মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ক্লাসিকো ফাইনাল: গৃহযুদ্ধ থেকে মেসির কান্না

১৯৩৬ সালের জুন মাস। স্পেনে তখন বাজছে গৃহযুদ্ধের দামামা। রাজনৈতিক অস্থিরতা আর টালমাটাল এক পরিস্থিতির মধ্যেই কোপা ডেল রে’র ফাইনালে প্রথমবারের মতো মুখোমুখি হয়েছিল রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা। এরপর স্প্যানিশ কাপের ১১১ বছরের ইতিহাসে আরও পাঁচবার দেখা গেছে এল ক্লাসিকো ফাইনাল। যার শেষটা হয়েছিল ২০১১ সালে আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসির কান্না দিয়ে। আগামীকাল সপ্তমবারের মতো কোপা ডেল রে’র শিরোপা জয়ের লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে রিয়াল-বার্সা। তার আগে আসুন দেখে নেওয়া যাক বিগত আসরের ক্লাসিকো ফাইনালগুলো।

১৯৩৬: রিয়াল মাদ্রিদ ২-১ বার্সেলোনা

১৯৩৬ সালে কোপা ডেল রে’র নাম ছিল কোপা ডে লা রিপাবলিকা। প্রথম ক্লাসিকো ফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদ পেয়েছিল ২-১ গোলের জয়। ম্যাচটা স্মরণীয় হয়ে আছে রিয়াল গোলরক্ষক রিকার্ডো জামোরার দুর্দান্ত একটি সেভের কারণে। খেলার একেবারে শেষ মুহূর্তে বার্সেলোনার স্ট্রাইকার জোসেফ এসকোলার একটি শট দুর্দান্ত দক্ষতায় রুখে দিয়েছিলেন জামোরা। মজার ব্যাপার হলো স্পেনের এই কিংবদন্তি গোলরক্ষক ছিলেন একজন কাতালান, জন্মেছিলেন বার্সেলোনাতেই। অথচ তিনি খেলতেন রিয়াল মাদ্রিদের হয়ে। বার্সেলোনার ইতিহাসে নিশ্চয়ই খলনায়ক হয়ে আছেন জামোরা। ঘরের শত্রু বিভীষণের মতোই কাতালান জামোরার কারণেই যে ওই ম্যাচে হারতে হয়েছিল বার্সাকে। আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো স্পেনে সেটাই ছিল জামোরার শেষ ম্যাচ।

১৯৬৮: বার্সেলোনা ১-০ রিয়াল মাদ্রিদ

প্রথম ক্লাসিকো ফাইনালে হারের প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য বার্সেলোনাকে অপেক্ষা করতে হয়েছিল দীর্ঘ ৩২টি বছর। ১৯৬৮ সালে স্প্যানিশ কাপের ফাইনালে বার্সেলোনা জিতেছিল ১-০ গোলে। সেটাও রিয়ালের মাঠ সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে গিয়ে। স্পেনের কুখ্যাত সামরিক শাসক জেনারেল ফ্রান্সিসকো ফ্রাঙ্কোর নাম অনুসারে সে সময় এই প্রতিযোগিতাকে ডাকা হতো কোপা ডেল জেনেরালিসিমো বলে। দ্বিতীয় ক্লাসিকো ফাইনালের জয়-পরাজয় নির্ধারিত হয়েছিল আত্মঘাতী গোল দিয়ে। ম্যাচের ষষ্ঠ মিনিটে নিজেদের জালেই বল জড়িয়েছিলেন রিয়ালের ডিফেন্ডার ফার্নান্দো জুনজুনেগুই। শেষ পর্যন্ত এই গোলটি নির্ধারণ করে দিয়েছিল ম্যাচের ভাগ্য।

১৯৭৪: রিয়াল মাদ্রিদ ৪-০ বার্সেলোনা

স্প্যানিশ কাপের ফাইনালে রিয়াল-বার্সা তৃতীয়বারের মতো মুখোমুখি হয়েছিল ১৯৭৪ সালে। বার্সেলোনায় তখন চলছে ইয়োহান ক্রুইফের স্বর্ণযুগ। লা লিগায় তারা রিয়ালকে হারিয়েছিল ৫-০ গোলের ব্যবধানে। রিয়াল মাদ্রিদ সেই হারেরই প্রতিশোধ নিয়েছিল কোপা ডেল রে’র ফাইনালে। সেই সময়ের নিয়ম ছিল যে স্প্যানিশ কাপের ম্যাচে কোনো বিদেডিশ খেলোয়াড়কে খেলানো যাবে না। ফলে বার্সাকে মাঠে নামতে হয়েছিল ক্রুইফ ও পেরুর হুগো সোতিলকে ছাড়া। রিয়াল ম্যাচটা জিতেছিল ৪-০ গোলে।

১৯৮৩: বার্সেলোনা ২-১ রিয়াল মাদ্রিদ

১৯৮৩ সালে আবারও ক্লাসিকো ফাইনাল জয়ের স্বাদ পায় বার্সেলোনা। এ সময় কাতালানদের জার্সি গায়ে খেলতেন সর্বকালের অন্যতম সেরা ফুটবলার ডিয়েগো ম্যারাডোনা। সেই ম্যাচে বার্সার প্রথম গোলটির নেপথ্যেও ছিলেন এই আর্জেন্টাইন কিংবদন্তি। প্রথমার্ধের ৩২ মিনিটে তাঁর পাস থেকে বল পেয়েই রিয়ালের জালে বল জড়িয়েছিলেন ভিক্টর মুনোজ। ৫০ মিনিটের মাথায় অবশ্য এই গোল শোধ করে খেলায় সমতা ফিরিয়েছিলেন রিয়ালের অধিনায়ক সান্তিলানা। কিন্তু খেলার একেবারে শেষ মুহূর্তে গোল করে বার্সাকে ২-১ গোলের জয় এনে দিয়েছিলেন মার্কোস আলোনসো। সে বছর সবগুলো প্রতিযোগিতাই দ্বিতীয় স্থান নিয়ে শেষ করেছিল রিয়াল মাদ্রিদ।

১৯৯০: বার্সেলোনা ২-০ রিয়াল মাদ্রিদ

সাত বছর পর আবারও ক্লাসিকো ফাইনাল জয়ের স্বাদ পেয়েছিল বার্সেলোনা। এবার ইয়োগান ক্রুইফ ছিলেন বার্সার কোচ। প্রথমার্ধের শেষেই লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তে হয় রিয়ালের ডিফেন্ডার ফার্নান্দো হিয়েরোকে। দ্বিতীয়ার্ধে ১০ জনের রিয়ালের জালে দুইবার বল জড়ায় কাতালানরা। এটাই ছিল কোচ হিসেবে বার্সেলোনার কোচ হিসেবে ক্রইফের প্রথম শিরোপা। এই জয়টাই যেন বদলে দিয়েছিল সেসময়ের বার্সাকে। পরবর্তী চারটি মৌসুমের শিরোপা জিতেছিল ক্রইফের শিষ্যরা। ১৯৯১-৯২ মৌসুমে জিতেছিল ইউরোপিয়ান কাপ।

২০১১: রিয়াল মাদ্রিদ ১-০ বার্সেলোনা

সর্বশেষ ক্লাসিকো ফাইনালটির স্মৃতি হয়তো এখনো তাজা আছে ফুটবলপ্রেমীদের মনে। রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হিসেবে সেবারই প্রথম শিরোপাটি জিতেছিলেন হোসে মরিনহো। ২০১১ সালের কোপা ডেল রে’র ফাইনালে রিয়াল পেয়েছিল ১-০ গোলের জয়। নির্ধারিত ৯০ মিনিট গোলশূন্য থাকার পর অতিরিক্ত সময়ে হেড করে জয়সূচক গোলটি করেছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। ম্যাচ শেষে সাজঘরে কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন বার্সার আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি।

আগামীকাল সপ্তমবারের মতো ক্লাসিকো ফাইনালে মুখোমুখি হবে ইউরোপের অন্যতম সেরা ও ধনী দুই দল। এবারের লড়াইটি হবে ক্লাসিকো ফাইনালের শ্রেষ্ঠত্ব নির্ধারণেরও। এর আগের ছয়টি ফাইনালে রিয়াল জিতেছে তিনবার, বার্সেলোনা তিনবার। এবার শেষ হাসি কারা হাসতে পারবে সেটা দেখার জন্য নিশ্চয়ই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন ফুটবলপ্রেমীরা।