বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ভারত ও বাংলাদেশ: ইসির ক্ষমতা একই রকম, প্রয়োগ ভিন্ন

i ecকথায় নয়, কাজেই পরিচয়। কালো টাকার ব্যাপারে কঠোরপন্থা অবলম্বন এবং বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে বদলি করার নির্দেশ মেনে নেয়ার জন্য ভারতে মমতার পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে নতি স্বীকার করতে বাধ্য করার মাধ্যমে দেশটির নির্বাচন কমিশন এই প্রবাদটিকে আরো একবার সত্য প্রমাণিত করল।

সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচন করতে নির্বাচন কমিশন কিভাবে পুরো প্রশাসনকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে তার দুটি জ্বলন্ত উদাহরণ হলো সাম্প্রতিক এই ঘটনা দুটো। এ কারণেই আমাদের দেশেও একটি শক্তিশালী নির্বাচন কমিশন পাওয়ার আশায় দেশের নির্বাচন বিশেষজ্ঞরা প্রায়ই ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের উদাহরণ টেনে আনেন।

বাংলাদেশ ও ভারত- দুই দেশের নির্বাচন কমিশনই সাংবিধানিকভাবে স্বতন্ত্রভাবে কার্য পরিচালনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষমতা রাখে।

ভোটারদের প্রভাবিত করা কিংবা ভোটারদের ভোট পেতে তাদের প্রলোভন দেখানোর জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর অর্থ ও ক্ষমতার ব্যবহার ও প্রয়োগ ভারতে সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। দেশটিতে আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে কালো টাকা ও অবৈধ তহবিল ব্যবহার বন্ধ করতে এবার ভারতীয় নির্বাচন কমিশন সারা দেশ থেকে নগদ প্রায় ১৯৫ কোটি ভারতীয় রুপি জব্দ করেছে। এর মধ্যে শুধু অন্ধ্রপ্রদেশ থেকে জব্দ করা হয়েছে ১১৮ কোটি রুপি।

গ্রামাঞ্চলে অবৈধ অর্থ সরবরাহ চিহ্নিত করতে বিশেষভাবে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের নিয়ে বেশ কয়েকটি বাহিনী নিয়োগ করেছে ভারতীয় নির্বাচন কমিশন। আর অর্থের আনাগোণার ওপর শকুনের চোখ রাখতে দেশজুড়ে রাজস্ব কর্মকর্তারা তো আছেনই।

ভারতের জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে প্রচারণা চালানোর সময় ভোটারদের নগদ টাকা প্রদান ও নানা রকম প্রলোভনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে তাৎক্ষণিকভাবে দেশটির নির্বাচন কমিশন ১১ হাজার ৪৬৯টি অভিযোগ লিপিবদ্ধ করেছে এবং এরই মধ্যে ২৬.৫৬ লাখ লিটার মদ এবং ৭০ কেজি হিরোইন জব্দ করেছে।

আগামী ৩৫ দিনে দেশটির ৫৪৩টি লোকসভা কেন্দ্রে নির্বাচন হবে। এ উপলক্ষে আয়কর এবং শুল্ক ও আবগারি বিভাগের মতো গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রীয় রাজস্বের ৬৫৯ জন কর্মকর্তাকে লোকসভার আসনগুলোতে নিযুক্ত করা হয়েছে। গত ৫ মার্চ নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করার পর থেকে এই কর্মকর্তারা নগদ অর্থ জব্দ সংক্রান্ত বিভিন্ন অভিযোগ পেয়েই যাচ্ছেন।

সোমবার পর্যন্ত পাওয়া সরকারি তথ্য অনুযায়ী, নির্বাচনী ব্যয় পর্যবেক্ষক সংস্থা এ পর্যন্ত তামিলনাড়ু  ১৮.৩১ কোটি, মহারাষ্ট্র ১৪.৪০ কোটি রুপি, উত্তরপ্রদেশ ১০.৪৬ কোটি এবং পাঞ্জাব থেকে চার কোটি রুপিসহ দেশটির অন্যান্য রাজ্য থেকে বেশ কিছু নগদ অর্থ জব্দ করেছে।

এছাড়া দেশটির অর্থ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দুটি প্রতিষ্ঠান- কেন্দ্রীয় প্রত্যক্ষ কর বিভাগ ও আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটকে (এফআইইউ) নির্বাচনের সময় সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রগুলোতে কঠোরভাবে নজর রাখার নির্দেশও দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার ভি এস সাম্পাত স্বীকার করেছেন- প্রত্যেক প্রার্থীকে নির্বাচনী ব্যয়ের জন্য সর্বোচ্চ ৭০ লাখ রুপির যে সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছে, সেই সীমা যে লঙ্ঘন করবেন না, তা নিশ্চিত করা নির্বাচন কমিশনের জন্য সবচেয়ে কঠিন কাজগুলোর একটি। তিনি বলেন, “বেশ কিছু রাজ্যে অর্থক্ষমতার ব্যবহারই সবচেয়ে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।”



প্রশাসনের উপর নিয়ন্ত্রণ

অভিযোগ গ্রহণ করার পরে গত সোমবার বেশ কয়েকজন কর্মকর্তাকে বদলি করার নির্দেশ দেয় ভারতীয় নির্বাচন কমিশন। এদের মধ্যে রয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের পাঁচজন পুলিশ দুপার, একজন জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং দুজন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট।

আগামী ১৭ এপ্রিল থেকে পশ্চিমবঙ্গের পাঁচ দফার লোকসভা নির্বাচন শুরু হচ্ছে।

আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গ থেকে কর্মকর্তাদের বদলি সংক্রান্ত আদেশ পাওয়ার পর নির্বাচন কমিশনের প্রতি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। এরই ধারাবাহিকতায় নির্বাচন কমিশনের প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে মঙ্গলবার তিনি বলেন, “যতক্ষণ আমি দায়িত্বে আছি, ততক্ষণ আমার রাজ্য থেকে কাউকে নির্বাচন কমিশন কিভাবে সরায় তা আমিও দেখবো।” নির্বাচন কমিশনারের প্রতি প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, “রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা না করেই কিভাবে নির্বাচন কমিশন কাউকে বদলি করে নতুন কর্মকর্তাদের স্থলাভিষিক্ত করতে পারে?”

তবে মমতাকে কোনোরকম তোয়াক্কা না করেই তার চ্যালেঞ্জের প্রতিক্রিয়ায় কোনো উত্তর দেননি দেশটির রাজধানী নয়া দিল্লিতে অবস্থানরত নির্বাচন কমিশনার। তিনি জানান, যদি প্রয়োজন হয় তাহলে প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে সবকিছু জানিয়ে দেয়া হবে।



কিন্তু নির্বাচন কমিশনের বরাত দিয়ে ভারতের গণমাধ্যম যখন বেশ কিছু প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হলো- সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদেরকে বদলি করা না হলে পশ্চিমবঙ্গের লোকসভাগুলোতে নির্ধারিত নির্বাচন বাতিল করতে পারে নির্বাচন কমিশন, তখন দৃশ্যপট দ্রুত পালটে গেল। টনিকের মতোই কাজ হলো। মমতা নতিস্বীকার করলেন এবং নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হলেন। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবারই নিজ রাজ্য থেকে আট কর্মকর্তাকে বদলি করার বিষয়টি মেনে নেয় পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

এর পরপরই বদলি হওয়া কর্মকর্তা হিসেবে পাঁচ পুলিশ সুপার, এক জেলা ম্যাজিস্ট্রেট এবং দুই অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে নতুন কর্মকর্তাদের জন্য একটি নামের তালিকা নির্বাচন কমিশনে পাঠিয়ে দিয়েছে মমতার সরকার এবং নির্বাচন কমিশনকে বারবার অনুরোধ জানানো হচ্ছে যেন ওই তালিকার মধ্য থেকেই নতুন কর্মকর্তাদের বাছাই করা হয়।

বদলি করা কর্মকর্তাদের স্থলাভিষিক্ত হিসেবে নির্বাচন কমিশন যাদের বাছাই করেছেন, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের তৈরি করা তালিকাতে তাদের কারো নামই নেই। পশ্চিমবঙ্গের প্রধান সচিব স্বাক্ষরিত তালিকাটি এরই মধ্যে সংশ্লিষ্ট প্যানেলের কাছে একটি চিঠিসহ পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। বার্তা সংস্থা এনডিটিভি’র এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, কর্মকর্তাদের বদলিসংক্রান্ত সিদ্ধান্ত পশ্চিমবঙ্গ সরকার মেনে নিলেও সিদ্ধান্তটি পরিবর্তন করতে নির্বাচন কমিশনের কাছে প্রধান সচিব বারবার অনুরোধ জানিয়েই যাচ্ছেন।

এর আগে ২০১২ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে নির্বাচন কমিশনের কাছে ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়েছিলেন দেশটির তৎকালীন মন্ত্রী সালমান খুরশীদ।

সে সময় ক্ষমতাসীন কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা চালানোর সময় একটি নির্বাচনী র্যা লিতে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করেছিলেন সালমান খুরশীদ। উত্তর প্রদেশে অনুষ্ঠিত ওই নির্বাচনে জয়লাভ করলে সংখ্যালঘুদের জন্য নয় শতাংশ উপ-কোটা বরাদ্দ করা হবে বলে সেদিন প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি। এরপর এই বিষয়ে হস্তক্ষেপ চেয়ে রাষ্ট্রপতি প্রতিভা পাতিলের কাছে বেশ কড়া ভাষায় একটি চিঠি লেখে নির্বাচন কমিশন। এরই ধারাবাহিকতায় শেষ পর্যন্ত ক্ষমা চাইতে বাধ্য হয়েছিলেন খুরশীদ।

ক্ষমা প্রার্থনা করে তৎকালীন প্রধান নির্বাচন কমিশনার এস ওয়াই কুরায়শীর কাছে লেখা এক চিঠিতে খুরশীদ বলেছিলেন, “বিষয়টিকে আমি দুর্ভাগ্যজনক হিসেবেই মনে করছি এবং আমার ওই প্রতিশ্রুতির জন্য আমি অনুতপ্ত। নির্বাচন কমিশন আমার নমস্য এবং এ ধরনের পরিস্থিতি যেন আর কখনো সৃষ্টি না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার বিষয়ে আমি ব্যক্তিগতভাবে নিশ্চয়তা প্রদান করছি।”



বাংলাদেশের সাম্প্রতিক উপজেলা নির্বাচনের মাধ্যমে এদেশের নির্বাচন কমিশনের ভঙ্গুর দশাই প্রতীয়মান হয়েছে। নির্বাচনের সময় প্রশাসনের উপর কোনোরকম নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা নিশ্চিত করতে পুরোপুরি ব্যর্থ তো হয়েছেই, বরং পুরো সময়টাতে নির্বাচন কমিশনকে দেখা গেছে অত্যন্ত অসহায় অবস্থায়। ফলে স্বাভাবিকভাবেই নির্বাচনের সময় দেশজুড়ে দেখা গেছে ব্যাপক ভোট কারচুপি এবং সহিংস সংঘর্ষ।

নির্বাচনে কালো টাকার ছড়াছড়ি রোধ করতেও ব্যর্থ হয়েছে আমাদের নির্বাচন কমিশন। নির্বাচনী প্রচারণার সময় যেন প্রার্থীরা নির্বাচনী ব্যয়ের জন্য সরকারের বেঁধে দেয়া সীমা অতিক্রম করতে না পারেন তা নিশ্চিত করতে সংস্থাটি কোনো কর্মকর্তাকে নিযুক্তও করেনি কিংবা সরিয়েও নেয়নি।

পর্যবেক্ষকের অভাব থাকায় নির্বাচন উপলক্ষে কালো টাকা ছড়াছড়ি করার ক্ষেত্রে প্রার্থীরা ভোগ করেছেন অবাধ স্বাধীনতা। ফলে স্বভাবতই নির্বাচন সম্পূর্ণভাবেই প্রভাবিত হয়েছে। নির্বাচনে প্রার্থী, সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রীদের নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে নিতে এবং সংঘর্ষ রোধ করতেও ব্যর্থ হয়েছে নির্বাচন কমিশন।

এর আগে এটিএম শামসুল হুদার নেতৃত্বাধীন সাবেক নির্বাচন কমিশন তৎকালীন জাতীয় সংসদ ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সময় নির্বাচনী আচরণবিধি সঠিকভাবে মেনে চলা হচ্ছে কি-না তা নিশ্চিত করার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশনা দেয়ার জন্য স্ব-উদ্যোগে দেশ জুড়ে কর্মকর্তা নিয়োগ করেছিলেন। এতে বেশ কাজ হয়েছিল।



কিন্তু এরপর আর কখনো এই নিয়ম পরিচালনা করতে দেখা যায়নি। পূর্বসূরীদের ভালো প্রচেষ্টাগুলোকে তোয়াক্কা না করেই নির্বাচনকে এগিয়ে নেয়ার জন্য আমাদের বর্তমান গতানুগতিক নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ! সূত্র: ডেইলি স্টার।

 

এ জাতীয় আরও খবর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোরবানীর হাটে জন্য প্রস্তুত খামারিরা,শেষ সময়ে পরিচর্যায় ব্যস্ত

নতুন নোট বাজারে আসছে বুধবার

শিগগিরই ৫-১২ বছরের শিশুদের করোনার টিকা দেওয়া হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

এক দিনে রেকর্ড ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত

বিষাক্ত হলুদ ধোঁয়ায় ঢেকে গেল জাহাজ! মুহূর্তে ১২ জনের মৃত্যু

বিয়ের আসরে কনের পা ছুয়ে প্রণাম বরের!

বিশ্বের সব স্বৈরাচারকে টেক্কা দিয়েছে আওয়ামী সরকার : ফখরুল

আসছে ‘ডিজিজ এক্স’! অজানা রোগের মহামারীর শঙ্কা বিজ্ঞানীদের

রেসলিংয়ের মঞ্চে আরব নারী!

শ্রীলঙ্কায় এবার পেট্রল বিক্রি বন্ধ

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার বেরিয়ারে বাসের ধাক্কা

গাড়ি আমদানিতে চট্টগ্রাম বন্দরকে পেছনে ফেলল মোংলা‍