শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিদ্যুৎ-পানির জন্য হাহাকার

paniসূর্য যেন উগড়ে দিচ্ছে তার সব তেজ। আর এতে রাজধানীসহ গোটা দেশ হাঁসফাঁস। এ অবস্থাকে আরও ভয়াবহ করে তুলেছে পানি ও বিদ্যুৎ সমস্যা। সরকার ঘটা করে বিদ্যুৎ সমস্যা সমাধানের ঘোষণা দিলেও বাস্তবে তার কোনো প্রভাব নেই। দিন-রাত মিলে কতবার যে লোডশেডিং হচ্ছে তার কোনো এন্তার নেই। প্রচণ্ড গরমে বিদ্যুৎহীন অবস্থায় বাড়িতে থাকাই দুষ্কর হয়ে পড়েছে লোকজনের। বিশেষ করে সমস্যায় পড়েছে গৃহিণী ও শিশুরা। অন্যদিকে পানি সংকটে রাজধানীর নাগরিক জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। অনেক এলাকায় ঢাকা ওয়াসার সরবরাহকৃত পানি পাওয়া যাচ্ছে না। আবার অনেক এলাকায় পানি পাওয়া গেলেও তা ঘোলা ও দুর্গন্ধময়। তবে ওয়াসা বরাবরের মতোই দাবি করছে, রাজধানীতে পানির কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু ফার্মগেট, মগবাজার, মিরপুর-২, মোহাম্মদপুর, কল্যাণপুরসহ রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে পানি সংকটে বাসিন্দাদের নাকাল হতে দেখা গেছে। ফার্মগেটের পূর্ব রাজাবাজার এলাকার বাসিন্দা মমতাজ বেগম, রিনা আক্তার, সবুজ মিয়াসহ কয়েকজন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে জানান, ১৫ দিন ধরে বাসায় ঠিকমতো পানি নেই। ফলে ওয়াসার গাড়ি থেকে পানি নেওয়ার জন্য দীর্ঘ লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। তারা জানান, ওয়াসার গাড়ি থেকে যে দুই-তিন কলস পানি পাওয়া যায়, তা দিয়ে দৈনন্দিন কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হয় না। এদিকে ওয়াসার অভিযোগ শাখায় প্রতিদিন মিরপুর, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, পীরেরবাগ, কাফরুল, পল্লবী, রূপনগর, পশ্চিম ধানমন্ডি, মধুবাজার, রায়েরবাজার, ট্যানারি মোড়, জুরাইন পাইপ রাস্তা, মিরহাজীরবাগ, দোলাইরপাড়, পোস্তগোলা, গোপীবাগ, শান্তিবাগ, গুলবাগ, শাহজাহানপুর, ইংলিশ রোড, মালিটোলা, জিন্দাবাহার লেন, বংশালের হাজী আবদুল্লাহ লেন, নবাব ইউসুফ রোড, আজিমপুর নিউ পল্টন, আগামাসিহ লেন, আগাসাদেক রোড, সিদ্দিকবাজার, ইব্রাহিমপুর, খিলক্ষেতসহ অনেক এলাকা থেকে অভিযোগ আসছে বলে জানা গেছে।

পানি সংকটকে পুঁজি করে ওয়াসার একশ্রেণীর কর্মচারী মোটা অংকের টাকায় পানি বিক্রি করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সরকারিভাবে এক গাড়ি পানির দাম ২০০ টাকা হলেও পানির লরির চালকরা সেই পানি ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি করছে। বাড়তি টাকা না দিলে তারা নানা অজুহাতে সময়মতো পানি সরবরাহ করছে না বলেও অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। তবে ঢাকা ওয়াসার জনতথ্য বিভাগ দাবি করেছে, বর্তমানে ঢাকা শহরে কোনো ধরনের পানির সমস্যা নেই। ঢাকা ওয়াসার জনতথ্য বিভাগের উপ-প্রধান জাকারিয়া আল মাহমুদ বলেন, ‘বর্তমানে ঢাকা ওয়াসা ৬৭০টি গভীর নলকূপ ও ৪টি পানি শোধনাগারের মাধ্যমে দৈনিক ২২৫ কোটি লিটার পানির চাহিদার বিপরীতে গড়ে ২৪২ কোটি লিটার পানি উৎপাদন করছে।’ সেক্ষেত্রে পানির সমস্যা থাকার কোনো কারণ নেই। এক প্রশ্নের জবাবে জাকারিয়া মাহমুদ বলেন, ‘অনেক সময় কোনো কোনো এলাকায় বৈদ্যুতিক পাম্প নষ্ট হয়ে যায়। সেগুলো মেরামত করতে ২-১ দিন সময় লাগে। একই সঙ্গে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের কারণেও সাময়িক সময়ের জন্য পানির সমস্যা দেখা দেয়।’

এদিকে গরম শুরুর সঙ্গেই পাল্লা দিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় শুরু হয়েছে লোডশেডিংয়ের যন্ত্রণা। রাজধানীতে অনেক এলাকায় এক ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকলে দেখা যাচ্ছে পরের দুই ঘণ্টা বিদ্যুৎ নেই। অথচ সেচকাজসহ গরমে বিদ্যুৎ সংকট এড়াতে এবং বিদ্যুৎ চাহিদা মেটাতে দেশের সার কারখানাগুলোতে গ্যাস সরবরাহ বন্ধ আছে। সরকারি হিসাবে ৩০ মার্চ সর্বাধিক রেকর্ড পরিমাণ সাত হাজার ৩৫৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হয়। কিন্তু তার উপকার পাচ্ছেন না গ্রাহকরা। আর লোডশেডিং ও তীব্র গরমে এখন দুর্ভোগে পড়েছেন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী, কৃষক ও শিল্প কারখানার মালিকসহ সারা দেশের বিদ্যুতের গ্রাহকরা। ক্ষুব্ধ গ্রাহকদের অনেকেরই প্রশ্ন, সরকার এত বিদ্যুৎ উৎপাদনের কথা বলছে, আলোক-উৎসব করছে অথচ লোডশেডিং ঠেকিয়ে রাখা যাচ্ছে না, তাহলে এত বিদ্যুৎ যাচ্ছে কোথায়? খোঁজ নিয়ে জানা যায়, আপাতত শহরাঞ্চলে লোডশেডিং সহনীয় পর্যায়ে (ক্ষেত্রবিশেষে এলাকাভেদে এক থেকে দুই ঘণ্টা) হলেও গ্রামাঞ্চলে পরিস্থিতি বেশি খারাপ। রাজধানী ঢাকার বাইরে বিভিন্ন বিভাগীয় শহর ও গ্রামের কোথাও কোথাও তিন থেকে চার ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং হচ্ছে। লোডশেডিং সংক্রান্ত এ দৃশ্যের সঙ্গে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) হিসাবে অমিল রয়েছে। পিডিবি দেশে ‘শূন্য লোডশেডিং’-এর কথা উল্লেখ করছে। কিছু দিন আগেই বিদ্যুৎ, খনিজ ও জ্বালানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু জানিয়েছিলেন, দেশে এখন এক সেকেন্ডের জন্যও লোডশেডিং নেই। তবে ভুক্তভোগী গ্রাহকরা বলছেন ভিন্ন কথা। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রাজধানীর পুরান ঢাকা, ধানমণ্ডি, যাত্রাবাড়ী, পান্থপথ, গুলিস্তান, ডেমরা, আজিমপুর, রামপুরা, বনশ্রী, মোহাম্মদপুর, মিরপুর, কল্যাণপুরসহ বিভিন্ন এলাকার বাসিন্দারা দিনে কমপক্ষে চারবার লোডশেডিংয়ের মুখোমুখি হচ্ছেন। ঢাকার বাইরে চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, রাজশাহী, খুলনা, কুষ্টিয়া, গাইবান্ধা, মাদারীপুরে বিদ্যুৎ স্বল্পতা দেখা দিয়েছে। ঢাকা পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির সাতমসজিদ রোডের কন্ট্রোল রুমে ২০ এপ্রিল যোগাযোগ করা হলে দায়িত্বরত কর্মকর্তা বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন বলেন, মূলত যান্ত্রিক ত্রুটির কারণেই এ এলাকায় ৫-১০ মিনিট করে একাধিকবার লোডশেডিং হচ্ছে। ক্ষণে ক্ষণে লোডশেডিংয়ের অভিযোগের ব্যাপারে পিডিবি বলছে, তারা চাহিদা অনুযায়ী বিদ্যুৎ সরবরাহ করছে কিন্তু তারপরও দেশের বিভিন্ন জায়গায় কয়েক দিন ধরে বিদ্যুৎ সমস্যা হচ্ছে। পিডিবির কর্মকর্তাদের মতে, স্থানীয় বিদ্যুৎ বিতরণকারী সংস্থাগুলো বেশি চাহিদার কারণে অত্যধিক গরম হয়ে যাচ্ছে। এ জন্য এগুলো ঠাণ্ডা করতে বিদ্যুৎ সরবরাহকারী সাব-স্টেশন বন্ধ রাখতে হচ্ছে। ডেসকো, পিডিবি এবং পল্লী উন্নয়ন বোর্ড অতিরিক্ত চাপে যে কোনো ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে তাদের সাব-স্টেশনগুলো বন্ধ রাখায় লোডশেডিং হচ্ছে।

এ জাতীয় আরও খবর