শনিবার, ২০শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আজ তারিখটা মনে আছে? এপ্রিল ১৮।

images (1)

সকাল সকাল দেশের সব পত্রিকার অনলাইন ভার্শন ঘেটে দেখলাম। টিভি অন করলাম। নাহ। কোথাও কামালকে নিয়ে কোনো নিউজ নেই। টিভি চ্যানেলে লাইভ আপডেট নেই, পত্রিকায় কামালের পরিবার নিয়ে কোনো সংবাদ নেই। কোনো পাতি নেতা মন্ত্রি এমপি ধাক্কা ধাক্কি করে ফুল দিচ্ছে না। হচ্ছে না শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত কোনো দামী হোটেলে স্মরনসভা আর গলাবাজি। কামাল মানে মোস্তফা কামাল।

স্কুলের বাংলা বইয়ে তার কথা সবাই পড়ে থাকবেন। আমি আরেকবার স্মরন করিয়ে দিচ্ছি। কুমিল্লার দরুইন গ্রাম। ৩ দিক থেকে বিমান ট্যাংক বিশাল সৈন্য বহর মর্টার নিয়ে পাক বাহিনীর আক্রমন। একটাই উপায়। পিছু হটা। কিন্তু সবাই পিছু হটার জন্যে প্রয়োজন কাওকে নিরন্তরভাবে মেশিনগান থেকে ফায়ার করতে থাকা শত্রু সৈন্যের উপর। লাইট মেশিনগানটা কাধে তুলে নিলেন কামাল। চালিয়ে গেলেন বৃস্টির মত গুলি। অর্ধ শতাধিক শত্রু সৈন্য হতাহত হলো। সহকর্মীরা নিরাপদে পিছু হটতে পারলো। কিন্তু বাস্তবতা কখনই সিনেমার মত নয়। একসময় মেশিন গানটির গুলি ফুরিয়ে গেলো। ৩ দিক থেকে মর্টার শেলের গোলার আঘাতে ক্ষত বিক্ষত কামাল। বেয়নেট দিয়ে খুচিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করা হলো তার। মরেও কামাল হয়ে গেলো অমর। পেলো বীরশ্রেষ্ঠ খেতাব। এই পর্যন্ত সব ঠিকই আছে।

কিন্তু এরপরের বাস্তবতার গল্প?

মালেকা বেগম। আশি উর্ধ বয়স। বয়সের ভারে হাজারো রোগ নিয়ে বেচে আছেন। মাসে শহীদ মাতা হিসেবে ৪৫০০ টাকা ভাতা আর কামালের পেনশানের ১৪০০ টাকা পান। থাকছেন সেনাবাহিনীর বানিয়ে দেয়া একতলা ছোট্ট একটি ঘরে। আজকের দিনে এই টাকা ফুরিয়ে যায় মাসের প্রথম ১০ দিনেই। ১ মাসের ক্যালশিয়াম এবং গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ ও কেনা হয় না। বৃদ্ধা মালেকা বেগম হচ্ছেন কামালের মা। কামালের ছেলেটি বি এ পাস করেছে। সরকারের মুক্তিযোদ্ধা নাতি পুতি কোটায় ও বেচারার চাকরীটা হচ্ছে না। কামালের ভাই টা পরের জমিতে চাষবাষ করে খায়। কেউ এদের খবর নেয় না। ইউ এন ও জানেনা তার এলাকায় ভাংগা জরাজীর্ণ শহীদের কবরটি কার।

আসুন এবার একটু মগবাজার থেকে ঘুরে আসি। ৮ তলা একুশ ফ্ল্যাটের বিশাল দালান। এখানে একজন প্রাক্তন প্রভাষকের পরিবার থাকেন। যদিও প্রভাষক সাহেব নামের আগে অধ্যাপক লিখেন। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার আলবদর বাহিনীর নেতৃত্ব দেবার। আদালত দয়া করে তাকে ৯০ বছরের আরাম দন্ড দিয়েছে। এখন তার বেশিরভাগ সময় কাটে শাহবাগের বিএসএমএমইউ হাসপাতালে আচার আর মুরগির পাখা খেয়ে । তার খাবার, নিরাপত্তা, চিকিৎসার পেছনে মাসে সরকার বাহাদুরের খরচ ১০ লক্ষ টাকার মত। সে বেড থেকে বাথরুমে গেলেও ব্রেকিং নিউজ হয়ে যায়। তার জন্যে কত আয়োজন, কত আলোচনা। তার সন্তানেরা বিভিন্ন সময়ে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায় এখন ফুলে ফেপে উঠেছে। একজন তো আবার সেনাবাহিনীর ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ছিলেন। সেই সেনাবাহিনী, যেখানে কামাল সৈনিক হিসেবে কাজ করতেন। সহকর্মী এবং অফিসারদের বাচাতে গিয়ে মরার পরও বেচারা হয়েছিলেন বেয়নেট দিয়ে ক্ষত বিক্ষত। দুঃখিত কামাল। এই জাতিকে তুমি ক্ষমা করে দিও। তোমাকে সম্মান করার যোগ্যতা এই জাতির নেই।

"না কামাল আমাদের তুমি ক্ষমা করো না…… সবাইকে ছার দেওয়া যায় কিন্তু আমাদের মত নিমক হারামকে ছাড় দেওয়া যায় না"

-কনস্টেবল-এনামুল হক রাব্বী-(রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশ)
কৃতজ্ঞতা-বাংলাদেশ পুলিশ ফ্যান পেইজ।

এ জাতীয় আরও খবর

তীব্র তাপপ্রবাহের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ৫ দিন বন্ধ ঘোষণা

শিল্পী সমিতির নির্বাচন : সভাপতি মিশা সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক ডিপজল নির্বাচিত

তাপপ্রবাহ : প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অ্যাসেম্বলি না করানোর নির্দেশ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রাতে ট্রেনের ধাক্কায় বাবার মৃত্যু, আহত মেয়ে

নাসিরনগরে কৃষকলীগের ৫২তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

আম দিয়ে পাটিসাপটা

গাজায় মৃত্যু ৩৪ হাজার ছাড়াল

আজ রাতে তীব্র ঝড়ের আশঙ্কা, হুঁশিয়ারি সংকেত

রাজশাহীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেলের ৩ আরোহী নিহত

চেন্নাইকে বড় ব্যবধানে হারিয়ে জয়ে ফিরলো লখনৌ

১৩ জেলায় তীব্র তাপপ্রবাহ, গরম থেকে সহসাই মুক্তি মিলছে না

২৩ নাবিকের ভয়ংকর ৩৩ দিন