বৃহস্পতিবার, ৭ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সেন্টমার্টিনে নিখোঁজ দুই শিক্ষার্থী শাহরিয়ার নোমান ও সাব্বির আহসানের মৃতদেহ উদ্ধার।

sanmatenসেন্টমার্টিনের সৈকতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হওয়া চারজন শিক্ষার্থীর মধ্যে বুধবার সকালে একজনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছেন উদ্ধারকারীরা। তবে উদ্ধারকৃত মৃতদেহটির পরিচয় এখনো শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। আরো নিখোঁজ রয়েছেন তিন ছাত্র।
বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে ঘটনাস্থলের উত্তর-পশ্চিম দিকের সাগর কিনার থেকে ভাসমান অবস্থায় মৃতদেহটি উদ্ধার করে কোস্টগার্ড। মৃতদেহটি একই ঘটনায় নিখোঁজ শিক্ষার্থী সাব্বিরের হতে পারে বলে ধারণা করছেন উদ্ধারকারীরা। এই প্রতিবেদনটি লেখা পর্যন্ত উদ্ধারকৃত মৃতদেহটির পরিচয় নির্ণয়ের কাজ চলছিল।
সেন্টমার্টিন কোস্টগার্ড স্টেশনের কমান্ডার লেফটেন্যান্ট শহিদ আল আহসান খবরটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি  জানান, সেন্টমার্টিনের উত্তর বিচের সৈকতে ভাসমান লাশটি দেখতে পেয়ে কোস্টগার্ডের টহল দল লাশটি উদ্ধার করে সেন্টমার্টিন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়।
তিনি বলেন, “লাশটি এত সময় ধরে পানিতে থাকায় বিকৃত হয়ে গেছে। ফলে লাশের পরিচয় নিশ্চিত করা যাচ্ছে না। তবে সাব্বির হাসানের লাশ হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।”
এর আগে একই ঘটনায় নিহত মানতেজুল ইসলাম ইভান ও সাদ্দাম হোসেন অংকুরের মৃতদেহ নিজ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
 
এদিকে এখনো নিখোঁজ তিন শিক্ষার্থীকে উদ্ধারে নৌ বাহিনী, কোস্টগার্ড ও পুলিশসহ স্থানীয়রা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন। নৌ বাহিনীর কমোডোর রাশেদ আলীর নেতৃত্বে অভিযান চালাচ্ছেন নৌ বাহিনীর একটি বিশেষ দল।
টেকনাফ কোস্টগার্ডের স্টেশন কমান্ডার কাজী হারুনুর জানিয়েছেন, সকাল থেকেই সেন্টমার্টিন এবং আশপাশের এলাকায় নিখোঁজ ছাত্রদের উদ্ধারের জন্য ব্যাপক তৎপরতা শুরু করেছেন তারা। এছাড়া টেকনাফ উপকূলীয় এলাকায়ও নিখোঁজ ছাত্রদের লাশ ভেসে উঠছে কিনা তারও খোঁজখবর নিচ্ছেন।
 
প্রসঙ্গত, পরীক্ষা শেষে বাংলা নববর্ষ উদযাপন করতে রাজধানীর বেসরকারি একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৪ জন শিক্ষার্থী কক্সবাজারের সেন্টমার্টিনে বেড়াতে যান। এদের প্রত্যেকেই আহসানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ে কম্পিউটার বিজ্ঞান অনুষদের তৃতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন।
পরে গত সোমবার পহেলা বৈশাখের দিন সেন্টমার্টিনের সাগরে গোসল করতে নামলে সাগরে ভেসে যান নয়জন শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে দুজনের মৃতদেহ তিনজনকে জীবিত অবস্থায় সেদিনই উদ্ধার করা সম্ভব হলেও নিখোঁজ ছিলেন চারজন। ঘটনার প্রায় দুদিন পর আজ সকালে একজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হলেও এখনো নিখোঁজ রয়েছেন তিনজন।
 
জানা গেছে, বেড়াতে আসা ৩৪ শিক্ষার্থী দ্বীপের সেন্ট সৌর রিসোর্টে উঠেছিলেন। ঘটনার দিন বেলা ২টার দিকে কয়েকজন শিক্ষার্থী দ্বীপের জেটি ঘাটের উত্তর-পূর্ব পাশে প্রিন্স হ্যাভেন পয়েন্ট দিয়ে গোসলে নামেন। এ সময় ভাটার টানে কয়েকজন ছাত্র ডুবে গেলে সঙ্গে সঙ্গে ছাত্রদের মধ্যে হই চই শুরু হয়। এ সময় স্থানীয় লোকজন ছুটে গিয়ে মুমূর্ষু অবস্থায় পাঁচজন ছাত্রকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুজনকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।
জীবিত উদ্ধারকৃত তিন শিক্ষার্থী মিরপুরের মোক্তার হোসেনের ছেলে আসিফ (২৫), হাবিব উল্লাহর ছেলে ফয়সার হাবিব (২৪) এবং কুমিল্লার শামসুল হকের ছেলে ফারহানুল হক (২৪) বর্তমানে চিকিৎসাধীন আছেন এবং চার শিক্ষার্থী নিখোঁজ হন। তারা হলেন- উদয় মাহমুদ, শাহরিয়ার কবির নোমান, সাব্বির হাসান ও গোলাম রহিম বাপ্পি।
 
সেন্টমার্টিনে নিখোঁজ আহছানউল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী শাহরিয়ার নোমান ও সাব্বির আহসানের মৃতদেহ উদ্ধার।
 

এ জাতীয় আরও খবর