বৃহস্পতিবার, ৩০শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

যশোরে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪২.৪ ডিগ্রি

Tampমাত্রাতিরিক্ত গরমে জনজীবনে নেমে এসেছে স্থবিরতা।  অসুস্থ হয়ে পড়ছেন বৃদ্ধ ও শিশুরা। তীব্র তাপদাহে পুড়ছে দক্ষিণ-পশ্চিমের জনপদ। বৃহস্পতিবার যশোরের তাপমাত্রা ওঠে ৪২ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

যশোরের মতিউর বিমানঘাঁটির আবহাওয়া দফতর থেকে জানানো হয়েছে, এক সপ্তাহ ধরে যশোরের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ওপরে। মঙ্গলবার এ জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪০.৪ ডিগ্রি। বুধবার তা বেড়ে দাঁড়ায় ৪১.৬ ডিগ্রিতে। আর বৃহস্পতিবার দুপুরে তাপমাত্রা ওঠে ৪২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। এ তাপমাত্রা শুধু যশোর নয়, গত ৪-৫ বছরের মধ্যে দেশের সর্বোচ্চ বলে জানিয়েছে আবহাওয়া দফতরটি।

এক সপ্তাহ ধরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির ওপরে থাকায় জনজীবনে স্থবিরতা নেমে এসেছে। সকাল ১০টার পর থেকে তাপ বাড়ছে দ্রুত। বাতাস অস্বাভাবিক গরম। যেন লু হাওয়া বইছে। ফলে দিনের অধিকাংশ সময় রাস্তাঘাট থাকছে অস্বাভাবিক ফাঁকা। নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া মানুষজন রাস্তায় বেরুচ্ছেন না। দু’একদিনের মধ্যে ঝড়-বৃষ্টির কোনো লক্ষণ নেই বলে জানিয়েছে যশোর আবহাওয়া দফতর।

অন্যদিকে টানা খরার কারণে যশোরসহ দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের বেশিরভাগ স্থানে নলকূপে পানি উঠছে না। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর নেমে গেছে অনেক নিচে। ফলে দেখা দিয়েছে পানীয় জলের সংকট। এখন মানুষের কাছে পানীয় জলের একমাত্র ভরসা পৌরসভার গভীর নলকূপগুলো। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত মানুষকে রাস্তার ধারে পানির জন্য নলকূপের সামনে লাইনে দাঁড়াতে দেখা যাচ্ছে।

উল্লেখ্য, ফারাক্কা বাঁধের কারণে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের নদ-নদীগুলো অনেক আগেই শুকিয়ে গেছে। প্রাকৃতিক জলাধারগুলোতে পানির প্রবাহ না থাকায় বোরো চাষ এখন পুরোপুরি ভূগর্ভস্থ পানির ওপর নির্ভরশীল। বিপুল পরিমাণ পানি মাটির নিচ থেকে ওঠানোর কারণে পানির স্তর দ্রুত নিচে নেমে যাচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর