বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শিগগির সুসংবাদ নেই, আছে কালবৈশাখীর পূর্বাভাস

bristyতীব্র দাবদাহে পুড়ছে পুরো দেশ। দ্রুত শুকিয়ে যাচ্ছে আবাদি জমি, জলাশয় ও নদ-নদী। কাঠফাটা রোদ সাথে গরম বাতাসে হাঁসফাঁস করছে মানুষ ও পশুপাখি। একান্ত বাধ্য না হলে কেউ ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন না। গরমে সবার প্রাণ ওষ্ঠাগত। একটু বৃষ্টির জন্য অধীর অপেক্ষা।

কিন্তু সুখবর দিতে পারছে না আবহাওয়া অধিদপ্তর। মে মাস পর্যন্ত চলবে এ তাপপ্রবাহ। হঠাৎ হঠাৎ কোথাও কালবৈশাখী ঝড়ের সঙ্গে এক পশলা সাময়িক প্রশান্তি দিলেও পরক্ষণেই ভ্যাপসা গরমে অস্বস্তি চরমে উঠবে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য মতে, রোববারও সারা দেশে তাপমাত্রা ছিল স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে রাঙামাটিতে- ৪০ দশমিক ৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস। আর রাজধানীতে রেকর্ড করা হয়েছে ৩৮ দশমিক ৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস।



দু’এক দিনের মধ্যে কোনো স্বস্তির খবর নেই। ঝড়ও নেই বৃষ্টিও নেই। তার ওপর ভ্যাপসা গরম থাকবেই। তবে আশার কথা হচ্ছে, দুই তিন দিন পর পরিস্থিতি কিছুটা সহনীয় হতে পারে।

গ্রীষ্মের শুরু থেকেই রাজধানীতে অসহ্য গরম শুরু হয়েছে। পিচঢালা পথে হাঁটতে গেলে জুতার তলা গলে লেগে যাওয়ার অবস্থা হচ্ছে। গরমের কারণে গণপরিবনে চড়তে চাচ্ছেন না অনেকেউ। কিন্তু রিকশাচালকদের অবস্থাও করুণ। এই রোদ গরমের মধ্যে একটুতেই হাঁপিয়ে যাচ্ছেন তারা, ঘন ঘন তৃষ্ণা পাচ্ছে।

পল্টন এলাকায় রিকশাচালক আব্বাস উদ্দিন জানান, তিনি সকালে বের হয়েছেন। কিন্তু রোদের কারণে বেশি কাজ করতে পারছেন না। আর ছুটির দিন হওয়ায় মানুষজনও কম। তাই দুপুর পর্যন্ত মাত্র একশ ষাট টাকা কামাই করেছেন।

তার পাশেই আরেক রিকশাচালক আমিনুল বলেন, ‘এই রোদে রিকশা একবার টানলেই অসুস্থ হয়ে যাচ্ছি। প্রচণ্ড তৃষ্ণা পাচ্ছে। তার উপর যাত্রীরাও বেশি গাড়িতে উঠছে না।’



তবে এই গরমে পোয়া বারো ফুটপাতের শরবত ও মৌসুমী ফল বিক্রেতাদের। একটু প্রশান্তি পেতে অস্বাস্থ্যকর জেনেও মানুষ দেদারসে খাচ্ছে শরবত। বিক্রি হচ্ছে তরমুজ আর ফলের জুস।

খোলা আকাশের নিচে যারা কাজ করছেন তাদের অবস্থা আরো খারাপ। গুলিস্তান বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামের সামনে আনারস বিক্রেতা হালিম বলেন, ‘অন্যান্য দিন তো রোদে দাঁড়িয়েই ব্যবসা করি। কিন্তু আজ আর পারা যাচ্ছে না।’

গরমের কারণে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতি কম লক্ষ্য করা যাচ্ছে। যারা যাচ্ছে তারাও দু’একটা ক্লাস করেই ছুটছে বাড়ির দিকে। অনেক স্কুল কলেজে তড়িঘড়ি ছুটি দেয়া হচ্ছে।



তেজগাঁও কলেজের ছাত্রী রোকসানা আফরোজ বলেন, ‘সকাল ৯টায় কলেজে এসেছিলাম কিন্তু গরমে থাকতে না পেরে স্যাররাও আমাদের তাড়াতাড়ি করে ক্লাস নিলেন। অনেকে আগেই চলে গেছে।’

আবহাওয়াবিদ আবদুর রহমান বাংলামেইলকে জানান, এপ্রিল ও মে মাসজুড়ে সারা দেশে গরম অব্যাহত থাকবে। চলতি এপ্রিল মাসে বঙ্গোপসাগরে একটি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। ওই সময় দেশে বৃষ্টি হতে পারে। বর্তমানে দেশের কোথাও কোথাও বৃষ্টি অথবা কালবৈশাখী ঝড় হচ্ছে বলে জানান তিনি।