বুধবার, ৬ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২২শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভুলতে পারছেন না যুবরাজও

তাঁর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ারের বয়স ১৪ বছর। এক যুগেরও বেশি এই সময়ে ভারতীয় সমর্থকেরা অনেকবারই যুবরাজ সিংয়ের ব্যাটে হেসেছে। ২০০২ সালের ন্যাটওয়েস্ট সিরিজ, ২০০৭ সালের প্রথম টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, ২০১১ সালের বিশ্বকাপ—ভারতের বড় সব সাফল্যের পেছনে বড় ভূমিকা পালন করেছেন। কিন্তু দীর্ঘদিনের এসব অর্জন যেন ধুলোয় মিশেছে মাত্র ৩০ মিনিটের একটা ইনিংসের জন্য। এ বছরের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালে হারের পর ঢিল পড়েছে ভারতীয় এই অলরাউন্ডারের বাড়িতে। সবাই যেন ভুলেই গেছে, এই যুবরাজই ২৮ বছর পর ভারতকে জিতিয়েছিলেন বিশ্বকাপ। হয়েছিলেন বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়।

ভক্তদের ওপর যুবরাজের কিন্তু কোনো রাগ নেই। বরং তিনি নিজেও ভুলতে পারছেন না গত টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে পুরো টুর্নামেন্টে অপরাজিত থেকে ফাইনালে এসে হারের বেদনা। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সেই ফাইনালে যুবরাজ খেলেছিলেন একেবারে স্বভাববিরুদ্ধ এক ইনিংস। ২১ বলে করেছিলেন মাত্র ১১ রান। অথচ এই যুবরাজই ২০০৭ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে খেলেছিলেন ৩০ বলে ৭০ রানের বিস্ফোরক ইনিংস। সেই আসরেই ক্রিস ব্রডের এক ওভারে মেরেছিলেন ছয় ছক্কা। ২০১১ বিশ্বকাপের নায়ককে এবারের খুদে বিশ্বকাপ বানিয়ে দিয়েছে খলনায়ক!

যুবরাজ অবশ্য আবার স্বরূপে ফিরেছেন। সেই ফাইনালের পর কাল প্রথম ব্যাট হাতে নেমেই অপরাজিত ফিফটি করেছেন আইপিএলে। ২৯ বলে ৩টি চার ও ৫ ছক্কায় ৫২ রানের ইনিংস খেলে দিল্লির বিপক্ষে জিতিয়েছেন বেঙ্গালুরুকে। কিন্তু ফাইনালের সেই ক্ষত এতেও সারবে বলে মনে হয় না। সেই ম্যাচটি নিয়ে প্রথমবার মুখ খুলেই যুবরাজ বললেন, ‘আমরা পুরো টুর্নামেন্টেই খুব দারুণ খেলেছি। কিন্তু ফাইনালে সবকিছু পরিকল্পনা অনুযায়ী হয়নি। আর সেই হতাশা কাটিয়ে ওঠার কাজটা খুব সহজও না।’

হতাশা কাটিয়ে ওঠার জন্য এখন যুবরাজ বারবার মনে করছেন তাঁর ছোটবেলার এক কোচের কথা যিনি বলেছিলেন, সাফল্য ও ব্যর্থতা দুটোকেই একই রকমভাবে সামাল দিতে হবে। ভারতের এই অলরাউন্ডার এখন ঠিক এই কাজটাই করতে চাইছেন, ‘ফাইনালের মতো ম্যাচে হারলে সব সময়ই তীরে এসে তরি ডোবার মতো অনুভূতি হয়। কিন্তু খেলোয়াড়দের এ ধরনের আবেগগুলো দ্রুতই সামলে নিয়ে পরবর্তী চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হয়।’