শনিবার, ৮ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ২৩শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে টালমাটাল ভারত!

আইপিএলে ফিক্সিং নিয়ে বেশ কিছু দিন ধরেই তোলপাড় চলছে ভারতীয় ক্রিকেটে। গতকাল দেশটির সুপ্রিম কোর্ট কিছু সুপারিশ দেওয়ার পর নতুন করে ভারতীয় ক্রিকেটে টালমাটাল শুরু হয়েছে। আজ দেশটির সর্বোচ্চ আদালত কিছু নির্দেশও দিয়েছেন, এমন এক দিনে যেদিন ভারতীয় দল মাঠে নামবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচ খেলতে। মুখোমুখি হবে বাংলাদেশের। ভারতীয় দল মাঠের বাইরে ঘটে চলা ঘটনা থেকে মনোযোগ সরিয়ে পুরোপুরি মনোযোগ দিতে চাইছে ক্রিকেটেই। কিন্তু যেসব শোরগোল চলছে, তার ছোঁয়াচ বাঁচিয়ে চলতে কানে তুলে দিয়ে বসে থাকা আদৌ কি সম্ভব?


আইপিএলের ফিক্সিং কেলেঙ্কারির মূল অভিযোগ দুটো দলকে ঘিরে। একটি রাজস্থান রয়্যালস, অন্যটি চেন্নাই সুপার কিংস। ভারতীয় দলের দলনেতা মহেন্দ্র সিং ধোনি এই সুপার কিংসেরও অধিনায়ক। শুধু তা-ই নয়, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ভারতীয় দলে এমন পাঁচজন খেলোয়াড় আছেন, যাঁরা চেন্নাই দলের খেলোয়াড়। মাঠের বাইরের ঘটনাবলির আঁচ ভারতীয় দলে গিয়ে পড়াই স্বাভাবিক।


ধোনি ফিক্সিংয়ের মতো কেলেঙ্কারির সঙ্গে হয়তো জড়িত নন। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে আনা অভিযোগটাও হেলাফেলার নয়। ধোনির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে আইপিএল ফিক্সিং কেলেঙ্কারির সুরাহা করতে গঠিত মুডগাল কমিশনে মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়ার। অপরাধে জড়িত না থেকেও অপরাধ হচ্ছে বা হয়েছে জেনে সেটি গোপন করা, কমিশনের কাছে মিথ্যা সাক্ষ্য দেওয়াও গুরুতর অপরাধের পর্যায়ে পড়ে।


এরই মধ্যে বিস্ফোরক খবর দিয়েছে ‘হিন্দুস্তান টাইমস’। আইপিএলের সবচেয়ে সফল দল চেন্নাই সুপার কিংসের অধিনায়কের পদ থেকে সরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নাকি নিয়ে ফেলেছেন ধোনি। ভারতীয় ক্রিকেটে অবিস্মরণীয় সাফল্য এনে দেওয়া, টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পর আসল বিশ্বকাপ জয়েও নেতৃত্ব দেওয়া ধোনি নিজের ভাবমূর্তি বাঁচাতে চেন্নাই দল থেকেই সরে যেতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে।


কিন্তু তাতেও ধোনি আগুনের আঁচ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারবেন কি? গতকাল বৃহস্পতিবার ভারতের সুপ্রিম কোর্ট তিনটি সুপারিশ দিয়েছেন। যেগুলোকে আদেশ বলাই ভালো। কারণ আজকের রায়ে এ তিনটি সুপারিশই আদেশ আকারে আসার কথা। যে তিন সুপারিশের একটি মেনে এরই মধ্যে ভারতীয় বোর্ডের প্রধানের পদ থেকে সরে যেতে বাধ্য হয়েছেন এন শ্রীনিবাসন। অন্তবর্তী প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছেন সুনীল গাভাস্কার। শ্রীনিবাসনের বিরোধীপক্ষের অভিযোগ হলো, চেন্নাই সুপার কিংস আর জামাতা গুরুনাথ মায়াপ্পনকে বাঁচাতে এই শ্রীনিবাসন ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন। শুধু তা-ই নয়, তাঁর চাপেই ধোনি বাধ্য হয়েছেন মুডগাল কমিশনে মিথ্যা সাক্ষ্য দিতে।


সুপ্রিম কোর্টের আরেকটি সুপারিশে বলা হয়েছে এবারের আইপিএল চেন্নাই এবং রাজস্থানকে বাদ দিয়েই করতে হবে। এর প্রভাবও পড়ার কথা ভারতীয় দলে। আইপিএল যে এখন ক্রিকেটারদের সবচেয়ে বড় রুটি-রুজি।


দুটো ম্যাচ জিতে সেমিফাইনালে এক পা দিয়ে রাখা ভারত অবশ্য দাবি করছে, মাঠের বাইরের খবরে কিছুই যায়-আসে না তাদের। কালও ধোনিকে আড়ালে রেখে সংবাদ সম্মেলনে রোহিত শর্মাকে পাঠানো হয়েছিল। মাঠের বাইরের ঘটনাবলি খেলায় প্রভাব ফেলবে কি না—অস্ট্রেলীয় এক সাংবাদিকের এমন প্রশ্নের উত্তরে রোহিত দাবি করেছেন, ‘না, আমরা কাগজ পড়ি না। টিভিতেও খবর দেখি না খুব একটা। আমাদের পুরো মনোযোগ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। এখানে আমরা চ্যাম্পিয়ন হতেই এসেছি।’

সে যা-ই হোক, বাংলাদেশের সামনে আজ সুবর্ণ সুযোগ ভারতকে আরও একবার ঠেসে ধরার। মাঠের বাইরের নানাবিধ ঘটনাবলিতে টালমাটাল ভারতকে বাংলাদেশ চেপে ধরতে পারবে, নাকি নিজেদেরই টালমাটাল সময়ের ঘূর্ণাবর্তে ঘুরপাকে, কে জানে!