শনিবার, ২৫শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

খাদ্যে বিষ মিশানোতে হতভম্ব মানুষ, আইনের প্রয়োগ নেই

tyititit বাংলাদেশের কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে তরমুজ খাবার পর ২ শিশু অসুস্থ হয়ে মারা গিয়েছে বলে জানা গিয়েছে। গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে আছে আরও বেশ কয়েকজন। আসংকা করা হচ্ছে তরমুজে কোন বিষাক্ত রাসায়নিক মিশানো থাকার কারনেই এ অবস্থা হয়েছে তবে নিশ্চিত কোন প্রমাণ নেই যে তরমুজের কারনেই এমনটি হয়েছে।

 উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সালেহা আক্তার জানাচ্ছেন, অভিযান চালিয়ে তরমুজ বিক্রিয় করে যারা তাদের কয়েকজনকে আটক করে তাদের মালামাল জব্দ করে রাসায়নিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে।
এ বিষয়ে লিভার বিশেষজ্ঞ ডাক্তার মুবিন খানের সাথে কথা বলে বিবিসির সংবাদ দাতা।
 মুবিন খান বলেন বাংলাদেশের মাছ, মাংস, ফলমূল, পানিতে বিভিন্ন কারনে ভেজাল হয়ে থাকে। এখন গ্রিষ্ম কাল ফলের মৌসুম। এই মৌসুমে ফরমালিন ও নানা রকম ক্যামিকেল মিশিয়ে ফলমূলকে প্রিসার্ভ করার চেষ্টা করে বিক্রেতারা। যা সাস্থ্যের জন্য হানিকর। ব্রেণ, কিডনি, লিভার এতে আক্রাšত্ম হতে পারে। এমনকি ক্যানসারও হতে পারে।
 বাজারে যে আঙ্গুর, কাঁঠাল, আম, তরমুজ পাওয়া যাচ্ছে এখন এগুলোতে প্রিসারভেটিভ দেওয়া হয়। এতে ফলের গুণগতমান নষ্ট হয় আমাদের পেটে যেয়ে এইসব ফল বিষক্রিয়া ঘটাতে পারে।
 
তার কাছ থেকে জানতে চাওয়া হয় এসব ফল খেয়ে মানুষ মারা যাওয়ার মত ঘটনা ঘটচ্ছে তবে এটি এখনো প্রমানিত নয়। তবে কোন বিষাক্ত দ্রব্য মিশানোর কারনেই কি এ মৃত্যু ঘটনা ঘটচ্ছে।
 মুবিন খান বলেন, হতে পারে কেননা ঢাকা শহরে মানুষ রা¯ত্মায় একটি ডাব খেয়ে অজ্ঞান হয়ে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করানো হয় তাই বলতে পারেন বিষাক্ত দ্রব্য মিশানোর করেনেও এসব হয়ে থাকে।
 মুবিন খানের কাছে জানতে চাওয়া হয় বাংলাদেশেতো খাদ্য বিষয়ক আইন রয়েছে এবং খাদ্য দপ্তরও রয়েছে তাও এ বিষয় নিয়ে তারা কোন কাজ করছেনা কেন ?
 মুবিন খান বলেন, বাংলাদেশে অনেক আইন রয়েছে তবে তা সঠিক ভাবে পালন করে না কেউ। মানুষ এখন ফল খেয়েও মারা যাচ্ছে। এখন তরমুজের সিজোন তাও মানুষ খেয়ে মারা যাচ্ছে।
 মুবিন খানের কাছে জানতে চাওয়া হয় তাহলে কি মানুষ এসব খাওয়া বন্ধ করে দিবে ?
 তিনি বলেন, যদি এভাবে চলতে থাকে মানুষ মারা যায় ফল খেয়ে তাহলেতো এগুলো খাওয়া বন্ধ করেই দিতে হবে।
 তার কাছে জানতে চাওয়া হয় তিনি এ বিষয়ের চিকিতসক হিসাবে তার কাছে এ ধরনের রোগী আসে, সে কি মনে করেন তাদের অবস্থা এখন কেমন ?
 মুবিন খান বলেন, যেসব রোগী আমার কাছে আসছে তারা অনেক দেরি করে ফেলেছে বিষক্রিয়ার ফলে তাদের বেশির ভাগেরই লিভার নষ্ট হয়ে গিয়েছে। ঢাকা শহরে না হয় তাদের ইমারজেন্সি চিকতসা দেওয়া যায় কিন্তু গ্রামেগঞ্জেতো সে ব্যবস্থা নেই।
 তার কাছে জানতে চাওয়া হয় সে কোন হিসাব দিতে পারবে কিনা কি পরিমান মানুষ এতে আক্রাšত্ম হচ্ছে?
 মুবিন খান বলেন, সে এবিষয়ে কোন হিসাব দিতে পারবেনা। তবে তিনি বলেন, বর্তমানে এর ব্যাপকতা অনেক বেশি।

বিবিসি

এ জাতীয় আরও খবর

প্রধানমন্ত্রীকে আবারও জয়যুক্ত করতে মানুষ উদগ্রীব : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গোটা জাতি শেখ হাসিনাকে স্যালুট করে: ওবায়দুল কাদের

ঈদের চেয়ে বেশি আনন্দ হচ্ছে: তথ্যমন্ত্রী

পদ্মা সেতু আমাদের অহঙ্কার, সক্ষমতা-মর্যাদার প্রতীক: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের উন্নয়ন যাত্রায় পদ্মা সেতু দৃষ্টান্ত : পা‌কিস্তান

অবশেষে বন্দুক নিয়ন্ত্রণ বিল পাস করল যুক্তরাষ্ট্র

পদ্মা সেতু এলাকায় সাজ সাজ রব

করোনায় মৃত্যুশূন্য দিনে কমল শনাক্তের হার

১৪ দিন পর বাসায় ফিরলেন খালেদা জিয়া

পদ্মা সেতুর উদ্বোধন ঘিরে কোনো শঙ্কা নেই : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

মাত্র কয়েক ঘণ্টার অপেক্ষা

বন্যায় দেশে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৭৩