বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

অবশেষে বার্সার জয়, মেসির গোল

অবশেষে জয় পেয়েছে বার্সেলোনা। সব ধরনের প্রতিযোগিতায় টানা তিন ম্যাচ হারের স্বাদ নেওয়ার পর লা লিগায় অ্যাথলেটিকো বিলবাওয়ের বিপক্ষে কাল ২-১ গোলে জিতেছে বার্সেলোনা। এই জয়ে আপাতত পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় স্থানে উঠে শিরোপার স্বপ্ন বাঁচিয়ে রাখলেন জেরার্ডো মার্টিনোর শিষ্যরা।

৩৪ ম্যাচ খেলে এই মুহূর্তে বার্সেলোনার পয়েন্ট ৮১। সমানসংখ্যক ম্যাচ খেলে শীর্ষে থাকা অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের সঙ্গে কাতালানদের পয়েন্টের ব্যবধান ৪। ৭৯ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে রিয়াল মাদ্রিদ।

দুঃস্বপ্নের দুটি সপ্তাহ পেরিয়ে কাল বিলবাওয়ের বিপক্ষেও শুরুটা ভালো ছিল না বার্সেলোনার। ৫০ মিনিটে পিছিয়ে পড়া বার্সা শেষ পর্যন্ত শেষ হাসি হাসে লিওনেল মেসি ও পেদ্রো রদ্রিগুয়েজের কল্যাণে।

ন্যু ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে কাল দর্শক সমাগম ছিল তুলনামূলক অনেক কম। মাত্র ৪২ হাজার দর্শকের উপস্থিতির ব্যাপারটি ছিল যথেষ্ট ইঙ্গিতবাহী। প্রিয় দল বার্সেলোনার ক্রমাগত ব্যর্থতায় আগ্রহ হারিয়ে ফেলা দর্শকেরা অবশ্য কাল ম্যাচ শেষে যথেষ্ট আফসোসই করেছেন। তাঁরা মিস করলেন বার্সার দারুণ এক ‘কামব্যাক’। প্রথমে পিছিয়ে পড়লেও ফরোয়ার্ডদের কল্যাণে প্রয়োজনের সময় দারুণ ফুটবল খেলেই কাল জয়টা তুলে নিতে পেরেছে বার্সেলোনা।

আদুইরিজের গোলে এগিয়ে যায় বিলবাও। বিরতির পাঁচ মিনিট বাদে বার্সেলোনার রক্ষণের চিরায়ত দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে প্রায় একক প্রচেষ্টায় দারুণ ওই গোলটি করেন আদুইরিজ। এর ঠিক ১৮ মিনিট পর অবশ্য পেদ্রোর গোলে সমতা আনে স্বাগতিক দল।

বার্সেলোনার সমতাসূচক গোলটির পেছনে দানি আলভেজের দারুণ অবদান আছে। তিনি প্রায় একক প্রচেষ্টায় বাঁ প্রান্ত দিয়ে ঢুকে বল বাড়িয়ে দেন আলেক্সিজ সানচেজের দিকে। সানচেজ বল পেয়ে গোলে না মেরে তা বাড়ান মোটামুটি ফাঁকায় দাঁড়ানো পেদ্রোর দিকে। পোস্টের একেবারে সামনে দাঁড়িয়ে থাকা পেদ্রো তা গোলে পরিণত করতে একেবারেই ভুল করেননি।

সমতায় ফেরার দুই মিনিট পরেই লিওনেল মেসির ঝলক দেখে ন্যু ক্যাম্প। বেশ কিছু দিন ধরে প্রায় নিষ্প্রভ মেসি বাঁ পায়ের দারুণ এক ফ্রি-কিককে গোলে পরিণত করেন খেলার ৭৪ মিনিট। ৮৫ মিনিটে অবশ্য নিজের দ্বিতীয় গোলটি পেতে পারতেন মেসি। ৮৮ মিনিটে বিলবাও গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন বার্সেলোনার তেল্লো।

প্রথমার্ধে অবশ্য বেশ কয়েকটি সুযোগ পেয়েছিল বার্সেলোনা। ম্যাচের ১৫ মিনিটে মেসির বাড়ানো বলে গোল করতে ব্যর্থ হন পেদ্রো। পরের মিনিটে মেসি নিজেই সহজ একটি সুযোগ হাতছাড়া করেন। ২৬ মিনিটে কর্নার থেকে পোস্টের একেবারে কাছে বল পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন বারত্রা।

৩১ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত বিলবাও। কিন্তু আদুইরিজের শট দুর্ভাগ্যক্রমে ক্রসবারে লেগে ফিরে আসে। এর কিছুক্ষণ পরেই বার্সেলোনার সানচেজের শট বারে লেগে ফিরে আসে।

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন বার্সা ডিফেন্ডার হাভিয়ের মাচেরানো। তাঁর কণ্ঠে ঝরেছে জয়ের স্বস্তিই, ‘আমাদের সামনে লিগ শিরোপা জয়ের যে সম্ভাবনা আছে, আমরা আজ তা টিকিয়ে রাখতে পেরেছি। জয় না পেলে অন্য দুটি দল আমাদের ছাড়িয়ে যেত, যা কোনোভাবেই মেনে নেওয়ার মতো নয়।’

কালকের ম্যাচে খেলেননি নেইমার। চোটগ্রস্ত ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ডকে কাল দেওয়া হয়েছিল বিশ্রাম। চোটাক্রান্ত হয়ে খেলেননি জরডি আলবাও। কোপা ডেল রের ফাইনালে রিয়ালের সঙ্গে হারা দলটি থেকে চারজনকে বসিয়ে কাল মাঠে দল নামিয়েছিলেন কোচ মার্টিনো। তবে শেষ পর্যন্ত জয় পেয়ে মনের খচখচানিটা নিশ্চয়ই দূর করতে পেরেছেন বার্সার এই আর্জেন্টাইন কোচ। এএফপি।

এ জাতীয় আরও খবর