শুক্রবার, ১লা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৭ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

আজকের সুস্হ শিশুই আগামীর যোগ্য নেতৃত্ব

শিক্ষা জাতির প্রগতি ও সমৃদ্ধির মূল হাতিয়ার।স্বর্নিভর দক্ষ জনশক্তি সৃষ্টির মাধ্যমে ঐশ্বর্যমন্ডিত গৌরবময় জাতি গঠনে – শিক্ষা পূর্বশর্ত।শিক্ষার দিক থেকে যে জাতি যতবেশি অগ্রসর সে জাতি ততবেশি সমৃদ্ধ, ততবেশি উন্নত।প্রতিদিন প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিশুদের দেশের প্রতি প্রেম বোধ  বাড়ানোর লক্ষ্যে জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়। দেশকে মায়ের মত করে উপলব্ধি করতে শেখানো হয়।অদম্য নিষ্ঠার সাথে কাজ করে পৃথিবীর মানচিত্রে লাল সবুজের রক্তিম বাংলাদেশকে আরো বেশি উজ্জলতায় ভরিয়ে তোলার শপথ আজই নিতে হবে।
জাতীয় সংগীতের একটি লাইনে আমরা দেশ মাতার অসহায় সময়ে সন্তানের ব্যথিত হৃদয়ের কথা শুনতে পাই, “মা, তোর বদনখানি মলিন হলে, ওমা আমি নয়ন জলে ভাসি” মায়ের মুখ যেদিন একটু মলিন দেখায় সন্তান তাই দিশেহারা হয়ে সেদিন মায়ের মুখে একটু হাসি ফোটাতে বিনম্র শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় তাকে জড়িয়ে ধরে, মা-ও যে তখন সন্তানের অব্যর্থ চেষ্টায় মুখের কোণে ভেসে উঠা হাসিতে সব ভুলে যায়। আজকাল প্রায়ই দেখা যায় ছাত্র সমাজ নানাধিক ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপের সাথে যুক্ত হয়ে বিপথগামী হয়ে পড়ছে এবং সন্ত্রাস, রাজনীতি, মাদকাসক্ত বা ছিনতাইকারী হিসেবে নিজের জীবন বিপন্ন করে ফেলছে। ফলে বাড়ছে অবক্ষয়, বাড়ছে দুর্নীতি, শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস, পাড়ার মহল্লায় ঝগড়া আর হানাহানি। অভিশপ্ত এই বেকার সমাজ করছে খুন, ছিনতাই, ধর্ষণ, রাহাজানি। দিশেহারা যুবসমাজ আজ বাবা-মায়ের জন্য গড়ছে- বৃদ্ধাশ্রম। আমাদের মাতার মাতা-দেশ মাতার বদনখানি মলিন হওয়ায় জাতি তাই ক্রন্দনরত; নিরবে নিভৃতে আলোর দিশারী হয়ে, ব্যথিত এই দেশকে বুকে আগলে ধরে বীর বাঙালি বীরের মত একদিন গর্জে উঠবেই। জাতির এহেন পরিস্থিতিতে শিশুদেরকেই যোগ্য হয়ে গড়ে উঠার শপথ নিয়ে আত্মপ্রত্যয়ী হওয়ার এখনই সময়।
প্রতিটি শিশুকে পিতা-মাতার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকার গুণাবলী অর্জন করতে হয়। পিতা-মাতার আদর্শ ও স্বপ্নকে যেন জীবনে প্রতিষ্ঠা করা যায়- সে লক্ষ্যেই স্বীয ভান্ডার সমৃদ্ধ করতে হয়। বাবা-মার নিকট অবিশ্বাসী সন্তান যেন একটি জিন্দা লাশ হয়ে বেঁচে থাকা।হযরত মোহাম্মদ (সা:) বলেছেন, যিনি আপন পরিবারের মধ্যে উত্তম, তিনি আল্লাহর কাছে উত্তম।বাবা-মার রক্ত মাংসে জন্ম নিয়ে পৃথিবীর আলো দর্শন যাঁদের মাধ্যমে হয়েছে তাঁরা হলেন- মহান শিক্ষক। যাঁরা আপন আলোয় জ্ঞানময় বিশ্বে শিশুকে জন্মান্ধতা থেকে মূর্খতার অভিশাপ মুক্ত করে অন্তর আলো জালিয়ে দেন।  তাঁদেরকে সম্মান করা শিখতে হয়। অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হয় তাঁদের মুখনি:সৃত বাণী, অনুসরণ করতে হয় তাঁদের স্নেহ মমতার স্পর্শে গড়া জীবনাদর্শ।
মনে রাখতে হবে- সততার চাদরে যেন মিথ্যাকে ডেকে ফেলা যায়। জীবনে যা কিছু অর্জন- তা যেন সত্য দিয়েই অর্জিত হয়। সত্যবাদী সুনাগরিক গোষ্টিই রাষ্ট্রযন্ত্র শক্তিশালী হওয়ার আকর। প্রতিদিন সত্য বলার অভ্যাস গড়ে তোলতে হয় এবং অন্তত একটি করে মিথ্যাচার পরিহার করতে হয়।
সুস্থ দেহে সুস্থ মন বিরাজ করে। শিশুদেরকে সুস্বাস্থ্যের অধিকারী হতে হয়। পাশাপাশি খেলাধুলার মাধ্যমে জয়-পরাজয় মেনে নেওয়ার মানসিকতায় অভ্যস্থ করতে হয়।বিজয়ের উল্লাসে যেমন আনন্দিত হওয়া যায়, তেমনি পরাজয়েও আনন্দিত হওয়া শিখতে হয়। কেননা, প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বায়নের যুগে স্নায়ুবিক যুদ্ধে স্থির মস্তিকের অধিকারী সুস্থ দেহীরাই বিজয়ী হয়।
মাদকমুক্ত সুস্থ দেহের অধিকারী হয়ে, সর্ব অবস্থায় নিজের বলে বড় ও উন্নত হতে চেষ্টা করা। যে মানুষ চরিত্রবান ও জ্ঞানী সে কালের আবর্তনে অবশ্যই শ্রেষ্ঠ হয়। নিজের সুস্থ মস্তিষ্ককে কাজে লাগাবার অভ্যাসই একদিন বিজয়ের মুকুট এনে দেয়।মাদককে না বলতে শিখতে হবে।
প্রতিটি শিশুকে পুলিশ কনট্রুল রুম, হাসপাতাল, এম্ব্যুলেন্স, সিভিল সার্জন, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্তপক্ষের জরুরি ফোন নাম্বার সংগ্রহে রাখতে হয়।
প্রত্যেক শিশুর স্বীয় প্রতিষ্ঠা লাভের জন্য মনীষীদের আত্মজীবনী অধ্যয়ন করা উচিত। যাতে করে শিশুর মনে একজন সফল মানুষের প্রতিবিম্ব বা মনছবি তৈরি হতে পারে। পাশাপাশি বিভিন্ন বিষয়ের উপর প্রবন্ধ বা রচনা পাঠ করা উচিত। এর মাধ্যমে শিশুরা বিভিন্ন বিষয় ভিত্তিক লেখকের সার ও জ্ঞানগর্ভ তথ্য ও উপাত্ত সহজেই আয়ত্ত করে নিজেকে প্রতিযোগিতায় আপডেইট করে রাখতে পারে।
শিক্ষা, উত্তম চরিত্র ও জ্ঞান, মানুষ ও পরিবারকে সম্মানিত করে। প্রতিটি শিশুকে অব্শ্যই স্বীয় ধর্মীয় ও নৈতিক মূল্যবোধ বিষয়ে সম্যক ধারণা রাখতে হয়। কেননা ধর্ম মানেই পাপ বর্জনের আরাধনা; মিথ্যা আর অন্যায়ের বিরুদ্ধে আত্মার সংগ্রাম। বর্তমান যুগে শিশুকে ধর্মীয় মূল্যবোধে জাগ্রত থেকে প্রার্থনা করতে হয়। আমরা জানি, জ্ঞানবিহীন ধর্ম নিষ্প্রাণ; ধর্মবিহীন জ্ঞান অন্ধ।
বাল্যকাল থেকেই শিশুর লক্ষ্য স্হির করা উচিত এবং প্রতিদিন অন্তত একবার করে লক্ষ্য নিয়ে ভাবা উচিত।পরিশ্রমের মাধ্যমে এই সাধনাকে জাগিয়ে রাখতে হয়। তাহলেই এই প্রচেষ্টা আর অধ্যবসায় সকল অসম্ভবকে সম্ভব করে দেবে।
প্রতিনিয়ত আত্মবিশ্বাস বাড়াতে হয় এবং এর উপর অটুট থাকতে হয়। আর তারপরই সাফল্য এসে পদচুম্বন করতে থাকে। পৃথিবীতে আত্মবিশ্বাসী আর সাহসীরাই বিজয়ী হয়। এখানে ভীতু মানুষের কোন দাম নেই।
মানুষ সামাজিক জীব।তাই সামাজিক কর্ম কান্ডকে কেন্দ্র করেই শুরু হয় শিশুর বেড়ে উঠা।মিশতে হয় সমাজের সকল শ্রেণি- বর্ণের মানুষের সাথে।সুখে দু:খে তাই এগিয়ে যাওয়ার মানসিকতাও লালন করতে হয়। সহ-শিক্ষা কার্যক্রমে যেমন স্কাউট, গালর্স গাইড, রোভার স্কাউট, রেডক্রিসেন্টসহ অন্য যেকোন সামাজিক সংগঠন প্রভৃতিতে স্বত:স্ফুর্ত অংশগ্রহণ করতে হয়।
সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করতে হয় ।সাহিত্য সেবায় সমৃদ্ধ করতে হয় যুব সমাজের জ্ঞান ভান্ডারকে।সাহিত্যের শক্তিতে দেশের মানুষ শক্তিশালী ও সমৃদ্ধশালী হয়ে উঠে। সাহিত্য জাতির দর্পণ। যে জাতির সাহিত্য আর সংস্কৃতি যত বেশি সমৃদ্ধ, সে জাতি তত বেশি উন্নত। একটি জাতির আত্মা সুপ্ত থাকে লেখক , সাহিত্যিক আর পন্ডিতদের মাঝে। দেশে মাতৃভাষা আর তার সংস্কৃতি বিকাশের মাধ্যমে জাতি সত্বার ঐতিহ্যের রূপায়ন সংগঠিত হয়।
নিয়মিত পত্রিকা ও ম্যাগাজিন এবং বিভিন্ন লেখকের বই পাঠ করা প্রতিটি শিক্ষার্থীর অন্যতম কাজের একটি অংশ হওয়া উচিত।বিভিন্ন সভা সমিতিতে অংশগ্রহণ করা, বিভিন্ন বির্তক অনুষ্ঠান ও প্রতিযোগিতামুলক কাজে অংশগ্রহণ করা, বিভিন্ন যুবফোরামে বা সংগঠনে প্রতিনিধিত্বমুলক কাজে এগিয়ে যাওয়া প্রতিটি ছাত্রেরই কর্তব্য।জন্মলগ্ন থেকে জীবন ডায়রির শূণ্যতা আর অপূর্ণতা এভাবেই নানা অভিজ্ঞতার আলোকে একদিন পূর্ণ হয়ে যায়।
আমার প্রিয় কবি, দার্শনিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি কবিতা “শেষ লেখা” (শান্তিনিকেতন/25 এপ্রিল 1941)‘র উক্তির মধ্য দিয়ে আমি শেষ করতে চাই-
“ জন্মের প্রথম গ্রন্থ নিয়ে আসে অলিখিত পাতা,
দিনে দিনে পূর্ণ হয় বাণীতে বাণীতে।

লেখক : অধ্যক্ষ, আইডিয়াল রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজ।

এ জাতীয় আরও খবর

ঈদের আগে ফ্রিজ পরিষ্কারের দারুণ কিছু টিপস

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ২২

পদ্মা সেতু হওয়ায় দুশ্চিন্তায় দৌলতদিয়ার ১৪০০ হকার

বাসার নিচতলায় হাঁটুপানি, বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ২ জনের মৃত্যু

‘সোনার চর’ দিয়ে কাজে ফিরলেন মৌসুমী

কিশোরীকে ‘আই লাভ ইউ’ বলায় যুবকের কারাদণ্ড

কোক স্টুডিও বাংলায় গান গাইবেন ওস্তাদ রশিদ খান

সেই জিতুকে স্কুল থেকে আজীবন বহিষ্কার

জাতির কাছে নূপুর শর্মার ক্ষমা চাওয়া উচিত : ভারতীয় সুপ্রিম কোর্ট

যাত্রীর চাপে এক্সপ্রেসওয়ের টোল প্লাজায় বাড়ল বুথ

‘আমরা শেষ পর্যন্ত সিদ্ধান্তে অটল থাকতে পারলে আ.লীগ সরকার থাকবে না’

ভাইয়ের জানাজায় অংশ নিতে প্যারোলে মুক্তি পেলেন হাজী সেলিম