মঙ্গলবার, ৬ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২১শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

মোদিকে স্ত্রীর সঙ্গে থাকার পরামর্শ

বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদিকে তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে থাকার পরামর্শ দেওয়ার প্রস্তাব অনুমোদন করেছে হরিয়ানার নারীদের এক গ্রামসভা।

আজ শনিবার টাইমস অব ইন্ডিয়া অনলাইনের প্রতিবেদনে জানানো হয়, হরিয়ানার জিন্দ জেলার বিবিপুর গ্রামে নারীদের গ্রামসভায় এ বিষয়ে একটি প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। প্রস্তাব অনুযায়ী স্ত্রীকে নিজের সঙ্গে রাখার আমন্ত্রণ জানাতে মোদিকে আনুষ্ঠানিকভাবে আহ্বান জানানো হয়েছে। গতকাল শুক্রবার এ গ্রামসভা হয়।

গ্রামসভায় গৃহীত প্রস্তাবটি গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রীর দাপ্তরিক ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মোদির কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

মোদির বৈবাহিক অবস্থা-সম্পর্কিত তথ্য প্রকাশ হওয়ার পর বিবিপুরের প্রায় ১০০ জন নারী ওই গ্রামসভায় অংশ নেন। গ্রামসভার নারীরা বলছেন, মোদি যখন পুরো দেশের নারীদের সম্মানের কথা বলছেন, তখন তাঁর উচিত নিজের স্ত্রীকে সম্মান জানানো।

নারীর অধিকার রক্ষায় গত কয়েক বছর ধরে বিবিপুরের নারীরা খবরের পাতায় উঠে আসছেন।

লোকসভা নির্বাচনে বরোদা আসনে বুধবার মনোনয়নপত্র জমা দেন মোদি। মনোনয়নপত্রের নির্ধারিত ফরমে স্ত্রীর নাম যশোদাবেন উল্লেখ করেন তিনি।

মোদি প্রথমবারের মতো স্বীকার করলেন, তিনি বিবাহিত। তাঁর স্ত্রী রয়েছে। ১৭ বছর বয়সে প্রায় সমবয়সী এক তরুণীর সঙ্গে তাঁর বিয়ে হয়েছিল। ওই নারীর নাম যশোদাবেন।

যশোদাবেন অবসরপ্রাপ্ত স্কুলশিক্ষক। তিনি মোদির নিজ শহর ভাদনগর থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে ব্রাহ্মণওয়াদা গ্রামে থাকেন। বিয়ের দুই সপ্তাহ পর তাঁরা আলাদা হয়ে যান। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) সাবেক কর্মী ৬৩ বছর বয়সী মোদি গত চারটি বিধানসভা নির্বাচনে নির্ধারিত ফরমে স্ত্রীর নামের জায়গা খালি রেখেছিলেন। বিষয়টি নিয়ে কংগ্রেসই প্রথম চ্যালেঞ্জ করে। আইনি পরামর্শ মেনে মোদি এবারই প্রথম নিজের বৈবাহিক অবস্থা স্পষ্ট করলেন।

নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে অযোগ্য ঘোষিত হওয়ার ঝুঁকি এড়াতে মনোনয়নপত্রের সব ঘর পূরণ করার ব্যাপারে ভারতের নির্বাচন কমিশন এবার বাধ্যবাধকতা আরোপ করে।