রবিবার, ২৬শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নাসার প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের অ্যাপস

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা—নাসার ‘ইন্টারন্যাশনাল স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ ২০১৪’ প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছে ডেটাসফট সিস্টেমস বাংলাদেশ লিমিটেডের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান মোবিওঅ্যাপের একটি দল। ১৮ ও ১৯ এপ্রিল নির্দিষ্ট ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে পাঁচটি মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন (অ্যাপ) তৈরি করে ইন্টারনেটের মাধ্যমে জমা দিয়েছে দলটি। পাঁচটি অ্যাপ প্রতিযোগিতার জন্য মনোনীত হয়েছে।

নাসার এ প্রতিযোগিতায় বিশ্বের ৯৫টি শহর থেকে একযোগে অ্যাপ তৈরি করে প্রতিযোগিতার জন্য জমা দেওয়া হয়। এই শহরগুলোর বাইরেও ইন্টারনেটের মাধ্যমে অ্যাপ জমা দেওয়ার সুযোগ ছিল। প্রতিযোগিতায় মোট আট হাজার ১৯৫ জন প্রতিযোগী ৬৭১টি প্রকল্প জমা দেন। আর্থওয়াচ, টেকনোলজি ইন স্পেস, হিউম্যান স্পেস ফ্লাইট, রোবটিকস ও অ্যাস্টেরয়েডস—এই পাঁচটি বিষয়ে পুরস্কার দেওয়া হবে এ প্রতিযোগিতায়।

মোবিওঅ্যাপের দলটিতে আছেন আটজন প্রোগ্রামার। তাঁরা হলেন ইমতিয়াজ হোসাইন, হাসানুর রহমান, ফজলে রাব্বি, ফাহিম আহমেদ, ফিদা মুনতাসির, মো. শরীফ উল ইসলাম, মামুনুল মজিদ ও রুবাইয়াৎ আলম। এ দলটি তৈরি করে আর্থগিক, ল্যান্ড স্লাইড ৩৬০, ইওর ওয়ার্ল্ড ফ্রম স্পেস, আর্টিস্টিক আর্থ এবং স্কাই এনভায়রনমেন্ট নামের পাঁচটি অ্যাপ। আর্থ গিক কুইজ-ধর্মী অ্যাপ। কৃত্রিম উপগ্রহ (স্যাটেলাইট) থেকে তোলা পৃথিবীর বিভিন্ন অঞ্চলের ছবি দেখিয়ে জানতে চাওয়া হবে এটা কোন অঞ্চলের। পৃথিবীর কোথায় ভূমিধসের আশঙ্কা আছে তা দেখাবে ল্যান্ড স্লাইড ৩৬০। তবে এর জন্য বিভিন্ন উৎস থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে হবে। এর মাধ্যমে বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ তাদের এলাকার তথ্য স্বয়ংক্রিয়ভাবে পাবে এবং চাইলে নিজে থেকেও ভূমিধসের তথ্য লিপিবদ্ধ করতে পারবে। ‘ইওর ওয়ার্ল্ড ফ্রম স্পেস’ মহাশূন্য থেকে তোলা পৃথিবীর বিভিন্ন ছবি দেখাবে। এসব ছবি ‘লাইক’ ও শেয়ার করা যাবে। ‘আর্টিস্টিক আর্থ’ অনেকটা একই ধরনের অ্যাপ, তবে এখানে ছবিগুলো বিভিন্ন শ্রেণীতে ভাগ করা থাকবে। যেকোনো জায়গা থেকে আকাশের ছবি তুলে রাখা যাবে ‘স্কাই এনভায়রনমেন্ট’ নামক অ্যাপে। আপলোড করা সর্বশেষ ১০টি ছবি অ্যাপের মূল পেজে প্রদর্শিত হবে।

ডেটাসফটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মঞ্জুর মাহমুদ বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় শক্তি হচ্ছে, আমরা খুব দ্রুত বিশ্বমানের সফটওয়্যার তৈরি করে ফেলতে পারি। সমস্যা একটাই, আমরা সাহস করে এগিয়ে যাই না। আমাদের উচিত যেকোনো আন্তর্জাতিক প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করা।