শনিবার, ১৩ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ ২৯শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘জয়ের জন্য ক্ষুধার্ত আমরা’

খারাপ সময় পেছনে ফেলে নতুন শুরুর অপেক্ষা। ঘরের মাঠে টি-টোয়েন্ট বিশ্বকাপকেই ঘুরে দাঁড়ানোর আসল মঞ্চ ভাবছেন মুশফিকুর রহিম। আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে কাল সংবাদ সম্মেলনে কথা বললেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। তারই চৌম্বক অংশ—


5324b80a2442a-Untitled-8 কালকের (আজ) ম্যাচ নকআউটের মতো কি না

মুশফিকুর রহিম: না, আমার ওই রকম মনে হয় না। আমাদের মূল কথা, প্রত্যেক ম্যাচই জয়ের জন্য খেলব। প্রথমে যেহেতু আফগানিস্তান, চেষ্টা করব জয় দিয়ে যেন শুরু করতে পারি। নেপালও কয়েকটা প্রস্তুতি ম্যাচ ভালো খেলেছে। হংকংও ভালো খেলেছে। দুটি ম্যাচ জিতেছে। আমার মনে হয় প্রতিটি দলই অনেক শক্তিশালী। কালকের (আজ) ম্যাচ অনেক গুরুত্বপূর্ণ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার জন্য। অবশ্যই আমরা সেদিকেই মনোযোগ দিচ্ছি।

 স্বাগতিক হিসেবে চাপ

মুশফিক: মনে হয় না খুব বেশি চাপ আছে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট যখনই খেলবেন, চাপ থাকবেই। চাপটা এ কারণেই আসছে, কারণ বাংলাদেশ শেষ দুই বছর ভালো খেলে এই সম্মানটা অর্জন করেছে। তাই প্রত্যাশা থেকে আসা চাপটা থাকবেই। আমরা চেষ্টা করছি প্রত্যাশা অনুযায়ী পারফর্ম করতে। চাপের সঙ্গে আমাদের নিজের মাঠ, দর্শক সমর্থন থাকবে। আশা করছি, এই সমর্থন নিয়ে আমরা যেন কাল (আজ) জয় দিয়ে শুরু করতে পারি।

 আফগানিস্তান-হুমকি

মুশফিক: মনে হয় না। এটা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাট। আফগানিস্তান কেন, আমার মনে হয় হংকংও অনেক শক্ত দল। নির্দিষ্ট দিনে এই সংক্ষিপ্ত ক্রিকেটে যে ভালো খেলবে, জয় তাদেরই। পুরো দল লাগে না একটা দলকে হারাতে। একজন, দুজন খুব ভালো খেললে সেটা থেকে বের হয়ে আসা কঠিন। কিন্তু আমার বিশ্বাস আছে আমাদের দলের ওপর, ব্যক্তির ওপর। যখন যার দরকার হবে সে যেন সেভাবে পারফর্ম করে। আমরা যেন চাপটা শুরু থেকেই ধরে রাখতে পারি। আমরা জানি ওরা কেমন খেলে, জানি ওদের অনেক দুর্বল দিক।

 জিম্বাবুয়ের কাছে প্রস্তুতি ম্যাচে আফগানিস্তানের হার

মুশফিক: আশা করছি আজকের (গতকাল) মধ্যে ওই ম্যাচের কিছু ফুটেজ পাব। ওদের কিছু নতুন খেলোয়াড় আছে। আমরা হোমওয়ার্ক করে ফেলব। ওরা ১৬৮ করার পরও হেরে গেছে। চট্টগ্রামের উইকেট মনে হয় অনেক আলাদা ছিল। সেদিক থেকে বলব, এটা বড় হার। তার পরও টি-টোয়েন্টি আলাদা বলের খেলা। আমি মনে করি এখনো আফগানিস্তান কঠিন প্রতিপক্ষ। ওদের বিপক্ষে জয়ের জন্য যা যা করা দরকার, সেটাই করব। কঠিন লড়াই করে জেতার মতো ভালো আর কিছুই হতে পারে না। আমরা সবাই মানসিক ও শারীরিকভাবে সেটা করতে প্রস্তুত।

 টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশ-আফগানিস্তান তুলনা

মুশফিক: আমার মনে হয় টি-টোয়েন্টিতে প্রতিটি দলই ৫০-৫০। এখানে দক্ষতার দিক থেকে নির্ভর করে নির্দিষ্ট দিনে কে ভালো খেলছেন। তার ওপর নির্ভর করে ছন্দ কাদের কাছে আছে এবং কে ধরে রাখতে পারছে। সেদিক থেকে আমাদের চেয়ে হয়তো ওরা বেশি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলেছে। কিন্তু আন্তর্জাতিক চাপের কথা যদি বলেন, ওদের চেয়ে আমাদের অভিজ্ঞতা অনেক বেশি। ব্যক্তিগত দক্ষতার দিক থেকে আমরা অনেক এগিয়ে। কিন্তু আমি বারবার বলছি ওই দিনটাতে কে ভালো খেলবে। কারণ এক-দুজন খেলোয়াড় অনেক কিছুই পরিবর্তন করে দিতে পারে। সেদিক থেকে বলব আমরা আত্মবিশ্বাসী আছি ইনশাআল্লাহ।

 ভালো করার বিশ্বাসের উৎস

মুশফিক: শেষ তিন মাস আমরা জানি, আমরা কতটা কষ্ট করেছি। সে অনুযায়ী ফল পাইনি। আমরা জানি দু-একটি ম্যাচ পুরো পরিবেশ পরিবর্তন করে দিতে পারে। শেষ দুটি ম্যাচ খেলে সেই অনুভূতিটা আস্তে আস্তে ফিরে আসছে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে আমাদের দলটি এখন আরও আক্রমণাত্মক। জয়ের জন্য ক্ষুধার্ত হয়ে আছি আমরা। এটাই সবচেয়ে বড় প্রেরণা হতে পারে। আমরা আবার হয়তো প্রথম থেকে শুরু করেছি। এখান থেকে যত ভালো করা যায়। যেন এর সীমা না থাকে, সামনের ম্যাচগুলোয় আমরা সেই চেষ্টাই করব।