বৃহস্পতিবার, ২৯শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি : বিশ্বের ভয়াবহতম শিল্প দুর্যোগের ১ বছর

rana Plazaরাজধানীর অদূরে সাভারে নয় তলা ভবন রানা প্লাজা ধসের আজ এক বছর পূর্ণ হলো। ওই ধসের ঘটনায় এগারশ'র বেশি শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছে। যাদের বেশির ভাগই ছিলেন তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক। বিশ্বের ইতিহাসের ভয়াবহতম শিল্প দুর্যোগের একটি হিসেবে এরই মধ্যে ইতিহাসে জায়গা করে নিয়েছে ওই দুর্ঘটনা।

এ দুর্ঘটনায় যারা  ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেছেন তারাও দুঃসহ জীবন যাপন করছেন। ২০ দিনের উদ্ধার তৎপরতায় রানা প্লাজার ধ্বংসস্তুপ থেকে জীবিত অবস্থায় বের করে আনা হয় দুই হাজার ৪৩৮ জনকে। যাদের অনেকেই চিরতরে পঙ্গুত্ব বরণ করেন। এক হাজার ১১৭ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১৯ জন মারা যান। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় এক হাজার ১৩৬ জনে।

১০মে ২০১৩, শুক্রবার। রানা প্লাজা ধসে পড়ার ১৭তম দিনে ধ্বংসস্তুপ থেকে জীবিত ও অক্ষত অবস্থায় বের করে আনা হয় রেশমা বেগমকে। এ ঘটনা দুনিয়াজুড়ে বিস্ময় সৃষ্টি করে।

যেদিন রানা প্লাজা ভেঙ্গে পড়ে তার আগের দিনই ভবনটিতে ফাটল দেখা দিয়েছিল। ওই ফাটল বিষয় অগ্রাহ্য করেই পরের দিন ভবনটির পাঁচটি পোশাক কারখানায় শ্রমিকদের কাজে ফিরতে বাধ্য করা হয়।

ভবনটির তৃতীয় তলা থেকে শুরু হয়ে নবমতলা পর্যন্ত ছিল পাঁচটি তৈরি পোশাক কারখানা। নিচতলা ও দোতলায় শপিং মল। ২৭০টি দোকান। সেই সাথে বেসরকারি ব্র্যাক ব্যাংকের একটি শাখা।

রানা প্লাজা ধসের আগের দিন ২৩ এপ্রিল মঙ্গলবার সকাল থেকেই চলছিল বিরোধী জোটের টানা দু’দিনের হরতাল। হরতালের আওতামুক্ত শিল্প হিসেবে তৈরি পোশাক শ্রমিকদের পদচারণা শুরু হয়েছে সাভারে। সকাল পৌনে দশটায় তৃতীয় তলার একটি পিলারে হঠাৎ চড়চড় করে শব্দ হলো। একটি সেলাই মেশিনের ওপর সশব্দে খসে পড়লো দেয়ালের প্লাস্টার। আতঙ্কে ছোটাছুটি শুরু করলো শ্রমিকেরা।

ঐ দিন রানা প্লাজার ভেতরে নিজের কার্যালয়ে বসেই একুশে টেলিভিশনকে সাক্ষাৎকার দেন সোহেল রানা।

সাক্ষাৎকারে সোহেল রানা বলেন, পিলারের ওখান থেকে চুল পরিমাণ প্লাস্টার খসে পড়েছে। মানুষ তিলকে তাল বানাচ্ছে। আমরা ইঞ্জিনিয়ার সাথে নিয়ে দেখে এসেছি। ইঞ্জিনিয়ার বলেছে এটা ঝুঁকিপূর্ণ না। দু'একদিনের মধ্যেই প্লাস্টার ঠিক করে ফেলা হবে।

২৪ এপ্রিল ২০১৩, বুধবার সকাল আটটা : দ্বিতীয় দিনের মতো হরতাল চলছে। রানা প্লাজার শপিং মলের সব দোকান বন্ধ। বন্ধ ব্র্যাক ব্যাংকের শাখাটিও। শুধু পাঁচটি পোশাক কারখানার শ্রমিক-কর্মচারীরা ভবনের সামনে ইতস্ত ঘোরাঘুরি করছে। আশপাশে মাইকে ঘোষণা দিয়ে বলা হচ্ছে শ্রমিকদের কাজে যোগ দিতে।

সকাল আটটা সাতচল্লিশ : শ্রমিকেরা ঢুকে পড়েছে রানা প্লাজায়। তৃতীয় তলা থেকে নবমতলা, সবগুলো ফ্লোরেই শুরু হয়ে গেছে কাজ। নয়টা বাজার তের মিনিট বাকী আছে। বিল্ডিংটা একটা মোচড় খেয়ে হঠাৎ করে তিন সেকেন্ডের মধ্যে পড়ে গেল। তারপর ধুলায় অন্ধকার হয়ে গেল। শুরু হয় ভেতর থেকে প্রাণ নিয়ে বেরিয়ে আসতে শ্রমিকদের আর্তচিৎকার। ওই সময় মোবাইল ফোনের ক্যামেরায় সেই চিত্র ধারণ করেন একজন পথচারী। ভিডিওটি পরবর্তীতে বাংলাদেশের বেসরকারি স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল সময় টেলিভিশনে প্রচারিত হয়।

এর পরের ঘটনাগুলো দ্রুতই ঘটতে থাকে। উদ্ধার অভিযানের নেতৃত্বে চলে আসে সেনাবাহিনী। তাদের সাথে দমকল, পুলিশ ও বহু অপেশাদার স্বেচ্ছাসেবক। একের পর এক বের হতে থাকে মৃতদেহ। আহতদের জায়গা হতে থাকে রানা প্লাজার অদূরের বেসরকারি হাসপাতাল এনাম মেডিকেল কলেজে। আর নিহতদের স্থান হয় অধরচন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয়ের বারান্দায়। প্রতিদিনই বাড়তে থাকে লাশের স্তুপ। আর কমতে থাকে জীবিতদের উদ্ধারের আশা।

৮ম তলায় কাজ করতেন হৃদয় বর্তমানে তিনি মানসিক হাসপাতালে আছেন। তিনি শীর্ষ নিউজকে বলেন, ঐ দিন ৮ম তলার নিউ ওয়েব স্টাইলে কাজ করছিলেন। হঠাৎ তার মাথায় একটি ভিম আচরে পড়ে। তিনি ভিমের নিচে চাপা পড়ে যান। মাথায় প্রচ- আঘাত পান তিনি।

নিউ ওয়েভ বটমসের ফ্লোরে মাইকিং করে বলা হয়েছিল, ভবনটি তের তলা ফাউন্ডেশন। কেবল নয় তলা হয়েছে। আতঙ্কিত হবার কোনও কারণ নাই । আর যদি কোনো দুর্ঘটনা দেখা দেয়, আমাদের কমপ্লায়েন্সের লোক আছে চারদিকে, তোমাদের দ্রুত বের হয়ে যাবার ব্যবস্থা করা হবে।

১৩ মে ২০১৩, সোমবার : উদ্ধার তৎপরতায় সেনাবাহিনী, দমকল ও পুলিশের সাথে যোগ দিয়েছিল বহু অপেশাদার স্বেচ্ছাসেবক। রেশমা বেগমকে উদ্ধারের তিনদিন পর সেনাবাহিনী আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে রানা প্লাজায় উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত করে।

এ ঘটনায় ঢাকার জেলা প্রশাসক অফিসে রক্ষিত হিসাব অনুযায়ী, রানা প্লাজার ধ্বংসস্তুপ থেকে দুই হাজার ৪৩৮ জনকে জীবিত এবং এক হাজার ১১৭ জনকে মৃত উদ্ধার করা হয়। পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও ১৯ জন মারা যান। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় এক হাজার ১৩৬ জনে।

সর্বশেষ গত ১২ ফেব্রুয়ারি পাবনার বেড়ায় রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় আহত শ্রমিক আব্দুস সোবহান মারা যান। ৮৪৪ জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ডিএনএ নমুনা রেখে ২৯১ জনের অসনাক্তকৃত লাশ রাজধানীর জুরাইন কবরস্থানে দাফন করা হয়। অসনাক্তকৃত মরদেহের মধ্যে পুরুষ ৫৫ জন এবং মহিলা ২৩৬ জন। পরে ১৮৬ জন শ্রমিকের লাশের ডিএনএ টেস্ট মেলানো সম্ভব হয়। এখনো ১০৫ জন শ্রমিকের লাশের ডিএনএ স্যাম্পল মেলানো সম্ভব হয়নি। তাদেরকে নিখোঁজ ও অসনাক্ত বলে দেখানো হচ্ছে।

এছাড়া এক হাজার পাঁচশ’ ২৪ জন আহত হন। তাদের মধ্যে গুরুতর আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন এমন আহতের সংখ্যা ৭৮ জন।

সরকার তাৎক্ষণিকভাবে নিহতের লাশ দাফনের জন্য প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকার করে ৮৪৪ জনকে ১ কোটি ৬৮ লাখ ৮০ হাজার টাকা প্রদান করে। এছাড়া আহতদের চিকিৎসার জন্যও ৫ হাজার টাকা করে দেয় সরকার।

 



শীর্ষ নিউজ

এ জাতীয় আরও খবর

সীমান্তে কাউকে ঢুকতে দেব না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

করোনায় আরও ২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬৭৯

২ বাংলাদেশিকে অপহরণ করেছে ‘রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা’

রাজনীতিতে কালো মেঘ দেখা যাচ্ছে: পরিকল্পনামন্ত্রী

অবসরের পরও অস্ত্রধারী পুলিশের নিরাপত্তা পাবেন বেনজীর

লাঠির সঙ্গে জাতীয় পতাকা নিয়ে নামলে খবর আছে: ওবায়দুল কাদের

ব্রিটেনের রানির মৃত্যুর কারণ প্রকাশ

২ বছর আগেই ছেলের মা হন বুবলী, বাবা শাকিব

‘জবাবদিহির আওতায় না আনা পর্যন্ত র‌্যাবের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা থাকবে’

সালমান-ভীতি; নায়ক :জারিন খান

গৃহকর্মীদের জীবন নিরাপদ করতে উদ্যোগ নেবে সরকার: পরিকল্পনামন্ত্রী

‘সালমানের জন্য ওটিটি নয়, তিনি বড় পর্দার মানুষ’