বুধবার, ৫ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিষিদ্ধ হচ্ছে ৬০০ হজ্ব এজেন্সি !

hajএ বছর হজ্ব কার্যক্রম চালাতে পারবে না দেশের প্রায় অর্ধেক হজ্ব এজেন্সি। মানব পাচারসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছে এসব প্রতিষ্ঠান। সূত্র জানায়, বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে এরইমধ্যে অšত্মত: ৬০০ হজ্ব এজেন্সির বিরুদ্ধে তদšত্ম শুরু হয়েছে। হজ্ব মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান বজলুল হক হারুন বলেন, নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে যুক্ত এসব হজ্ব এজেন্সির বিরুদ্ধে হয়তো শিগগিরই মামলা শুরু হবে।
 বজলুর হক বলেন, এরই মধ্যে যুগ্ম সচিবের নেতৃত্বে এ ব্যাপারে একটি বিশেষ কমিটি গঠন করা হয়েছে যারা হজ্ব এজেন্সিগুলোর অনিয়মের অভিযোগ খতিয়ে দেখছে। সৌদি আরবে বাংলাদেশের হজ্ব মিশন এবং ধর্ম মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী গত বছর প্রায় ৩০০ হাজী দেশে ফিরে নি।
 যদিও হজ্ব এজেন্সিস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ হাব এর সভাপতি মোহাম্মদ ইব্রাহিম বাহার দাবি করেছেন, অনিয়মের অভিযোগে এ বছর যেসব হজ্ব এজেন্সির বিরুদ্ধে বিধিনিষেধ আরোপ হতে পারে তার সংখ্যা ১৪৮ এর বেশি হবে না। তিনি বলেন, দেশে বতর্মানে প্রায় ১ হাজার ১৫০ টি সরকার নিবন্ধিত হজ্ব এজেন্সি রয়েছে।
 বাহার আরো বলেন, সৌদি সরকার মানব পাচারসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে ৪৬ টি বাংলাদেশি হজ্ব এজেন্সির কর্মকর্তাদের তলব করলেও আমাদের মন্ত্রণালয় এসব অনিয়মের অভিযোগে ১৪৮ টি এজেন্সির কর্মকর্তাদের তলব করেছে।
 হজ্ব মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় কমিটির বৈঠকে হজ্বের নামে  রোহিঙ্গাদের সৌদি আরবে পাচার করা বন্ধ করতে সকল হজ্ব এজেন্সিকে কঠোর নজরদারির আওতায় আনার সুপারিশ করা হয়।
 হজ্ব মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান বলেন, কিছু হজ্ব এজেন্সির অসাধু কর্মকর্তার সহায়তায় প্রতিবছরই অন্যান্য বাংলাদেশিদের সাথে কিছু  রোহিঙ্গা হজ্ব ভিসা নিয়ে সৌদি আরবে প্রবেশ করে আর ফিরে আসে না।
 এ অবস্থায় আসছে হজ্ব মওসুমে হজ্ব ভিসা ব্যবহার করে কেউ যাতে সরকারের সাথে প্রতারণা করতে না পারে সেজন্য সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের আরো সতর্ক থাকার পরামর্শ দেন তিনি।