সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

এবার ইসির মামলার মুখে এরশাদ!

arshad-300x200দশম সংসদ নির্বাচনে লালমনিরহাট-১ আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে নির্বাচনী ব্যয় জমা দেননি তিনি। ওই আসনে পরাজিত হলেও রংপুর=৩ আসনে বিজয়ী হন তিনি।দশম সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের ৭ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নির্বাচনী ব্যয়ের বিবরণী সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দেয়ার কথা ছিল।

যারা জমা দেননি, সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এ বিষয়ে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে ব্যবস্থা নিয়ে জানাতে বলেছে নির্বাচন কমিশন।

লালমনিরহাটের জেলা প্রশাসক ও ওই আসনের রিটার্নিং কর্মকর্তা হাবিবুর রহমান রোববার বলেন, “জাপা চেয়ারম্যানের লালমনিরহাট-১ আসনের ব্যয়ের রিটার্ন আমাদের অফিস পায়নি। তার বিরুদ্ধে মামলার সময় এখনো রয়েছে।

“কেন তিনি সময়মতো তা জমা দেননি, তার যৌক্তিক ব্যাখ্যা না পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, নির্ধারিত সময়ে ব্যয়ের খতিয়ান জমা না দিলে দুই থেকে সাত বছরের কারাদণ্ড হবে।রংপুর-৩ আসনে এরশাদের নির্বাচনী ব্যয় হয়েছে ৩৮ হাজার ৫০০ টাকা, যার হিসাব রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে জমা দিয়েছেন তিনি।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব (নির্বাচন পরিচালনা) মিহির সারওয়ার মোর্শেদ বলেন, “যারা রিটার্ন জমা দেয়নি, তাদের ব্যাখ্যা নেয়ার কোনো অবকাশ নেই। তাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হবে।”তিনি জানান, ব্যয়ের হিসাব না দেয়ায় নবম সংসদ নির্বাচনের প্রায় ৫০ জন প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এসব মামলা এখনো চলছে।

৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে বিএনপি অংশ না নেয়ার পর কয়েকবার সিদ্ধান্ত বদলে এক পর্যায়ে এরশাদও ভোটে অংশ না নেয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন।ওই ঘোষণা দেয়ার পর নাটকীয় অসুস্থতা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। তার আগে রংপুর-৩, লালমনিরহাট-১ ও ঢাকা-১৭ আসনে তার পক্ষে মনোনয়ন দাখিল হয়।

ভোটের আগে সবগুলো আসনে তিনি মনোনয়ন প্রত্যাহারের আবেদন করলেও ঢাকারটি বাদে অন্য দুটির ক্ষেত্রে আবেদন বিধিসম্মত হয়নি জানিয়ে তা নেয়নি ইসি।এরপর হাসপাতালে থেকেই রংপুর-৩ আসনে ভোটে জয়ী হন এরশাদ। তার দল জাতীয় পার্টি বিএনপির অনুপস্থিতিতে দ্বিতীয় বৃহত্তম দল হিসেবে আবির্ভূত হয়ে সংসদে বিরোধী দলের আসনেও বসে।

নানা গুঞ্জনের মধ্যে এরশাদ সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেয়ার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ দূতের দায়িত্বও গ্রহণ করেন।

নিজের গড়া দলের মধ্যে দৃশ্যত কোনঠাসা এরশাদের বিরুদ্ধে আরো মামলা বিচারাধীন। মেজর জেনারেল আবুল মঞ্জুর হত্যা মামলা এবং রাডার কেনায় দুর্নীতি মামলার বিচার প্রায় শেষ পর্যায়ে।