সোমবার, ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘অত্যাচারের’ জবাব দেওয়া হবে: খালেদা জিয়া

আলোচনার মাধ্যমে নির্দলীয় সরকারের অধীনে দ্রুত একটি নির্বাচনের ব্যবস্থা করার আহ্বান জানিয়ে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, বেশি দেরি করলে, জুলুম-নির্যাতন বাড়ালে এর পরিণতির দায় সরকারকেই নিতে হবে। সময় মতো আন্দোলন ও সরকারের ‘অত্যাচারের’ জবাব দেওয়া হবে।



আজ শনিবার শ্রমিক দল ঢাকা মহানগর কমিটির সম্মেলন ও কাউন্সিলের উদ্বোধনী পর্বে খালেদা জিয়া এসব কথা বলেন। রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ওই সম্মেলন হচ্ছে।



নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির চেয়ারপারসন বলেন, ‘আসুন সময় হয়েছে, জুলুম-অত্যাচারে চোখের পানি ফেলে নয়, নির্যাতনের জবাব দিতে হবে প্রতিরোধ, প্রতিবাদ করে। সে প্রস্তুতি নিন।’



রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলতে পারবেন—এমন দক্ষ নেতৃত্ব নির্বাচনের আহ্বান জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, শুধু তালি বাজালে বা স্লোগান দিলে হবে না। কাজের কাজ করতে হবে। যাঁরা সত্যিকার ত্যাগী, সাহসী ভূমিকা রাখতে পারবেন, রাজপথে থাকতে পারবেন, তাঁদের নির্বাচিত করতে হবে। না হলে সম্মেলন হবে মূল্যহীন।



সময় মতো আন্দোলনে যাওয়ার ঘোষণা দিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘যারা যাই মনে করুক, যখন মনে করব আন্দোলনের সময় হয়েছে, আমরা প্রস্তুত, তখন আন্দোলন করব। কারও কথায় আমরা চলি না।’



এ জন্য সংগঠন গোছানোর কাজ চলছে বলে জানান খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, সারা দেশে কমিটি পুনর্গঠনের কাজ শুরু হয়েছে। ঢাকা মহানগর বিএনপির কমিটিও পুনর্গঠন করা হবে। যাদের যোগ্যতা, দক্ষতা, মেধা আছে, সংগঠন গতিশীল করার স্বার্থে তাঁদের নেতৃত্বে নিয়ে আসা হবে। কমিটিগুলোতে থাকবে নবীন-প্রবীণের সমন্বয়।



আওয়ামী লীগ সরকারের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, দেশে কোনো গণতন্ত্র নেই। গণতন্ত্র মৃত। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে এ সরকার গণতন্ত্রের কবর রচনা করেছে।

খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে এখন আর পড়ালেখা হয় না। সেগুলো অস্ত্রাগারে পরিণত হয়েছে। হলগুলোতে ছাত্রদলের কর্মী বা সাধারণ ছাত্ররা থাকতে পারেন না। আওয়ামী সন্ত্রাসীরা সেখানে থেকে টেন্ডারবাজি, খুন, মাদক ব্যবসা করছে। এখানে আওয়ামী লীগের কোনো নিয়ন্ত্রণ করছে না। কারণ, তারাও এসবের ভাগ নেয়। তিনি এসবের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহ্বান জানান।



খালেদা জিয়া বলেন, আওয়ামী লীগ সন্ত্রাসে বিশ্বাসী। তাদের প্রত্যেকের হাতে অস্ত্র। আর বিএনপির অস্ত্র জনগণ। এ জনগণকে সঙ্গে নিয়েই বিএনপি রাজপথে নামবে।



সমাবেশে শ্রমিক দলের সভাপতি নজরুল ইসলাম খান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, সাদেক হোসেন খোকা, শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক জাফরুল হাসান প্রমুখ বক্তব্য দেন। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি রেহান আলী।