বৃহস্পতিবার, ১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

‘একদা এখানে ছিল কুমার নদ’

nodiএক সময়ের উত্তাল কুমার নদ এখন পুরোপুরি মরা খাল। এই নদে এক সময় প্রবল সে াত আর উত্তাল ঢেউ ভেঙ্গে চলাচল করত শত শত পালতোলা নৌকা। চলাচল করত যাত্রীবাহী ও মালবাহী বড় বড় লঞ্চ। এ নদকেই কেন্দ্র করে এই এলাকায় গড়ে উঠেছিল অসংখ্য হাটবাজার। নানা জাতের দেশি মাছের জন্যও খ্যাতি ছিল এ নদের। মাছ উত্পাদন হত এ নদে। এ সবই এখন মন কেমন করা সুখস্মৃতি। দখলদাররা নদ ভরাট করে খুশিমত ফসলি জমি তৈরি করছে। অবৈধভাবে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন ও পাড় কেটে মাটি বিক্রির প্রতিযোগিতায় মেতে উঠে নদীর চিহ্নটিও মুছে ফেলতে মরিয়া কিছু লোক। এক কথায় বলা যায়, মরণ ঘন্টা বেজে গেছে কুমার নদের। আর কদিন বাদেই হয়তো ভূগোলের পাতায় লেখা থাকবে 'একদা এখানে ছিল কুমার নদ।'

এ জাতীয় আরও খবর

সিনেমায় নাম লেখালেন নিশো; রাফীর ড্রিম প্রজেক্ট ‘সুড়ঙ্গ’ আসছে

আর্জেন্টিনার খেলা উপলক্ষে পটকা ফোটাতে গিয়ে আহত যুবক

‘মেসির নামটা বললেই আমার বুকের মধ্যে একটা গোল হয়’

বিডিনিউজ প্রধান সম্পাদকের জামিন বহাল

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ইরানের হারে উচ্ছ্বাস বিক্ষোভকারীদের, গুলিতে নিহত ১

গায়েবী মামলা দিয়েও সরকারের শেষ রক্ষা হবে না : রিজভী

১ থেকে ১৫ ডিসেম্বর দেশজুড়ে পুলিশের বিশেষ অভিযান

‘গাড়ি বন্ধ করে সমাবেশে উপস্থিতি কমানো যাবে না’

শুরু বিজয়ের মাস

রাজশাহীতে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট, ভোগান্তি

সাগর-রুনি হত্যা: ৯৪ বারের মতো পেছাল তদন্ত প্রতিবেদন

আইজিপির সাথে বৈঠক; পুলিশ সদর দপ্তরের উদ্দেশে বিএনপি প্রতিনিধিদল