শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অলৌকিক সেই খেজুরগাছটি আর নেই!

khajorসাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার নলতার কাশিবাটি গ্রামের অলৌকিক খেজুরগাছটি শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে কেটে ফেলা হয়েছে। 

রোববার সকালে দূরদূরান্ত থেকে আসা শত শত মানুষ অলৌকিক খেজুরগাছটি দেখতে না পেয়ে হতাশা নিয়ে ফিরে গেছেন। কারণ শনিবার রাতে পুলিশের হস্তক্ষেপে গাছটি কেটে ফেলা হয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, ২০-২৫ দিন আগে খেজুরগাছটির পুকুরের পানিতে ওঠা-নামার বিষয়টি মানুষের চোখে পড়ে। ঘটনাটি চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে এ দৃশ্য দেখার জন্য মানুষ ভিড় করতে থাকে।

আগত লোকজন যে পুকুরপাড়ে গাছটির অবস্থান ওই পুকুরের পানি পান করা শুরু করেন। লোকমুখে কথা ওঠে, এ পানি পান করলে নাকি রোগ মুক্তি হচ্ছে। এক পর্যায়ে এর সঙ্গে ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রসঙ্গটি জড়িয়ে যায়। স্থানীয় লোকজন খুশি হয়ে ওই স্থানে ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করেন। মাহফিলে নলতা ঘোড়াপোতার মাওলানা আদর আলীর ছেলে হাবিবুর রহমান হাবিব বক্তব্য রাখেন।

হাবিবুর রহমানের বক্তব্য নিয়ে বিপত্তির সৃষ্টি হয়। তিনি রাজনৈতিক বক্তব্য দিয়ে লোকজনকে উত্তেজিত করেন। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দেন। পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। কিন্তু এ বিশৃঙ্খলার ফলেই মূলত গাছটি কেটে ফেলা হয়েছে।

এ খেজুর গাছকে কেন্দ্র করে পরবর্তী সময়ে বড় ধরনের সহিংসতা হতে পারে- এমন আশঙ্কায় পুলিশের সহায়তায় স্থানীয় লোকজন খেজুরগাছটি শনিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে কেটে নিয়ে যান।
 
এদিকে, গাছটি কেটে ফেলায় অসাধু কিছু লোকের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হলেও স্বস্তির নিঃশ্বাস ফিরে এসেছে অসংখ্য পরিবারের মাঝে। কারণ এ গাছটি দেখতে আসা আত্মীয়-স্বজন নিয়ে বেশ ঝামেলায় ছিলেন স্থানীয়রা। কয়েকটি পরিবারের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য জানা গেছে।

উল্লেখ্য, অবিশ্বাস্য হলেও স্থানীয়দের ভাষ্য অনুযায়ী ঘটনাটি সত্যি। প্রতিদিন রাত ১২টার পর থেকে দুপুর দেড়টার মধ্যে আস্তে আস্তে পুকুরের পানির মধ্যে ৫-৬ ফুট পরিমাণ নিচে খেজুরগাছটির মাথা নুয়ে পড়ত এবং বেলা দেড়টার পর থেকে আবারও ধীরে ধীরে গাছটি রাত ১২টার মধ্যে সোজা হয়ে দাঁড়াত। 

এক পর্যায়ে বাঁশের চটা দিয়ে পুকুরপাড়ের চারপাশ ঘিরে দেয় কর্তৃপক্ষ। প্রচুর মানুষের সমাগম হতো প্রতিদিন। এ নিয়ে সুযোগ সন্ধানী কিছু মানুষ ব্যবসা খুলে বসেন।

অলৌকিক খেজুরগাছের বিষয়টি অনলাইন প্রকাশিত হওয়ার পরে তা দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়ে। এরপর থেকে কৌতূহলী মানুষ গাছটি দেখার জন্য ভিড় করতে থাকে।  

খেজুরগাছ ও পুকুরের মালিক নজরুল ইসলাম রাইজিংবিডির কাছে পুলিশের সহায়তায় গাছটি কেটে ফেলার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

আমাদের প্রতিবেদক জানিয়েছে, গাছটি কেটে নিয়ে যাওয়ার সময় পথি মধ্যে লোকজন ঘিরে ধরে যে যার মতো ছিনিয়ে নিয়ে যান। 
 

 

এ জাতীয় আরও খবর