পা রাখল ডিয়েগো সিমিওনের দল, তাতে বলাই যায়—এ অ্যাটলেটিকো অনন্য, এ অ্যাটলেটিকো দুরন্ত! এতে করে ২৪ মে লিসবনের ফাইনালে দেখা হচ্ছে নগর প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে। অর্থাত্ ‘অল-মাদ্রিদ ফাইনাল’।

ম্যাচের শুরুতে অবশ্য চেলসির দাপট ছিল লক্ষণীয়। ৩৬ মিনিটেই ফার্নান্দো তোরেস বল জড়িয়ে দেন অ্যাটলেটিকোর জালে। হোসে মরিনহোর দলের দুর্ভোগ অপেক্ষা করছিল ঠিক এরপরই। ৪৪ মিনিটে অ্যাটলেটিকোকে সমতায় ফেরান  আদ্রিয়ান লোপেজ। ১-১ সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দুদল। এ সমীকরণে অবশ্য মানসিকভাবে এগিয়েছিল সিমিওনের দলই। কেননা. অ্যাওয়ে গোলে তখনো এগিয়ে অ্যাটলেটিকোই। 

ফাইনালের পথ নিশ্চিত হয়েছে। গোলের পর তুরানের বাঁধনহারা উদযাপন। ছবি: রয়টার্স।এর ইতিবাচক প্রভাবই কি পড়ল দ্বিতীয়ার্ধে? ৬০ মিনিটেই পেনাল্টি থেকে গোল আদায়ে এতটুকু ভুল করলেন না সিমিওনের অন্যতম মূল অস্ত্র ডিয়েগো কস্তা। চ্যাম্পিয়নস লিগে এটি কস্তার অষ্টম গোল। মরিনহোর বুকে চূড়ান্ত শেল দাগলেন আরদা তুরান, ঠিক ৭২ মিনিটে। দুই লেগ মিলিয়ে চূড়ান্ত স্কোরলাইন চেলসি ১:৩ অ্যাটলেটিকো। বল দখলেও এগিয়ে  অ্যাটলেটিকো, ৫২ শতাংশ। 



অ্যাটলেটিকোর জয়ের মূল নায়ক কে—তা বের করতে হিমশিমই খেতে হবে। তবে আদ্রিয়ান, কস্তা, তুরানের সঙ্গে আরেকটি নামও বলতে হবে। তিনি কুর্তোয়া। অ্যাটলেটিকোর এ গোলরক্ষকের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সও চেলসির পরাজয়ে অনেকাংশে ‘দায়ী’!



স্টামফোর্ড ব্রিজকে ‘শোকের চাদরে’ ঢেকে চরম উল্লাসে মাতেন কস্তারা। সিমিওনের উদযাপন এতটাই বাধনহারা হলো, তাকে আটকানোর উপায় নেই! আসলে তো তাই! লা লিগায় অ্যাটলেটিকোর অবস্থান চূড়ায়। চ্যাম্পিয়নস লিগেও অভাবনীয় সাফল্য। ১৯৭৪ সালের পর দল ফাইনালে। অ্যাটলেটিকোকে ইউরোপের শ্রেষ্ঠত্ব এনে দিতে পারলে সিমিওনে হয়ে যাবেন ইতিহাসের অংশ। পারবেন তিনি অ্যাটলেটিকোর স্বপ্নসারথি হতে? লিসবনে অনুষ্ঠেয় মাদ্রিদ ডার্বিই মিমাংসা করে দেবে সব প্রশ্নের। ততদিন কেবল অপেক্ষা। 

এ জাতীয় আরও খবর