বুধবার, ২৯শে জুন, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৫ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পারিশ্রমিক নিয়ে ক্যাটরিনার অসন্তোষ

হিন্দি চলচ্চিত্রশিল্পে অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকের বিস্তর ফারাক নিয়ে বলিউডের অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউতের পর এবার অসন্তোষ প্রকাশ করলেন ‘বুম’ তারকা ক্যাটরিনা কাইফ।



‘বুম’ ছবির মাধ্যমে ২০০৩ সালে বলিউডে পা রেখেছিলেন ক্যাটরিনা। আর গত বছর মুক্তি পেয়েছে তাঁর অভিনীত ‘ধুম ৩’। ‘বুম’ থেকে ‘ধুম ৩’ ছবির মধ্যে সময়ের ব্যবধান এক দশক। এই দীর্ঘ সময়ে হিন্দি চলচ্চিত্রশিল্পে অনেক পরিবর্তন এলেও অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকের ক্ষেত্রে কোনো পরিবর্তন আসেনি বলে দাবি করেছেন ক্যাট। সম্প্রতি এক খবরে এমনটিই জানিয়েছে ওয়ান ইন্ডিয়া।



এ প্রসঙ্গে ক্যাটরিনার ভাষ্য, ‘আমি হিন্দি চলচ্চিত্রে যখন যাত্রা শুরু করেছিলাম, সেই সময়ের তুলনায় এখন নারীকেন্দ্রিক চলচ্চিত্রের অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো। মেয়েদের প্রাধান্য দিয়ে যে ধরনের চরিত্র সৃষ্টি করা হচ্ছে তা এককথায় অতুলনীয়। উদাহরণ হিসেবে বিদ্যা বালানের ‘‘কাহানি’’ কিংবা কঙ্গনা রানাউতের ‘‘কুইন’’ ছবির কথা উল্লেখ করা যায়।’



ক্যাটরিনা আরও বলেন, ‘বর্তমানে নারীকেন্দ্রিক ছবিগুলো হিন্দি চলচ্চিত্রশিল্পে ভিন্ন এক মাত্রা যোগ করেছে। নিঃসন্দেহে আমাদের চলচ্চিত্রশিল্প অনেক এগিয়ে গেছে। কিন্তু একটি ক্ষেত্রে ন্যূনতম পরিবর্তনও অর্জিত হয়নি। আর সেটা হলো অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিক। এখনো অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকের মধ্যে বিশাল ব্যবধান লক্ষ করা যায়। বিদ্যমান এই বৈষম্য সবার কাছেই স্পষ্ট। দেখা যাক, সামনে কী হয়!’



অভিনেতাদের সমান পারিশ্রমিক না পেলেও আয়কর দেওয়ার ক্ষেত্রে বেশ এগিয়ে আছেন ক্যাটরিনা। সাড়ে চার কোটি রুপি আগাম কর প্রদান করে বলিউডের অভিনেত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি করদাতা হিসেবে সুনাম কুড়িয়েছেন তিনি। তাঁর পরেই রয়েছে কারিনা কাপুর খান ও প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার নাম। তাঁরা আয়কর দিয়েছেন যথাক্রমে চার কোটি ও দুই কোটি রুপি।



প্রসঙ্গত, কয়েক দিন আগেই হিন্দি চলচ্চিত্রশিল্পে অভিনেতা ও অভিনেত্রীদের পারিশ্রমিকের বিস্তর ফারাক নিয়ে অভিযোগ তুলেছিলেন কঙ্গনা রানাউত। এ প্রসঙ্গে এক সাক্ষাত্কারে তিনি বলেছিলেন, ‘ছবির সাফল্যের কৃতিত্বের পাশাপাশি সব অর্থও পকেটে ভরছেন অভিনেতারা। তাঁদের পারিশ্রমিকের এক-তৃতীয়াংশও দেওয়া হয় না আমাদের। আমি মনে করি, চলচ্চিত্রশিল্পের এই বৈষম্য দূর করতে বর্তমান প্রজন্মের অভিনেত্রীদের দায়িত্ব নিতে হবে। কাজের সঠিক মূল্যায়ন এবং শক্ত একটি অবস্থান নিশ্চিত করতে এগিয়ে আসতে হবে আমাদের।’